পহেলা ফাল্গুন ও ভালোবাসা দিবসে রাজশাহীর তরুণদের ব্যাতিক্রমী আয়োজন

নিজস্ব প্রতিবেদক:
লাল-হলুদে চোখ জুড়ানোর মাস ফাল্গুন। আজ শুক্রবার (১৪ ফেব্রুয়ারি) ঋতুরাজ বসন্তের প্রথম দিন ছিল। প্রকৃতির রূপ বদলের পাশপাশি মানুষের মনেও ঘটে লক্ষনীয় পরিবর্তন। বাঙালির চিরকালের অমর প্রেমের ঋতুটি তার পরিপূর্ণ যৌবন নিয়ে আমাদের সামনে নিজেকে উন্মোচন করল।

কবি বলেছেন, ফুল ফোটার জন্য বসন্ত অপেক্ষা করে না। নিজেকে উন্মোচনের জন্য ফুলই বসন্তের জন্য অপেক্ষা করে। আর তাইতো ঋতুরাজ বসন্তকে বরণ করে নেয়া হয়েছে বিভিন্ন বর্ণাঢ্য আয়োজনে। এরই সাথে উদযাপিত হয়েছে বিশ্ব ভালোবাসা দিবসও।

আর এতে পিছিয়ে নেই তরুণরাও। রাজশাহীর একঝাঁক তরুণ ফাল্গুনকে বরণ ও বিশ্ব ভালোবাসা দিবসকে উদযাপন করে ব্যাতিক্রমী আয়োজনের মাধ্যমে। ভালোবাসা দিবসে রক্ত দিয়ে মানুষের প্রতি ভালোবাসা প্রকাশ প্রকাশ করেছে রাজশাহীর তরুণেরা।

আজ শুক্রবার (১৪ ফেব্রুয়ারি) রাজশাহী নগরীর বড়কুঠি পদ্মাপাড়ে আয়োজিত রক্তদান কর্মসূচিতে তারা রক্ত দেন তারা। রাজশাহীর তরুণ সংগঠন ইয়ুথ এ্যাকশন ফর সোস্যাল চেঞ্জ-ইয়্যাস, সুর্বণ রক্তদান সংস্থা, বিডি ক্লিন, ব্ল্যাড ব্যাংক রাজশাহী, প্রভাত, হেল্পিং জোন ফাউন্ডেশন সহ রাজশাহীর ১৮টি তরুণ সংগঠনের সমন্বয়ে গঠিত সম্মিলিত স্বেচ্ছাসেবী ফোরাম রাজশাহী এই ব্যতিক্রমী আয়োজন করে।

‘স্বেচ্ছায় করি রক্তদান, হাসবে রোগী-বাঁচবে প্রাণ’ স্লোগানে আয়োজিত এই কর্মসূচিতে সহযোগিতা করে নিউ সেফ ব্লাড ব্যাংক, মাইমেডস ও কলিংস। কর্মসূচিতে রক্তদানের পাশাপাশি বিনামূল্যে রক্তের গ্রুপ ও ব্লাড প্রেশার নির্ণয় করা হয়।

কর্মসূচিতে সম্মিলিত স্বেচ্ছাসেবী ফোরামের আহ্বায়ক সুমন আজিম ও স্বেচ্ছাসেবী আমিনুল ইসলাম, কৌশিক, শরিফুল ইসলাম, সুবাস কুমার শুভ, আতিকুর রহমান আতিক, আক্তারুল, নাজমুল ইসলাম, শামীউল আলীম শাওন, শিমুল, শফিকুল ইসলাম, আঁখি খাতুন ও মিমসহ প্রায় শতাধিক সেচ্ছাসেবী উপস্থিত ছিলেন।

কর্মসূচিতে মানুষকে রক্তদানে উদ্বুদ্ধ করে তোলার পাশাপাশি তাদের রক্তদানের উপকারীতা সম্পকে বিস্তারিত তথ্য তুলে ধরা হয়।

স/অ

Print