১৭ মে: হাসতে নেই মানা

May 17, 2018 at 4:05 pm

সিল্কসিটিনিউজ ডেস্ক:

এক তরুণীর খুব শখ হলো কথাবলা পাখি কিনবে। খুঁজে খুঁজে তিনি কাঁটাবন গেলেন। একটি দোকানে খুব সুন্দর একটা তোতা পাখি দেখলেন।

দোকানি: আসুন আপু! এ পাখিটা চমৎকার। কথা বলায় পটু। যা জিজ্ঞেস করবেন তার উত্তর ঝটপট দিয়ে দিবে। তরুণী: তাইনাকি! ওয়াও! সত্যি! আমি এমনটাই চাচ্ছিলাম।

দোকানি: পরীক্ষা করে দেখেন আপু। এটা সব বুঝে নিজে থেকেই অনেক কিছু শিখে নেয়! আর উত্তর দেয়। বড়ই আশ্চর্য এ পাখি। অতপর তরুণী খুশি হয়ে পাখিটাকে গিয়ে জিজ্ঞেস করলঃ আচ্ছা আমাকে দেখে আমার সম্পর্কে কি মনে হয় তোমার?

পাখিটা ঠাস করে বলে বসলঃ বেশি সুবিধার না, বাজে মাইয়া!

তরুণীটি থতমত খেয়ে গেল। দোকানির দিকে তাকিয়ে রইল কিছুক্ষণ!

রেগেমেগে দোকানদারকে অভিযোগ করল: ছিহ! এসব কী শিখিয়েছেন আপনার পাখিকে?

দোকানদার পাখিটাকে ধরে এক বালতি পানিতে ডুবিয়ে দিল কয়েকবার। এরপর জিজ্ঞেস করলঃ আর খারাপ কথা বলবি?

পাখিটা ভালো মানুষের মতো না না করে মাথা নাড়ালো।

দোকানি: স্যরি! আপু, এবার জিজ্ঞেস করেন।

তরুণীটি খুশি হয়ে আবার পাখিটাকে জিজ্ঞেস করেলোঃ আচ্ছা আমি যদি রাতে ঘরে একজন পুরুষ নিয়ে ঢুকি , তুমি কি মনে করবে?”

পাখিটি বললোঃ তোমার স্বামী।

তরুণী: যদি দুজনকে নিয়ে ঢুকি?

পাখিটি বললোঃ তোমার স্বামী আর দেবর!

তরুণী: যদি তিনজনকে নিয়ে ঢুকি?

পাখিটি বললোঃ তোমার স্বামী , দেবর আর ভাই ।

তরুণী বললোঃ যদি চারজনকে নিয়ে ঢুকি?

পাখিটা দোকানদারকে চেঁচিয়ে ডাকলঃ ঐ মিয়া বালতি নিয়া আসো! আগেই কইছিলাম এই মাইয়া সুবিধার না, বাজে মাইয়া, বাজে মাইয়া

Print