জাতীয়করণকৃত কলেজ শিক্ষকদের জন্য স্বতন্ত্র বিধিমালাসহ চার দফা দাবি

October 22, 2017 at 6:42 pm

নিজস্ব প্রতিবেদক:

জাতীয় শিক্ষানীতি-২০১০ এর আলোকে জাতীয়করণকৃত কলেজের শিক্ষকবৃন্দকে নন-ক্যাডার করে তাদের চাকরি প্রধানমন্ত্রীর অনুশাসন অনুযায়ী স্ব স্ব কলেজে সুনির্দিষ্ট করে আগামী ১৬ নভেম্বরের মধ্যে স্বতন্ত্র বিধিমালা জারিসহ চার দফা জানিয়েছে বিসিএস সাধারণ শিক্ষা সমিতি। রোববার দুপুরে রাজশাহী কলেজ শিক্ষক মিলনায়তনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব দাবির কথা তুলে ধরেন শিক্ষকরা। কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে বিসিএস সাধারণ শিক্ষা সমিতি রাজশাহীর নেতারা এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে।

অন্য দাবিগুলো হলো, জাতীয়করণের আদেশ জারি পূর্বেই স্বতন্ত্র বিধিমালা প্রণয়ন, সরকারি কর্ম কমিশন কর্তৃক গৃহীত প্রতিযোগিতামূলক বিসিএস পরীক্ষার মাধ্যমে নিয়োগের জন্য সুপারিশ ব্যতিত অন্য কোন পথে কাউকে ক্যাডারভুক্ত না করা এবং সম্প্রতি সরকারিকরণ করা ১২টি মডেল কলেজের শিক্ষকদেরও অনুরুপ বিধিমালার আওতায় আনা।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে সমিতির রাজশাহী জেলা ইউনিটের সাধারণ সম্পাদক আনিসুজ্জামান মানিক বলেন, এমনিতেই নানামুখী সংকটে নিমজ্জিত শিক্ষা ক্যাডার। তার সাথে যুক্ত হতে চলেছে জাতীয়করণের তালিকায় থাকা ৩২৫টির মতো বেসরকারি কলেজের শিক্ষকদের শিক্ষা ক্যাডারে আত্তীকরণের আশংকা। কেননা অতীতে ক্যাডার সার্ভিস পরিপন্থী আত্তীকরণ বিধিমালা-২০০০ এর মাধ্যমে জাতীয়করণ করা কলেজসমূহের শিক্ষকদের বিসিএস সাধারণ শিক্ষা ক্যাডারে আত্তীকরণ করা হয়েছে এবং হচ্ছে।

এ বিধিমালাটি সিভিল সার্ভিস ক্যাডার কম্পোজিশন রুলস ১৯৮০ ও সিভিল সার্ভিস রিক্রুটমেন্ট রুলস ১৯৮১ পরিপন্থী। আত্তীকরণ বিধিমালা ২০০০ বর্তমান থাকলে সকল কলেজের ২০ হাজারের অধিক সংখ্যক শিক্ষক শিক্ষা ক্যাডারে আত্তীকৃত হবে। বিসিএস সাধারণ শিক্ষা সমিতি শিক্ষা ক্যাডারে বেসরকারি কলেজ জাতীয়করণসহ অন্য যে কোনো প্রক্রিয়ায় শিক্ষক আত্তীকরণ সমর্থণ করে না।

সংবাদ সম্মেলনে আরো বলা হয়, আগামী ১৬ নভেম্বরের মধ্যে জাতীয়করণের জন্য ঘোষিত বেসরকারি কলেজের শিক্ষকদের প্রধানমন্ত্রীর অনুশাসন, নন-ক্যাডার ও জাতীয় শিক্ষানীতি ২০১০ এ বর্ণিত নির্দেশনা অন্তর্ভুক্ত করে বিধিমালা জারি না করা হলে ১৭ নভেম্বর ঢাকায় মহাসমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে। দাবিগুলো আদায়ে সেখান থেকে পরবর্তী কঠোর কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে।
সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সমিতির সভাপতি ও রাজশাহী কলেজ অধ্যক্ষ অধ্যাপক হবিবুর রহমান, কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম মহাসচিব হাবিবুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক কামরুল ইসলাম, কার্যনির্বাহী সদস্য ড. খন্দকার মুজাহিদুল হক প্রমুখ।

স/আর

Print