ভালবাসা দিবস মানে যা মনে করেন রাজশাহীর তরুণরা

February 14, 2018 at 1:42 pm

নিজস্ব প্রতিবেদক:

ভালবাসা। ছোট্ট একটি শব্দে একটি সম্পর্কের নাম। মনের বিভেদ ভূলে যাওয়ার এক অনাবিল অনুভূতির বহি:প্রকাশ। কখনও হতাশা, কখনও বিচ্ছেদ আবার কখনও কাছে আসার তীব্র প্রয়াস। ভালবাসা মানেনা বয়স, জানে না দিন-ক্ষণ। ভালবাসা পরিপূর্ণতা আনে জীবনে, ভরিয়ে সবার মন। ভালবাসার এই দিনটিকে স্মরণীয় করে রাখতে ১৪ ফেব্রুয়ারী সারা বিশ্বব্যাপী পালিত হয়ে আসছে বিশ্ব ভালবাসা দিবস।

এই দিনে ভালবাসার মানুষগুলো তাদের পছন্দের প্রার্থীটির সাথে স্মৃতিময় করে তুলতে চায়। সিল্কসিটিনিউজের পক্ষ থেকে জানতে চাওয়া হয়েছিল ভালবাসা দিবসের তাৎপর্য কি? অনেকের মতে, এটি বিশেষ কোন দিন না, অন্যান্য দিনের মতোই! ভালবাসার কোন দিবস লাগে না যেকোন সময় ভালবাসা প্রকাশ করা যায়। কেউ বলেন, নিজের জন্য আর প্রেমিকার জন্য নয়, ভালবাসা মা, বাবা ও পরিবার এবং সকল প্রিয় মানুষ গুলোর জন্য।

আবার কারো মতে, ভালবাসা না থাকলে পৃথিবী অর্থহীন, তাই ভালবাসা দিবসের তাৎপর্য অপরিসীম। ভালবাসা দিবস নিয়ে মেতে উঠে নোংরামি তাই কেউ বা একে বয়সের দোষ বলেও মনে করে থাকেন।

রওনক আলী বলেন, ভালবাসা মানে পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ অনুভূতি গুলো। যার সাহায্যে জীবন টাকে এগিয়ে নিয়ে যায় যে কোনো পরিবেশে। বছরের ৩৬৫ দিনই ভালবাসার দিন কিন্তু হয়তো বলা হয়না। তাই ১৪ ফেব্রুয়ারী কতটা ভালবাসি তারই ছোট রূপ প্রকাশ করার দিন কারণ ভালবাসাতো আর পরিমাপ বা ওজন করা যায় না।

সাজিয়া সুলতানা মীম বলেন, ভালোবাসা প্রতিদিনের জন্য। ভালোবাসতে দিন লাগেনা,লাগেনা সন্ধ্যা। শুধু প্রয়োজন ভালোবাসার মানুষের দেওয়া মুহূর্ত। তাই আমার কাছে ভালোবাসার দিবসের মূল্য নেই। ভালোবাসা হোক সকাল রাত্রি। কাজী নুসরাত জাহান তানি বলেন, আমার কাছে ভালবাসা দিবসের কোন তাৎপর্য নাই। আমার কাছে মনে হয় মানুষের মধ্যে সত্যিকার ভালবাসা থাকলে প্রতিদিনই ভালবাসা দিবস। এটি আলাদা করে পালন করার মতো না।

 

 

নাজমুন নাহার বলেন, আমার মতে,ভালোবাসা হৃদযন্ত্রের গভীর বন্ধন,ভালবাসা কখন কিভাবে হয়,এটা কেউ বলতে পারে না।ভালবাসার জন্য কোন নিদিষ্ট দিন লাগে না,ভালবাসা মনের অজান্তে হয়ে যায়।যেমন,সন্তানের প্রতি মায়ের ভালবাসা,এই ভালবাসার জন্য নির্দিষ্ট দিন লাগে না,তেমনি ছোট বড়, প্রিয় মানুষের জন্য প্রতিটি দিনই ভালবাসার দিন ভালবাসার সংজ্ঞা তাৎপর্য বলে শেষ করা যাবে না।

রোকাইয়া ইসলাম বলেন, ভালবাসা এক অদৃশ্য অনুভূতি যা অন্তরে ভালোলাগা জাগায়,ভালো কিছুর অনুপ্রেরণা দেয়,ভালভাবে বাচতে শেখায়। ভালবাসা দিবস হয়ে উঠুক সকলের প্রতি সকলের ভালবাসার বহিঃ প্রকাশ।

