যুক্তরাষ্ট্রকে চাপে রাখতে নিষিদ্ধ ক্ষেপণাস্ত্র তৈরির ঘোষণা রাশিয়ার

সিল্কসিটিনিউজ ডেস্ক:

যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে রাশিয়ার ইন্টারমেডিয়েট-রেঞ্জ নিউক্লিয়ার ফোর্সেস (আইএনএফ) চুক্তি বাতিল হওয়ার পরে নতুন করে নিষিদ্ধ ক্ষেপণাস্ত্র তৈরির ঘোষণা দিয়েছে দেশটির প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। খবর রয়টার্সের।

বৃহস্পতিবার রাশিয়ার সুদূর প্রাচ্যের অর্থনৈতিক ফোরামে বক্তব্য রাখার সময় নতুন নিষিদ্ধ ক্ষেপণাস্ত্র তৈরির ঘোষণা দেন পুতিন; যেগুলো শীতল যুদ্ধের যুগে পারমাণবিক চুক্তির আওতায় নিষিদ্ধ ছিল।

এ সময় প্রেসিডেন্ট পুতিন বলেন, রাশিয়া এমন ক্ষেপণাস্ত্র তৈরি করবে যেগুলো শীতল-যুদ্ধের যুগের পারমাণবিক চুক্তির আওতায় নিষিদ্ধ ছিল যা গত মাসে শেষ হয়েছে; তবে যুক্তরাষ্ট্র প্রথম না করলে মস্কো তাদেরটা মোতায়েন করবে না।

তিনি বলেন, শীতল যুদ্ধের সময় শত্রুদের হাতে ছড়িয়ে পড়া অস্ত্রের প্রতিযোগিতা নিয়ন্ত্রণ করতে যুক্তরাষ্ট্রকে আহ্বান জানিয়েছিল মস্কো; কিন্তু ওয়াশিংটন তাতে সাড়া দেয়নি।

গত বছরের অক্টোবরে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প রাশিয়া চুক্তিটির শর্ত লঙ্ঘন করছে দাবি করে তা প্রত্যাহারের ঘোষণা দেন। ১৯৮৭ সালে ইন্টারমিডিয়েট-রেঞ্জ নিউক্লিয়ার ফোর্সেস (আইএনএফ) নামের দ্বিপাক্ষিক এই মাইলফলক চুক্তিটি স্বাক্ষর করেছিলেন তৎকালীন সোভিয়েত ইউনিয়নের নেতা মিখাইল গর্ভাচেভ ও মার্কিন প্রেসিডেন্ট রোনাল্ড রিগ্যান। এতে ভূমি থেকে নিক্ষেপযোগ্য স্বল্প ও মাঝারি পাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র ইউরোপ থেকে সরিয়ে নিতে হয়েছিল দুই পক্ষকেই। ৩০ বছরের বেশি সময় ধরে যুক্তরাষ্ট্র ও রাশিয়ার মধ্যে চুক্তিটি ছিল।

এদিকে গত মাসে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ক্রুজ মিসাইলের পরীক্ষা চালায়। এটি ৫০০ কিলোমিটার দূরত্বে আঘাতহানতে সক্ষম। আইএনএফ চুক্তি অনুযায়ী এটি নিষিদ্ধ।

চুক্তিটিতে ৩১০-৩৪০০ মাইল পরিসীমার স্থলভিত্তিক ক্ষেপণাস্ত্র তৈরি নিষিদ্ধ ছিল। ফলে উভয়ের হাতে এমন অস্ত্রের স্বল্পতা রয়েছে।

রাশিয়ার শহর ভ্লাদিভসটকে অনুষ্ঠিত ফোরামে পুতিন বলেন, অবশ্যই আমরা এমন ধরনের ক্ষেপণাস্ত্র তৈরি করব। যুক্তরাষ্ট্র আগে না করলে মস্কো এমন নতুন ক্ষেপণাস্ত্র মোতায়েন করবে না।

পুতিন বলেন, পেন্টাগনের ইচ্ছা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ইচ্ছা রয়েছে জাপান ও দ. কোরিয়ায় এটা মোতায়েনের এমন বক্তব্যে আমরা খুশি হতে পারি না; এটি আমাদের দুঃখ দেয় এবং এর কারণে আমরা উদ্বিগ্ন।

এ সময় রাশিয়ার কাছ থেকে হাইফারসনিক পারমাণবিক অস্ত্র কিনতে ট্রাম্পের ফোন কলে প্রস্তাব দিয়েছেন বলেও উল্লেখ করেন পুতিন।