পুঠিয়ায় স্কুলভর্তি শিক্ষার্থীর সামনে দুই শিক্ষিকার মারামারি

পুঠিয়া প্রতিনিধিঃ

রাজশাহীর পুঠিয়ায় পারিবারিক কলহের জের ধরে শিক্ষার্থীদের সামনে দুই শিক্ষিকা মারামারিতে লিপ্ত হয়েছিলেন। গত (২৮ জানুয়ারী) মঙ্গলবার দুপুরে উপজেলার পৌর এলাকায় অবস্থিত গন্ডোগোহালী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এ মারামারির ঘটনা ঘটে।

এতে দু’জন শিক্ষিকাই আহত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছেন। তবে গুরুতর আহত হয়ে তাৎক্ষণিকভাবে সহকারী শিক্ষিকা নুরজাহান আক্তার মিনুকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তিনি ৫ মাসের অন্তস্বত্তা। তবে একরাত থেকেই তাকে হাসপাতাল থেকে রিলিজ দেয়া হয়েছে। এ বিষয়ে দু’পক্ষই থানায় পাল্টাপাল্টি অভিযোগ দায়ের করেছেন।

স্কুলের প্রধান শিক্ষিকা রাখীদেবী ভাদুড়ী জানান, সহকারী শিক্ষিকা সামসুনাহার রিনা ও নুরজাহান আক্তার মিনু আপন দুই ভাইয়ের স্ত্রী। তারা সম্পর্কে দুই ‘জা ‘ । দীর্ঘদিন থেকেই তাদের মধ্যে পারিবারিক দ্বন্দ্ব নিয়ে বিরোধ চলছিলো। এর সুত্র ধরে দু’শিক্ষিকার মধ্যে বিবাদ লেগেই থাকতো। গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে টিফিন চলাকালীন সময় ওই দু’জনের মধ্যে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে মারামারি শুরু হয়। এতে সহকারী শিক্ষিকা নুরজাহান আক্তার মিনু মাটিতে লুটিয়ে পড়ে আহত হন। পরে তাকে উদ্ধার করে পুঠিয়া হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

বুধবার দুপুরে হাসপাতালে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, নুরজাহান আক্তার মিনু ও শামসুননাহার রিনা দু’জনই হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন। তারা দু’জনই মারামারি ঘটনায় আহত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন। তবে দুপুরের আগেই তারা দু’জন রিলিজ নিয়ে হাসপাতাল ত্যাগ করেছেন। তাদের মধ্যে একজন নুরজাহান আক্তার মিনু ৫ মাসের অন্তস্বত্তা ছিলেন।

এ বিষয়ে স্কুলের দুই সহকারী শিক্ষিকার সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তাদের সাথে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি তবে অন্তস্বতা নারী শিক্ষিকার স্বামী রবিউল ইসলাম সাংবাদিকদের কাছে দাবি করেন, ৬ মাসের অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীকে সকলের সামনে ব্যাপক মারধর করা হয়েছে। এতে তার রক্তক্ষণ হয়েছে। চিকিৎসকরা তার গর্ভের বাচ্চা নিয়েও শঙ্কা প্রকাশ করেছে। তিনি এ ঘটনায় প্রকৃত দোষীদের আইনি ভাবে বিচার দাবি করেন।

উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মীর মোহাম্মদ মামুন অর রশিদ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, পারিবারিক বিষয় নিয়ে দু’শিক্ষিার মধ্যে হাতাহাতির বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। উর্ধতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনা করে এ ব্যপারে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এ ব্যাপারে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রেজাউল ইসলাম বলেন, তারা দুই পক্ষই থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। বিষয়টি তদন্ত করে আইনী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

স/অ

Print