পিয়াল হাসান বলেন, ১৪ তারিখ মানুষের বানানো ভালবাসার দিবস। আর এর জন্য আমার কিছু বলার নাই। আমার গভীর মনোভাব থেকে আমার মনের ভাব প্রকাশ করছি। তা হলো, প্রথম ভালবাসার মনের ভেতর আনতে হবে আল্লাহর জন্য। তারপর নবীর জন্য, তারপর আব্বু আম্মুর জন্য, মানুষ অনেক কিছু বোঝে কিন্তু যেটা বোঝার দরকার, পালন করার দরকার, সেটার জন্য মানুষের গভীর ভালবাসাটা আসছে না। সবার প্রথমে আল্লাহকে ভালবাসো।

রাজশাহী কলেজের শিক্ষার্থী নীরব হোসেন বলেন, মুলত এই ভালবাসা দিবস প্রেমিক প্রেমিকার বা স্বামী স্ত্রীর ভালবাসাকেই নির্দেশ করে। তবে আমার কাছে এর তাৎপর্য আরো বেশি। দিনটা ভালবাসার। এই ভালবাসাটা মা বাবা ভাই আত্মীয় স্বজন সবার সাথেই ভাগ করে নিয়ে উদযাপন করা উচিত।

বাংলা বিভাগের শিক্ষার্থী আব্দুল গাফফার রুহিত বলেন, ভালবাসা মানে বিশ্বাস। ভালবাসা মানে, যায় হোক দিন শেষে ছোট একটা আশ্বাস দিয়ে পাশে থাকা। ভালবাসা মানে,যতো দূরে থাকুক তবুও সব সময় পাশে অনুভব করা।আর ভালবাসা শুধু প্রেমিক-প্রেমিকার নয়, ভালবাসা আমার পরিবার,আমার বন্ধু, সর্বোপরি আমার মাতৃভূমির ভালবাসা।

অর্থনীতি বিভাগের শিক্ষার্থী ফারহান বলেন,ভালোবাসা একটা মূনীয়া পাখি, যদি একে হালকা করে ধরো তাহলে উড়ে যাবে আর যদি শক্ত করে ধরো তাহলে মরে যাবে । ভালোবাসা কে অনুভব করতে হয়, তাহলেই রয়ে যায় নিজের কাছে…” দর্শন বিভাগের শিক্ষার্থী শীলা বলেন, ভালবাসা হচ্ছে মনের কোনে বেড়ে ওঠা তার জন্য একটু টান,একটু মায়া। অনেক দূরে থাকার পরও অনেক বেশী মিস করা। তার কথা মনে হলে হার্টবিট বেড়ে যাওয়া।

মানিক বলেন, মাঝে মাঝে আমরা অন্যের মাঝে নিজেকে খুঁজে পাই। প্রত্যেকটি প্রতিচ্ছবিই নিজেকে আরো স্পষ্ট করে চেনায়। আলো দেখায়। দিন শেষে আমরা সবাই অনেক একা। কিন্তু প্রত্যেককে একে অপরকে দরকার। তাই চলো,বের হই, বাহিরের আলো খুব বেশি না হলেও, অন্ধকারে পথ ঠিকই দেখাবে। ফুল হই, বৃষ্টি হই, মেঘ হয়ে হারিয়ে যাই, বাতাস হয়ে মেঘ পারি দিই। বন্ধু হই।

সামিরা ইয়াসমিন বলেন, ভালবাসা জিনিসটা একটি আপেক্ষিক বিষয় যা মন থেকে আসে। ভালবাসা দিবস পালন করলেই যে ভালবাসা হয় এমনটা নয়। ভালবাসতে কোন দিবস লাগে না। ভালবাসা দিবসে আমরা অঙ্গিকার করতে পারি আমরা ছোট বড় সবাইকে ভালবাসবো। কেউ কারো সাথে কলহ ঝগড়ায় লিপ্ত হব না। 

সাংবাদিক রাজিব হাসান বলেন, দিবসের গুরুত্ব আমার কাছে বরাবরই কম। তবে ভালবাসা মানে আমার কাছে স্নেহভরা শ্রদ্ধায় যত্নপূর্ণ্য আকুতির অকাঙ্খা। যেখানে স্পর্শ থাকে, অপেক্ষা থাকে, হৃদয় ক্ষরনে তৃপ্ত হয় মন।

