তানোরে নেই ইউএনও,ওসি,এসিল্যান্ড

হয়রাণি ও বিড়ম্বনায় সাধারণ মানুষ

টিপু সুলতান:

রাজশাহীর তানোরে উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তা (ইউএনও), থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি), উপজেলা সরকারী কমিশনার ভূমি (এসিল্যান্ড) নেই। উপজেলার প্রধান তিনটি পদের চেয়ার আছে কিন্তু ব্যক্তি শুন্য হয়ে আছে। ভারপ্রাপ্ত, দায়িত্বপ্রাপ্ত ও অতিরিক্ত দায়িত্বের ভারে প্রশাসনের গুরুত্বপূর্ণ দপ্তর যেন অচল হয়ে পড়েছে। তেমনি তানোর বাসীদের হয়রানির ও বিড়ম্বনার কবলে পড়তে হচ্ছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, চলতি মাসের গত ৫ জানুয়ারি তানোর উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাসরিন বানু বদলি হয়। ফলে গুরুত্বপূর্ণ এই পদটি শূন্য রয়েছে।

এমতাবস্থায় তানোরে অতিরিক্ত দায়িত্বে দেওয়া হয় মোহনপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার সানওয়ার হোসেনকে। কিন্তু দায়িত্ব পাবার পর থেকে তাকে তানোর অফিস করতে দেখা যায় নি। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, তানোরে তাঁকে অতিরিক্ত দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। কিন্তু বিভিন্ন কাজে ব্যস্ত থাকায় তানোর অফিসে বসা হয়নি। এতে করে বন্ধ হয়ে পড়েছে উপজেলা প্রশাসনের গুরুত্বপূর্ণ সব ফাইলপত্র।

অপরদিকে, তানোর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) খাইরুল ইসলাম প্রায় দুই মাস আগে বদলি হন। সেই থেকে ওসি’র পদটি শূন্য রয়েছে। তবে এই পদে দায়িত্বে রয়েছেন তদন্ত (ওসি) রাকিবুল হাসান।

এছাড়াও উপজেলা ভূমি অফিসে সহকারী কমিশনার (ভূমি) এ্যাসিল্যান্ড আব্দুল্লাহ-আল-মামুন গত বছরের ১৩ জুন বদলি হন। সেই থেকে পদটি শূন্য রয়েছে। সে সময় থেকে উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাসরিন বানু অতিরিক্ত দায়িত্বে ছিলেন। ৫ জানুয়ারি নির্বাহী অফিসার নাসরিন বানু বদলি হয়ে যাবার পর থেকে কেউ আর দায়িত্ব নেননি। ৫ জানুয়ারী থেকে ভূমি অফিসে এ্যাসিল্যান্ড পদও শূন্য অবস্থায় রয়েছে। বর্তমানে ভূমি অফিস হয ব র ল অবস্থায় রয়েছে। কোন কাজগপত্রের কাজ সর্ম্পন্য ভাবে হচ্ছে না। সব ফাইল বন্দি হয়ে রয়েছে। ফলে ভূমি সংক্রান্ত কাজকর্মে মারাত্মক হয়রাণি ও বিড়ম্বনায় পড়েছেন সাধারণ মানুষ।

তানোর পৌর এলাকার গোল্লাপাড়া গ্রামের দেলোয়ার হোসেন, আব্দুর সালাম মন্ডল, গুবিরপাড়া গ্রামের মমিনুল ইসলাম মুকুল, কাউসার আলী বলেন, ভূমি অফিসে দুই সপ্তাহ ধরে নামজারীসহ বিসিআর কাটার ঘুরছি কোন কাজ হচ্ছে না। ভূমি অফিসে আসলে বলে এসিল্যান্ড নেই, উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তা নেই কে সই করবে। এসিল্যান্ড ও ইউএনও না থাকার কোন কাজ হবে না। একটি সই এর জন্য জমি রেজিষ্ট্রি হচ্ছে না।

তানোর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান লুৎফর হায়দার রশিদ ময়না বলেন, উপজেলার তিনটি দপ্তরের পদ শুন্য রয়েছে। গুরুত্বপূর্ণ এসব অফিসে ইউএনও ও এ্যাসিল্যান্ড না থাকায় অফিসিয়াল কাজকর্ম করতে আসা তানোরবাসী হয়রানির কবলে পড়ছে। বিশেষ করে ভূমি অফিসের নাজুক অবস্থা থেকে পরিত্রাণ পেতে তিনি সংশ্লিষ্ট উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের জুুরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

Print