বিতর্ক সরিয়ে কেরলে মেট্রোর উদ্বোধনে প্রধানমন্ত্রীর পাশে ই শ্রীধরণ

June 17, 2017 at 11:19 pm

সিল্কসিটিনিউজ ডেস্ক: তাঁকে সকলে ‘মেট্রোম্যান’ হিসাবেই চেনেন। সেই ই শ্রীধরণকে পাশে বসিয়ে কোচিতে মেট্রো পরিষেবার উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

শনিবার সকাল সাড়ে ১০টা নাগাদ কোচির পালারিভাট্টম স্টেশনে উদ্বোধনের পর মেট্রোয় সওয়ার হন প্রধানমন্ত্রী। সঙ্গে ছিলেন কেরলের রাজ্যপাল পি সদাশিবম, মুখ্যমন্ত্রী পিনারাই বিজয়ন, কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বেঙ্কাইয়া নায়ডু। রাজ্য সরকার ও এক জার্মান সংস্থার যৌথ উদ্যোগে সম্পূর্ণ পিপিপি মডেলে এই প্রকল্পটি সম্পূর্ণ করা হয়েছে।

আগামী সোমবার থেকে জনসাধারণের জন্য এই পরিষেবা খুলে দেওয়া হবে। মেট্রো রেলের তরফে জানানো হয়েছে, প্রতি দিন সকাল ছ’টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত চালু থাকবে এই পরিষেবা। আলুভা থেকে পলারিভাট্টম পর্যন্ত মোট ২৫ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যের এই মেট্রো যাত্রায় রয়েছে ২২টি স্টেশন। আপাতত প্রতি ৮ মিনিট ২০ সেকেন্ড অন্তর চলবে ট্রেন। রোজ মোট ২১৯ বার ট্রেন যাতায়াত করবে দুই স্টেশনের মধ্যে। প্রতি ক্ষেত্রে সর্বাধিক ৯৭৫ জন যাত্রী সওয়ার হতে পারবেন বলে মেট্রোর তরফে জানানো হয়েছে। ২০১৬-য় এই মেট্রো নির্মাণ শেষ হওয়ার কথা থাকলেও নির্মাণ শেষ হয় ২০১৭-র মে মাসে।

এ দিনের মেট্রো উদ্বোধনে প্রধানমন্ত্রীর পাশে ‘মেট্রোম্যান’ শ্রীধরণের উপস্থিতি কৌতূহল তৈরি করে। কারণ, উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের মঞ্চে প্রধানমন্ত্রীর পাশে কারা বসবেন, তা নিয়ে ১৭ জনের একটি তালিকা প্রধানমন্ত্রীর দফতরে পাঠিয়েছিল কেরল সরকার। সেই তালিকায় থেকে মাত্র ৬ জনকে বেছে নেয় প্রধানমন্ত্রীর দফতর। সেই তালিকায় নাম ছিল না শ্রীধরণের। এতে বেজায় ক্ষুব্ধ হয় কেরল সরকার। তাদের বক্তব্য ছিল, ‌যিনি গোটা প্রকল্পে নেতৃত্ব দিলেন তিনিই থাকবেন না মঞ্চে?

প্রধানমন্ত্রীর দফতরকে সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনার জন্য পাঠায় কেরল। অবশেষে বৃহস্পতিবার শ্রীধরণকে আমন্ত্রণ পাঠায় প্রধানমন্ত্রীর দফতর। তাতে বিতর্ক থামলেও জল্পনা থামেনি।

Print