 

রাজশাহী কলেজ রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি সামসুন্নাহার সুইটি বলেন, যদি মন পবিত্র হয় আর সেই মনে ভালবাসা থাকে তাহলে প্রতিদিনই ভালবাসার দিন।

 

বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ইসরাত জাহান রিয়া বলেন,খুব সুন্দর একটা শব্দ ভালোবাসা। ভালোবাসা শুধু দুটি মানুষের মধ্যে সীমাবদ্ধ না। সব কিছুর মধ্যে থাকে ভালোবাসা যেমন ভোরের সূর্য উঠা থেকে গোধূলি বিকাল এর সৌন্দর্য একটি প্রকৃতির ভালোবাসা। মা,বাবা ,ভাই,বোন উপর ভালোবাসা । বন্ধুর প্রতি বন্ধুর ভালোবাসা ।

 

 

 

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী আসরাফ বাপ্পি বলেন, বর্তমান প্রেক্ষাপটে ভালোবাসার কথা বললেই সবার চোখে একজোড়া কপোত-কপোতীর চিন্তা মনে চলে আসে। আর আমরাও ভালোবাসার দিবস বা ভ্যালেন্টাইন ডে টাকে সেভাবেই ব্যবহারে অভ্যস্ত হয়ে যাচ্ছি। তবে একটা বিষয় আমাদের উপলব্ধিতে আসলেও তা ব্যবহারিক জীবনে স্থান পায়না যে এই ‘ভালোবাসা’ বিষয়টা সার্বজনীন। অর্থাৎ ভালোবাসা শুধু একটা নির্দিশ।

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের  হিসাববিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী হাসিনুর ইসলাম বলেন, ভালোবাসা চিরন্তন চলে আসছে অনন্তকাল থেকে চলবে অনাদিকাল পর্যন্ত। মানুষ যখন বিশ্ব ভালবাসা দিবস সম্পর্কে জানত না, তখন পৃথিবীতে ভালবাসার অভাব ছিলনা। আজ পৃথিবীতে ভালবাসার বড় অভাব। তাই দিবস পালন করে ভালবাসার কথা স্মরণ করিয়ে দিতে হয়! “বিশ্ব ভালবাসা দিবস” বা ”Valentine Day” এর মানে এই নয় যে তা জমা করে ১৪ ই ফেব্রুয়ারী পালন করতে হবে। আমরা মানুষকে ভালোবাসব প্রতিটি ক্ষণে, প্রতিদিন, প্রতিটি কাজে।আমি বলছিনা আমাকে ভালোবাসতেই হবে, তবে আমি চাই কেউ একজনআমার জন্য অপেক্ষা করুক। তাই আসুন ভ্যালেন্টাইন ডে কে বরণ করি একরাশ ভালোবাসা দিয়ে। আর ভালোবাসার জয়গানে মুখরিত করি আমাদের চারিদিক। মানুষকে ভালোবেসে গাই মানবতার জয়গান। তাহলে ১৪ই ফেব্রুয়ারি ভালোবাসার দিন হিসাবে পবিত্র সম্মানে সমুজ্জ্বল থাকবে। সবাইকে ভালোবাসা দিবসের শুভেচ্ছা।

 

 

 

 

এস কে রাফা বলেন, দিবসের তাৎপর্য আমার কাছে জিরো। কিন্তু ভালবাসার তাৎপর্য আমার কাছে অসীম।

 

রায়হানুল ইসলাম বলেন, আমার কাছে মনে হয় দিবস মাফিক ভালবাসা হয় না। ৩৬৫ দিনই ভালবাসার দিনা।কিন্তু আমাকে ঘুমিয়ে কাটাতে হবে ভালবাসা দিবস.!

রাজশাহী শিরোইল সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক সৈয়দ আনোয়ার সাদাৎ বলেন, ভালোবাসা হৃদয়োৎসারিত এক অনুভূতির প্রকাশ,যার প্রকাশ এক হৃদয় থেকে আরেক হৃদয়ে,এক মানুষ থেকে আরেক মানুষে, রক্ত থেকে রক্তের শিকড়ে,পরিবার- পরিজন থেকে সমাজ- রাষ্ট্রের সুকল্যাণে ঘটে থাকে।

 

স/আ

Print