কাঁদলেন, কাঁদালেন দুর্গাপুরের বিদায়ী ইউএনও

October 10, 2019 at 6:33 pm

দুর্গাপুর প্রতিনিধি:
উপজেলা পরিষদ ও উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে বিদায় দেয়া হয়েছে রাজশাহীর দুর্গাপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) লিটন সরকারকে। এক আবেগঘন পরিবেশের মধ্য দিয়ে বৃহস্পতিবার সকালে বিদায় নেন তিনি। উপজেলা সভা কক্ষে তার বিদায় অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। অন্যদিকে বিকেলে নবাগত ইউএনও মহসীন মৃধাকে বরণ করা হয়।

বিদায়ী ইউএনও লিটন সরকার খুব সংক্ষেপে আবেগঘন বক্তব্য দেন। বক্তব্যের এক পর্যায়ে তার চোখ পানিতে ছলছল করে ওঠে। এ সময় অনেকেই তাকে দেখে নিজের অশ্রু ধরে রাখতে পারেননি। কেউ কাঁদো কাঁদো ভাব কেউবা অঝরেই কেঁদে ফেলেন। এভাবেই তিনি নিজে কাঁদেন, অন্যদেরওকে কাঁদান ইউএনও। ইউএনও গত এক বছর দুই মাসে কাজে-কর্মে ও ভালবাসায় সকল স্তরের মানুষের মনে জায়গা করে নিয়েছিলেন বলে জানান উপজেলাবাসী।

অনুষ্ঠানে উপজেলা চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম, ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল মোতালেব, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান বানেছা বেগম ও বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে যারা বক্তব্য দিয়েছেন সকলের মুখেই ছিল বিদায়ী ইউএনওর প্রশংসা। এসময় বিভিন্ন সংগঠন থেকে তাকে বিদায়ী অভিবাদন, সংবর্ধনা ও সম্মাননা ক্রেস্ট প্রদান করা হয়।

উল্লেখ্য, গত কয়েকদিন আগে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে ইউএনও লিটন সরকারের বিদায়ের সংবাদ ছড়িয়ে পড়ে। এরপরেই বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের কর্মরত কর্মকর্তা-কর্মচারী, উপজেলার হতদরিদ্র, এতিম, ও প্রতিবন্ধীসহ নানা শ্রেণী পেশার মানুষের মাঝে এক ধরনের বেদনা বিরাজ করতে থাকে। গরীব অসহায় স্বাবলম্বী নারী-পুরুষদের উপজেলায় আনাগোনা বেড়ে যায়। ইউএনওর দরজায় এসে কউকে কান্নায় ভেঙে পড়তে দেখা যায়। হাঁস-মুরগী, সেলাই মেশিন, রিকশা, ভ্যান গাড়ী ও ঝাল-মুড়ির দোকানসহ জীবন চলার নানা অবলম্বন দিয়ে তিনি যাদের স্বাবলম্বী হতে সহায়তা করেছেন, তারা তাকে এক নজর দেখতে ছুটে আসেন উপজেলায়।

আজ বৃহস্পতিবার ইউএনও’র বিদায় অনুষ্ঠান প্রাঙ্গণ ছিল লোকে লোকারণ্য ও নানা শ্রেণী পেশার মানুষের উপস্থিতিতে মুখরিত। অনুষ্ঠানের বাহিরে বসেও লোকজনকে অনুষ্ঠান উপভোগ করতে দেখা যায়। ইউএনও তার মায়াবী ব্যবহার ও কোমল আচরণের মাধ্যমে অল্প সময়ের মধ্যে দুর্গাপুর উপজেলার সর্ব স্তরের মানুষের মনজয় করতে সক্ষম হয়েছিলেন। তিনি নওগাঁ জেলার পত্নীতলা উপজেলায় বদলি হয়েছেন।

এদিকে, তার স্থলে যোগদান করছেন মহসীন মৃধা। বৃহস্পতিবার বিকালে তাকে বরণ করে নেয়া হয়। যোগদানকৃত ইউএনও আগের ইউএনও’র অভাব পূরণে সচেষ্ট হবেন বলে দুর্গাপুরবাসীর প্রত্যাশা।

 

স/শা

Print