বেঁচে গেলেন উমর আকমল

সিল্কসিটিনিউজ ডেস্ক:

যে কাণ্ড ঘটিয়েছিলেন, নিষেধাজ্ঞায় পড়ার সম্ভাবনা ছিল। কপাল ভালো, বেঁচে গেলেন উমর আকমল। পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি) জানিয়েছে, পুরো ঘটনাটাই ছিল ভুল বোঝাবুঝি। তাই আপাতত তিরস্কার করেই ছেড়ে দেয়া হয়েছে পাকিস্তানের এই সিনিয়র ব্যাটসম্যানকে।

বাংলাদেশের বিপক্ষে হোম সিরিজ আর পাকিস্তান সুপার লিগকে (পিএসএল) সামনে রেখে নিজেকে প্রস্তুত করছিলেন উমর আকমল। ঘরোয়া ক্রিকেটে দারুণ পারফর্ম করার পর দলে ফেরানোর চিন্তা থেকেই আকমলকে ফিটনেস টেস্টে ডেকেছিল পিসিবি।

কিন্তু সেই টেস্টে উৎরাতে পারেননি উমর আকমল। ট্রেইনার জানান, তিনি অকৃতকার্য। তাতেই খেপে যান আকমল। ট্রেইনারের সামনে গিয়ে জার্সি খুলে শরীর বের করে রাগান্বিত কণ্ঠে জিজ্ঞেস করেন-কোথায় চর্বি আমার, দেখান!

এই ঘটনার পর হেড কোচ কাম প্রধান নির্বাচক মিসবাহ-উল-হকের কাছে অভিযোগ গেছে। বোর্ড পুরো ঘটনা তদন্ত করবে বলেই জানায়। সেই কারণে দুই পক্ষকে ডাকাও হয়। তবে তদন্তের পর পিসিবি বলছে, পুরো ঘটনাই ছিল ভুল বোঝাবুঝি।

পিসিবি এক বিবৃতিতে বলেছে, ‘উমর আকমল তার কাণ্ডের জন্য ক্ষমা চেয়েছেন। পিসিবিও তাকে তিরস্কার জানিয়েছে। সিনিয়র ক্রিকেটার হিসেবে তার দায়িত্বজ্ঞানের কথাও মনে করিয়ে দিয়েছে। এই ঘটনার এখানেই শেষ। পিসিবি কিংবা উমর আকমল এটা নিয়ে আর কোনো মন্তব্য করবে না।’

পাকিস্তানের অন্যতম প্রতিভাবান ব্যাটসম্যান মনে করা হয় উমর আকমলকে। কিন্তু ২৬ বছর বয়সী উইকেটরক্ষক এই ব্যাটসম্যান দীর্ঘদিন ধরেই জাতীয় দলের বাইরে রয়েছেন। সর্বশেষ টেস্ট খেলেছেন ২০১১ সালের সেপ্টেম্বরে। আর সাদা বলের ক্রিকেটে শেষবার খেলেছেন গত বছরের অক্টোবরে।

ট্রেইনারের সঙ্গে আকমলের ঝামেলার ঘটনায় পিসিবির সিনিয়র কর্মকর্তা ও সাবেক টেস্ট ব্যাটসম্যান হারুন রশিদকে প্রধান করে তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। মনে করা হচ্ছিল, নিষেধাজ্ঞায় পড়তে পারেন আকমল, নিদেনপক্ষে জরিমানা হবে। এর কিছুই হলো না। এবারের মতো বেঁচে গেলেন তিনি।

Print