ঢামেকে অস্ত্রোপচার কক্ষে চিকিৎসকদের হাতাহাতি, আতঙ্কে রোগীরা

May 9, 2018 at 11:03 pm

সিল্কসিটিনিউজ ডেস্ক:

ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের সার্জারি বিভাগের অপারেশন থিয়েটারে রোগীর সামনে হাতাহাতিতে জড়িয়ে পড়েন চিকিৎসকরা। এতে করে দীর্ঘ সময় রোগীদের অপারেশন বন্ধ থাকে। আতঙ্কিত হয়ে পড়েন রোগীরা।

সংশ্লিষ্টরা জানান, বুধবার দুপুর দেড়টার দিকে সার্জারি বিভাগের অধ্যাপক ডা. তপন কুমার দাস অস্ত্রোপচার কক্ষে খাদ্যনালির সমস্যায় আক্রান্ত এক নারী রোগীর অস্ত্রোপচারের জন্য এনেস্থেটিস্ট ডা. ইব্রাহিমকে (এমডি কোর্সের ছাত্র) রোগীকে অচেতন করতে নির্দেশ দেন।

কিন্তু একাধিকবার বলার পরেও তিনি অধ্যাপকের কথায় কর্ণপাত করেননি। এ সময় অধ্যাপকের পাশে দাঁড়ানো সার্জারি বিভাগের অন্যান্য জুনিয়র চিকিৎসকরা ডা. ইব্রাহিমের এ ধরনের আচরণে অসন্তোষ প্রকাশ করেন এবং তার সঙ্গে বাগ্বিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়েন, যা একপর্যায়ে হাতাহাতিতে রূপ নেয়।

তবে হাসপাতাল সূত্র জানায়, অস্ত্রোপচার কক্ষে চিকিৎসকদের হাতাহাতির কারণে সার্জারি ইউনিটের সব ওটি ওই সময় বন্ধ ছিল। শুধুমাত্র ইমার্জেন্সি ওটি চালু ছিল।

অপারেশন থিয়েটারে চিকিৎসকদের এ ধরনের আচরণে অস্ত্রোপচারের জন্য অপেক্ষমাণ রোগী ভয়ে আঁতকে উঠেন। এ সময় বন্ধ হয়ে যায় অস্ত্রোপচার। পরে হাসপাতাল পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এ কে এম নাসিরউদ্দিন ও কলেজ অধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. খান মো. আবুল কালাম আজাদের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে।

এ প্রসঙ্গে ঢামেক অধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. খান মো. আবুল কালাম আজাদ বলেন, ছাত্রদের সামনে অধ্যাপকের নির্দেশ মানতে দেরি করায় চিকিৎসক শিক্ষার্থীরা অজ্ঞানকারী চিকিৎসকের সঙ্গে তর্কে জড়িয়ে পড়েন। ভুল-বোঝাবুঝির ফলে এমনটা ঘটেছে।

তিনি বলেন, দু’পক্ষকে স্পষ্ট করে বলা হয়েছে, ঢামেক হাসপাতালে এক মিনিটের জন্য চিকিৎসা বন্ধ রাখা যাবে না।

275Shares
Print