স্বামী সন্তান খুন, ছেলের বিরুদ্ধে মায়ের হত্যা মামলা

নিজস্ব প্রতিবেদক:

নওগাঁয় সদর উপজেলার শিমুলিয়া গ্রামে ছেলে হাতে বাবা আর বড় ভাইয়ের হাতে ছোট ভাই খুন হওয়ার ঘটনায় মামল করা হয়েছে। পরের দিনে নিহত তাজিম উদ্দিন সরদারের স্ত্রী জামিলা বেগম বাদি হয়ে এই মামলা একটি ছেলে বায়তুলের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা দায়ের করেন।

 

আজ রোববার সকাল ১০টার দিকে নওগাঁ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) তৌফিকুল ইসলাম সিল্কসিটিনিউকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, ছেলে বাবাকে আর ভাই ভাইকে হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন নিহত তাজিম উদ্দিন সরদারের স্ত্রী জামিলা বেগম বাদি হয়ে এই মামলা করেন। এই মামলায় তার বড় ছেলে বাইতুল সরদারের নামে এই হত্যা মামলা করেন। বর্তমানে বায়তুল পলাতক রয়েছে। তাকে গ্রেফতারের চেষ্টা করা হচ্ছে।

 

উল্লেখ্য, নওগাঁয় সদর উপজেলার শিমুলিয়া গ্রামে বৃহষ্পতিবার রাত ১১টায় দিকে ছেলের বটির আঘাতে পিতা তাজিম উদ্দিন সরদারকে (৭০) ছেলে আশরাফুল ইসলাম (২২) ও আশরাফুল ভাই বায়তুল হত্যা করেছে। গ্রামের কৃষক তাজিম উদ্দিন, তার বড় ছেলে বায়তুল এবং ছোট ছেলে আশরাফুল ইসলাম সবাই কমবেশী মানষিকভাবে অসুস্থ্য। মাঝে মাঝেই ঐ পরিবারের সদস্যদের মধ্যে পাগলামী দেখা যায়। এরই ধারাবাহিকতায় ঘটনার সময় ছোট ছেলে আশরাফুল ইসলামের পাগলামী বেড়ে যায়।

 

প্রচন্ডভাবে উত্তেজিত হয়ে পড়ে। তাকে শান্ত করতে একটি ঘরে আটকে রেখে বাইরে থেকে বন্ধ করে দেয়া হয়। কিন্তু ঐ ঘরে তাদের পিতা তাজিম উদ্দিন শুইয়ে ছিল তার তারা জানতোনা।

 

উত্তেজনায় এটা সেটা ভাঙচুরের এক পর্যায়ে বটি দিয়ে পিতার পেট, দুই হাত ও মাথায় এলোপাতাড়ী আঘাত করে। এতে ভুড়ি বেরিয়ে যায়। ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। চিৎকার শুনে ঘর খুলে পিত্রা ঐ অবস্থা দেখে বড় ছেলে বয়তুল শীল দিয়ে ছোট ভাই আশরাফুলের মাথায় সজোরে আঘাত করে। তাকে প্রথমে নওগাঁ হাসপাতালে নিয়ে যান। পরবর্তীতে তার অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় রামেক হাসপাতালে নেয়ার পথে মান্দা ফেরীঘাট পৌঁছলে তার মৃত্যু হয়।

 

 

স/আ

Print