পুঠিয়ায় শ্রেনীকক্ষে স্কুলছাত্রীকে ধর্ষনের চেষ্টা, অভিযুক্ত শিক্ষকের শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন(ভিডিওসহ)

পুঠিয়া প্রতিনিধিঃ

রাজশাহীর পুঠিয়ায় পঞ্চম শ্রেণির ছাত্রীকে ধর্ষন চেষ্টার অভিযোগে সহকারী শিক্ষক মাজেদুর রহমানকে গণধোলাই দিয়ে পুলিশে দিয়েছে এলাকাবাসী। পরে ওই ছাত্রীর বাবা বাদী হয়ে তার বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করেছেন। এদিকে শিক্ষক মাজেদুর রহমানের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন করেছে বিক্ষুদ্ধ এলাকাবাসী।

গতকাল বুধবার বিকেলে (১৬ অক্টোবর) উপজেলার বানেশ্বর ইউনিয়নের শিবপুর হাট বাজারে ঢাকা-রাজশাহী মহাসড়কে মানববন্ধনটি অনুষ্ঠিত হয় এবং গত ১৫ অক্টোবর রাতে অভিযুক্ত শিক্ষক মাজেদুর রহমানকে গণধোলাই দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করা হয়। এর আগে গত ৬ অক্টোবর স্কুলছুটির পর শ্রেনী কক্ষে ডেকে নিয়ে তাকে ধর্ষনের চেষ্টা করা হয়।

মাজেদুর রহমান (৩০) রঘুরামপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক ও রঘুরামপুর পশ্চিমপাড়া গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা রহমতউল্লাহর ছেলে। সে ওই স্কুলের গনিত বিষয়ে পরাতেন।

ভুক্তভোগী ছাত্রীর বরাত দিয়ে তার বাবা জানান, স্কুল ছুটির পর আলাদাভাবে অংক দেখিয়ে দেয়ার কথা বলে তার মেয়েকে স্কুলের একটি শ্রেণি কক্ষে একা ডেকে নিয়ে জানালা দরজা বন্ধ করে তাকে ধর্ষনের চেষ্টা করেন। এসময় ওই ছাত্রীকে পরীক্ষার খাতায় বেশি নাম্বার দেয়ার লোভ দেখায় এবং ঘটনাটি কাউকে না বলার জন্য বিভিন্ন ভয়ভীতি দেখান অভিযুক্ত শিক্ষক মাজেদুর রহমান। ঘটনার পর ভয়ে তার মেয়ে কাউকে কিছু না জানালেও এ ঘটনার পর থেকে সে স্কুলে যাওয়া বন্ধ করে দেয়। স্কুলে না যাওয়ার কারন জানতে স্কুলছাত্রীকে পরিবারের পক্ষ থেকে চাপ দিলে সে ঘটনাটি পরিবারের কাছে খুলে বলেন।

এলাকাবাসী জানান,  ঘটনাটি ধাঁমাচাপা দিতে স্কুলের প্রধান শিক্ষককে নিয়ে রঘুরামপুর গ্রামের শরীফের বাড়িতে ঘরোয়া ভাবে মিমাংসার জন্য বসেন। তাৎক্ষনিকভাবে এলাকাবাসী খবর পেয়ে এতে বাঁধা দিলে উপস্থিত জনতার সাথে মাজেদুর রহমানের কথাকাটাকাটি হয়। পরে বিক্ষুদ্ধ এলাকাবাসী প্রধান শিক্ষক আবুল কালাম আজাদ ও মাজেদুর রহমানকে গণধোলাই দিয়ে পুলিশে খবর দেয়। পুলিশ গিয়ে তাদের উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়।

সুত্র মতে, এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে এলাকাবাসীর আয়োজনে শিবপুর হাট বাজারে অভিযুক্ত শিক্ষকের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তির দাবীতে মানববন্ধন করা হয়েছে। মানববন্ধনে রঘুরামপুর গ্রামের নারী পুরুষসহ অন্তত ৩ শতাধিক মানুষ ঢাকা-রজশাহী মহাসড়কের দুই পাশে ব্যনার ফেস্টুন হাতে অবস্থান নিয়ে মাজেদুর রহমানের বিরুদ্ধে বিভিন্ন স্লোগান দেন। এসময় মাজেদুর রহমানকে স্কুল থেকে স্থায়ীভাবে বহিস্কার করা ছাড়াও তার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী জানানো হয়েছে।

এ বিষয়ে থানার ওসি রেজাউল ইসলাম বলেন, খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে ওই শিক্ষককে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। পরে রাতেই স্কুলছাত্রীর বাবা বাদী হয়ে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মাজেদুর রহমানকে আসামী করে মামলা দায়ের করেন। সেই মামলায় শিক্ষক মাজেদুর রহমানকে গ্রেফতার দেখিয়ে বুধবার দুপুরে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরন করা হয়েছে।

ভিডিও..

স/অ

Print