আ.লীগের পদ থেকে ছিটকে পড়ায় ফেসবুকে আসাদ সমর্থকদের প্রতিবাদের ঝড়

নিজস্ব প্রতিবেদক:

রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের পদ থেকে ছিটকে পড়ায় ফেসবুকে তাঁর কর্মী-সমর্থকদের মাঝে ব্যাপক ক্ষোভ ছড়িয়ে পড়েছে। এ নিয়ে কেউ কেউ রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের আজকের দিনটিকে কালো অধ্যায় বলেও আখ্যায়িত করেছেন। আজকেই বিলুপ্ত হওয়া রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের কমিটিতে সাধারণ সম্পাদক পদে ছিলেন আসাদ। কিন্তু নতুন কমিটিতে তিনি সভাপতি পদ চেয়েছিলেন কেন্দ্রীয় নেতাদের কাছে। কিন্তু শেষ পর্যন্ত পদ থেকেই ছিটকে পড়লেন রাজশাহীর তৃণমূলের অধিকাংশ নেতাকর্মীদের কাছে অনেকটা আস্থার প্রতীক আসাদুজ্জামান আসাদ। আর এ নিয়েই মূলত তৃণমূলের নেতাকর্মীরা ফেসবুকে ক্ষোভ ঝাড়ছেন।

অন্যদিকে আসাদকে পদ থেকে ছেটে ফেলার সিদ্ধান্ত ঘোষণা দেওয়ার সময় তার কর্মী-সমর্থকরা ক্ষুব্ধ হয়ে সম্মেলনস্থলে হট্টগোল করতে পারেন-এমন আশঙ্কায় দ্বিতীয় অধিবেশন করা হয় রাজশাহী শিল্পকলা একাডেমীতে। আগের দিন বগুড়া ও চট্টগ্রামেও হট্টগোল এবং ভাংচুরের ঘটনা ঘটে দলের নেতৃত্ব মনোনয়ন নিয়ে। সেই অভিজ্ঞতা থেকেই আজকে রাজশাহীর সম্মেলনের দ্বিতীয় অধিবেশনটি নিয়ে যাওয়া হয় ঘরোয়া পরিবেশে। ফলে কোনো ধরনের কোনো অপ্রীতিকর ঘটনার জন্ম না দিলেও আসাদ সমর্থকরা ফেসবুকে প্রতিবাদের ঝড় তুলেছেন।

নেতৃত্ব হারিয়ে আসাদ ফেসবুকে আজকের সম্মেলনে তার দেওয়া বক্তব্যের ছবিসহ একটি পোস্ট করেন। তাতে তিনি লিখেন ‘রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলনে…….
সাবেক হলাম, অভিনন্দন নতুন নেতৃত্ব।’

তাঁর এই পোস্টের নিচে মুক্ত নামের এক সমর্থক লিখেন, ‘এসব কথা ভাল লাগেনা লিডার! আপনাকে টিকিট দেবার পরে করতে পারতো। আমরা তিন চার বছর কি কচু খাবো? ধিক্কার.. ।’

সুমন মণ্ডল নামের আরেকজন লিখেন, ‘রাজশাহী জেলার গ্রাম ইউনিয়ন পৌরসভা উপজেলা শহরের প্রাণপ্রিয় নেতা আসাদুজ্জামান আসাদ ভাই, রাজশাহী জেলার অধিকাংশ নেতাকর্মীরা আসাদ ভাইকে জানের চেয়েও বেশি ভালবাসে, আসাদ ভাইয়ের পাসে রাজশাহী জেলার সর্বস্তরের আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা সব সময় পাশে আছে ছিল থাকবে।’

বিপ্লব হোসেন লিখেন, ‘রাজশাহী জেলা আওয়ামীলিগে কালো অধ্যায়ের সুচনা হলো।’

জাবেদ নামের আরকেজন লিখেন, ‘খুবই দুঃখজনক। আপনার মত নেতা সভাপতির উপরে পদ থাকলে সেটাই পাওয়ার যোগ্য আপনি। আপনাকে আমার হাজার ও সালাম। আপনার অদর্শ, আপনার সততা বহুমান রাজশাহী বাসীর কাছে।’

সুমন হোসেন সচিব লিখেন, ‘নকলের ভিড়ে বঙ্গবন্ধুর আসল সৈনিকরা পিছিয়ে যাচ্ছে।’

এছাড়াও প্রায় এক ঘন্টার মধ্যে আসাদের ওই পোস্টে ১৬৯টি কমেন্ট পড়ে। যার অধিকাশংই ছিলো আসাদকে বাদ দেওয়ায় দলের প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করা।

স/আর

Print