বাঘায় গৃহবধূ হত্যা মামলা: এবার সিআইডিকে তদন্তের নির্দেশ

নিজস্ব প্রতিবেদক:

রাজশাহীর বাঘার চকনারায়নপুর গ্রামের গৃহবধূ শর্মিষ্ঠা রানি সাহা (২৪) হত্যা মামলায় পুলিশ চ‚ড়ান্ত প্রতিবেদন দাখিলের পর এবার সিআইডিকে তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন আদালতে। ওই গৃহবধূর লাশের ময়নাতদন্ত প্রতিবেদনে একাধিক আঘাতের চিহ্ন থাকার কথা উল্লেখ থাকলেও পুলিশ এবং পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) থেকেও চূড়ান্ত প্রতিবেদন দাখিল করা হয়েছে।

পুলিশের দুই বিভাগের এই প্রতিবেদস প্রত্যাখান করেছেন নিহতের পিতা সুনীল কুমার সাহা। এ নিয়ে তিনি গত ১৯ নভেম্বর আদালতে আপত্তি জানালে আদালত শর্মিষ্ঠা রানির হত্যকাণ্ডের পুনঃতদন্ত করার জন্য সিআইডিকে নির্দেশ দেন।

নিহতের বাবা সুনীল কুমার সাহা জানান, তাঁর মেয়ে শর্মিষ্ঠা রানি সাহার সঙ্গে বাঘার চকনারায়নপুর গ্রামের অজিত সাহার ছেলে সুকান্ত সাহার সঙ্গে বিয়ে হওয়ার পর থেকেই নানাভাবে অত্যাচার করা হতো। এরই ধারাবাহিকতায় গত গত বছরের ২৮ নভেম্বর শর্মিষ্ঠাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে স্বামী সুকান্ত সাহা, শ্বাশুড়ী মলি রানি সাহা ও দেবর সৌমেন সাহা। এরপর তারা লাশ শয়নকক্ষের ফ্যানের সঙ্গে ঝুলিয়ে রাখে এবং প্রচার করে শর্মিষ্ঠা আত্মহত্যা করেছে। এই ঘটনার পর রাতেই বাঘা থানায় লিখিত অভিযোগ দেই। কিন্তু থানা পুলিশ তা প্রথমে নিতে চাইনি।

পরবর্তীতে আদালতে মামলা করা হয়। ওই মামলা বাঘা থানা গ্রহণ করলেও পুলিশের ভূমিকা ছিল রহস্যজনক। এমনকি আসামিকে আটক না করেই আদালতে চূড়ান্ত প্রতিবেদন দাখিল করা হয়। অথচ ময়নাতদন্ত রিপোর্টে ভিকটিমের শরীরে একাধিক জখমের চিহ্ন পাওয়া গেছে। এই অবস্থায় মামলাটি উচ্চতর তদন্তের জন্য বাদী সুনীল কুমার সাহা আদালতে আবেদন জানান।

সেই আবেদনের প্ররিপ্রেক্ষিতে পিবিআইকে তদন্ত দেওয়া হয়। তারাও সম্প্রতি মামলাটি তদন্ত করে চূড়ান্ত প্রতিবেদন দাখিল করেন আদালতে। এরপর বাদী পুনরায় মামলাটি সিআইডিকে তদন্তের জন্য আবেদন জানালে আদালত তা মঞ্জুর করেন। রাজশাহীর নারী ও শিশু নির্যাতন আদালত এ নির্দেশনা দেন।

স/আর

Print