বসন্ত বরণ ও ভালবাসা দিবস উপলক্ষে চাহিদা বেড়েছে ফুলের

February 12, 2019 at 1:04 pm

নিজস্ব প্রতিবেদক:

ঋতুরাজ বসন্ত ও ভালোবাসা দিবসকে রাঙাতে কতোই না আয়োজন, যার মূল উদ্দেশ্য রঙ-বেরঙের ফুল। এর নাম শুনলেই যেনো আনন্দে নেচে ওঠে মন। নির্মল হয়ে যায় হৃদয়। পৃথিবীর সবচেয়ে বড় উপহারও যেনো এটি। নানা রঙের ফুলের আবির আর মৌ মৌ গন্ধে কেড়ে নেয় বিষাদ। ভালোবাসার প্লাবনে ভাসিয়ে দেয় মন। সব আবেদন, অনুরাগ, শ্রদ্ধা আর ভালোবাসা বহি প্রকাশের বড় মাধ্যম ফুল। আসছে বিশেষ তিনটি দিবস। যার পরতে পরতে স্থান পাবে ফুলের বিস্তার। বসন্ত আর ভালোবাসার আকুতিতে যেমন ছড়াবে সৌরভ, তেমনি ভাষা দিবসে শ্রদ্ধার অশ্রুকে ঢেকে দেবে ফুল। আর দিবসগুলোর মূল অনুষঙ্গ ফুল নিয়ে ব্যস্ততার যেনো শেষ নেই ফুল বিক্রেতাদের। আর সে জন্যই নগরীর ফুলের দোকানগুলোতে আগে থেকেই বাড়তে শুরু করেছে দাম। বিশ্ব ভালবাসা দিবস ও বসন্ত বরণ উপলক্ষে প্রায় সব ফুলের দাম দ্বিগুন।

মঙ্গলবার সকালে নগরীর ফুলের দোকানগুলোতে ঘুরে দেখা যায় আগে থেকেই ফুলের দোকানে ভিড় জমাচ্ছেন ক্রেতারা। বসন্ত বরণ উপলক্ষ্যে আগে থেকেই কিনে রেখে দিচ্ছেন গোলাপ, বেলি, গাঁদা জিপসি ফুলের টায়রাসহ বসন্তের সাজ সজ্জার লাল, হলুদ ও বাসন্তি রঙের শাড়ি।

নিউ গভঃ ডিগ্রি কলেজের শিক্ষার্থী মনিরা খাতুন বলেন আগামী কাল বসন্ত তাই আগে থেকেই কিনে রেখে দিচ্ছি । বার বার বাজারে আসা ঝামেলা তাই।

এদিকে ফুল বিক্রেতারা জানান সারাবছর তেমন বিক্রিহয় না তবে বিশেষ বিশেষ দিনে ব্যবসা ভালো হয়।

ফুল দোকানিরা জানান, সাধারণ দিনগুলোতে গোলাপ ১০ থেকে ১৫ টাকা প্রতি পিস বিক্রি হলেও বিশেষ দিনগুলোতে গোলাপ ৩৫ থেকে ৪০ টাকায় বিক্রি হয়। রজনীগন্ধার স্টিক ১৫-২০ টাকা, ফুলের তোড়া সর্বনিম্ন সাড়ে ৩শ’ থেকে ১ হাজার টাকা, জারবেরা ২০ থেকে ৩০ টাকা। স্বাভাবিক দিনে প্রতিটি প্রতি হাজার গাঁদা ফুল ৫০০ টাকায় বিক্রি হলেও বিশেষ দিনগুলোতে ৮০০ টাকা ছাড়িয়ে যায়। জারবেরা ফুলগুলোর মধ্যে গাড়ো রঙেরগুলো মানুষের বেশি পছন্দের। এসব ফুল স্বাভবিক দিনে প্রতিটি ২০ থেকে ৩০ টাকায় বিক্রি হলেও ৫০ টাকা দরে বিক্রি হয় বিশেষ দিন গুলোতে। এখানকার ফুল ব্যবসায়ীরা ঢাকা, যশোর, কালিগঞ্জসহ দেশের বিভিন্ন স্থান থেতে ফুল আদানী করে বিক্রি করে থাকেন। বসন্ত বরণ ভালোবাসা দিবস ও আন্তর্জাতিক মার্তভাষা দিবসকে কেন্দ্র করে ফুল ব্যবসায়ীরা ইতি মধ্যে ফুল চাষী ও পাইকারী ব্যবসায়ীদের কাছে অগ্রীম অর্ডার করে রেখে দিয়েছে।

নগরীর সাহেব বাজার জিরো পয়েন্টের মোড়ের রোজ পুষ্প বিতানের মালিক রাজিব হোসেন জানান, সারা বছরের মধ্যে এ সময়টি এমন একটি সময় পরপর দুই দিন ফুলের চাহিদাটা অত্যন্ত বেশী থাকে। এজন্য ফুলের দাম বাড়াটই স্বাভাবিক। ফুল এমন একটি জিনিষ যা বেশিদিন ধরে সংরক্ষন করে রাখার উপায় নেয়। তাই অধিক চাহিদার কারনে দাম বেশিই থাকে। তিনি আরো বলেন সাধারণ দিনে একটি গোলাপ ফুল সাধারণত ১০-১৫ টাকায় বিক্রি করে থাকি তবে ভালোবাসা দিবসে এর দাম কয়েকগুন বেড়ে ৪০-৫০ টাকা ছাড়িয়ে যেতে পারে। গত বছরের তুলনায় এবছর সকল ফুলের দাম একটু বেশি বলে জানিয়েছেন ব্যবসায়ীরা।

স/র

Print