রংপুর-৩ উপনির্বাচন : নিরুত্তাপ ভোটে পাল্লা ভারি আসিফেরই

September 20, 2019 at 1:04 pm

সিল্কসিটিনিউজ ডেস্ক:

রংপুর-৩ আসনের উপনির্বাচনে প্রার্থীরা প্রচার চালালেও ভোট নিয়ে স্থানীয়দের মধ্যে এখনও আগ্রহ তৈরি হয়নি। সর্বত্রই একটা উত্তাপহীন অবস্থা।

রংপুর সদর আসনের এ নিরুত্তাপ ভোটে পাল্লা ভারি দেখা যাচ্ছে স্বতন্ত্র প্রার্থী প্রয়াত হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের ভাতিজা হোসেন মকবুল শাহরিয়ার আসিফের।

বৃহস্পতিবারও জাতীয় পার্টির স্থানীয় নেতাকর্মী ও এরশাদের পরিবারের সদস্য এবং এরশাদ ভক্তদের নিয়ে আসিফ যান মানুষের দ্বারে দ্বারে। দেন নানা প্রতিশ্রুতি।

তবে সাবেক রাষ্ট্রপতি এরশাদের এ দুর্গে জাতীয় পার্টির প্রার্থী রাহগির আল মাহি সাদ এরশাদ এবং বিএনপির প্রার্থী রিটা রহমানও নেতাকর্মীদের নিয়ে ভোটারদের কাছে যাচ্ছেন।

আওয়ামী লীগ প্রার্থী নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালেও এখনও দলটির নেতাকর্মীদের জাতীয় পার্টির প্রার্থীর পক্ষে মাঠে নামতে দেখা যায়নি। ফলে জাতীয় পার্টির প্রার্থী সাদ এরশাদের মহাজোটের প্রার্থী নিয়ে যে সন্দেহ তৈরি হয়েছে তা আরও জোরালো হচ্ছে।

জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান প্রয়াত এরশাদের ভাতিজা আসিফ বৃহস্পতিবার মোটর গাড়ির পক্ষে সাহেবগঞ্জ, বাহারহাছনা, চিলমন, নিউ সাহেবগঞ্জ, জনচড়া, সিগারেট কোম্পানিসহ বিভিন্ন এলাকায় গণসংযোগ করেন।

এ সময় তার সঙ্গে স্থানীয় সাধারণ মানুষ ছাড়াও জাতীয় পার্টির অনেক নেতাকর্মী ও এরশাদ পরিবার ভক্ত শতাধিক লোককে দেখা যায়। পথে পথে ভোটারদের সঙ্গে তিনি কোলাকুলি করেন এবং অনেক ভোটারই তাকে জড়িয়ে ধরেন।

গণসংযোগে আসিফ বলেন, রংপুরের মানুষের কাছে এরশাদ পরিবারের অনেক ঋণ আছে। আমি এরশাদের অবর্তমানে সেই ঋণ শোধ করতে নির্বাচনে নেমেছি।

বিগত চারদলীয় জোট সরকারের আমলে আপনাদের সন্তান আমার বড় আব্বা এরশাদকে মিথ্যা মামলায় কারাগারে ফাঁসি দেয়ার ষড়যন্ত্র করেছিল, শেষ পর্যন্ত তা সফল হয়নি।

রংপুরবাসী কারারুদ্ধ এরশাদকে ৫টি আসনে নির্বাচিত করে নজির সৃষ্টি করেছিল। আজকে তার অবর্তমানে আপনাদের সে ঋণ শোধ করার সময় এসেছে। আমি সেই ঋণ শোধ করতে আপনাদের কাছে মূল্যবান ভোট প্রার্থনা করছি।

নির্বাচিত হলে বর্তমান মহাজোট সরকার উন্নয়নের যে পথে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাবে সেই ধারায় আমি যুক্ত থেকে রংপুরকে এগিয়ে নিতে কাজ করব।

স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে আসিফের প্রতি সাধারণ ভোটারদের মাঝে যতটা আবেগ কাজ করছে তার চেয়ে এরশাদ পরিবারের সন্তান হিসেবেই তাকে রংপুরের মানুষ বেশি জানেন ও চেনেন। প্রতিদিনই আসিফের নির্বাচনী প্রচারে লোকসমাগম বাড়ছে।

এদিকে জাতীয় পার্টির নেতাকর্মীদের নিয়ে সাদ এরশাদ নগরীর অর্জন মোড়, পার্কের মোড়, মাহিগঞ্জ, সাতমাথা, শহীদ অঙ্গন চত্বর, সিটি বাজার ও ধাপ এলাকায় গণসংযোগ করেন।

জাতীয় পার্টির প্রার্থী সাদ এরশাদকে গণসংযোগের সময় এরশাদের ছেলে হিসেবে পরিচয় করিয়ে দেয়া হচ্ছে। তিনি ভোটারদের তার পিতার অসমাপ্ত কাজ সম্পন্ন করার প্রতিশ্রুতি দেন। জাতীয় পার্টির এ দুর্গে সাদ এরশাদকে নিয়ে তেমন উচ্ছ্বাস লক্ষ্য করা গেল না বৃহস্পতিবার।

নানা বিতর্কের মধ্যে বৃহস্পতিবার গণসংযোগে ব্যস্ত সময় পার করেছেন বিএনপি প্রার্থী রিটা রহমান। দিনভর তিনি রংপুরের মুন্সিপাড়া, মেডিকেল মোড়, সিও বাজার, রাধাবল্লভ ও ধাপ এলাকায় তিনি গণসংযোগ করেন।

এ সময় তিনি সাংবাদিকদের কাছে অভিযোগ করে বলেন, বিধি ভঙ্গ করে একজন স্বতন্ত্র প্রার্থীসহ জাতীয় পার্টির প্রার্থী প্রচার চালাচ্ছেন। তারা প্রচারে মাইক ব্যবহার করলেও বুধবার বিকালে মুন্সিপাড়া এলাকায় ধানের শীষের মাইক কেড়ে নিয়েছে সরকারদলীয় নেতাকর্মীরা।

তিনি বলেন, প্রচার চালাতে গিয়ে আমি হুমকির সম্মুখীন হচ্ছি। রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে এ ব্যাপারে অভিযোগ করেছি। তিনি বলেন, ভোটে জয়ী হলে দেশে যে গণতন্ত্রহীন অবস্থা চলছে তা নিয়ে আমি সংসদে কথা বলব।

অন্য প্রার্থীদের মধ্যে এনপিপির শফিউল আলম (আম), গণফ্রন্টের কাজী মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ (মাছ) এবং খেলাফত মজলিসের তৌহিদুর রহমান মণ্ডল (ঘড়ি) প্রচার চালিয়ে যাচ্ছেন।

Print