অ্যামাজনে আগুন দেওয়া কাঠুরেদের ঠেকাতে লড়ছেন যে আদিবাসী নেতা

September 2, 2019 at 10:20 pm

সিল্কসিটিনিউজ ডেস্ক:

অ্যামাজন বনে আগুন লাগানোতে কাঠুরেদের দায়ী করা হচ্ছে। আর এসব কাঠুরেদের হাত থেকে আদিবাসীদের ভূখণ্ড ও বন রক্ষায় উদ্যোগী হয়েছেন ব্রাজিলের এক আদিবাসী নেতা কাদজির কায়াপো। তিনি বলেছেন, কাঠুরে ও খনিজ সম্পদ অনুসন্ধানে তাদের ভূমিতে অবৈধভাবে প্রবেশকারীদের থামাতে যা যা করা সম্ভব সবকিছুই করবেন। মার্কিন সম্প্রচারমাধ্যম এবিসিনিউজের এক প্রতিবেদন এ তথ্য উঠে এসেছে

১৫ আগস্ট থেকে জ্বলছে ব্রাজিলের অ্যামাজন জঙ্গল। এরমধ্যেই গত বৃহস্পতি থেকে শুক্রবারের মধ্যে নতুন করে অ্যামাজনের এক হাজার ২০০টি স্থানে আগুন ছড়িয়ে পড়েছে। পরিবেশবীদরা দাবি করছেন, এসব অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা মানবসৃষ্ট। কৃষির জন্য জমি পরিষ্কার ও পশু চারণের জন্য বনে আগুন লাগানো হচ্ছে। আর এদের সমর্থন দিচ্ছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট জেইর বলসোনারো। বিভিন্ন স্থানে নতুন করে আগুন ছড়িয়ে পড়ার পর কেন্দ্রীয় সরকারের শরণাপন্ন হয়েছে ছয়টি রাজ্য। বিভিন্ন স্থানে ভয়াবহ রকমের আগুনের কুণ্ডলী তৈরি হয়েছে। এসব রাজ্যের কর্তৃপক্ষ আগুন নিয়ন্ত্রণে সামরিক বাহিনীর সহায়তা চাইছে। সেনা সহায়তা চাওয়া রাজ্যগুলো হচ্ছে পারা, রন্ডোনিয়া, রোরাইমা, টোকানটিন্স, একর এবং ম্যাটো গ্রোসো। এরমধ্যে রন্ডোনিয়া প্রদেশে ইতোমধ্যেই সামরিক বাহিনীর বিমান থেকে পানি ঢালার কাজ শুরু হয়েছে।

অ্যামাজন রেইনফরেস্টের ৬০ ভাগ ব্রাজিলের দখলে। সেখানে অধিকাংশ বন উজাড়ের ঘটনা অবৈধ। সেখানকার অধিকাংশ অবৈধ দখলদাররা কৃষির জন্য বন পরিষ্কার করতে গাছ কাটা ও আগুন লাগানোর কৌশল গ্রহণ করে। অবৈধভাবে জাতীয় বনে প্রবেশ করে কাঠুরেরা ও আদিবাসীদের সম্পদ দখল করে তারা।

আদিবাসী নেতা কাদজির কায়াপো, তার ছেলে ও অন্যান্য সঙ্গীরা পারা রাজ্যের কায়াপো আদিবাসীদের সংরক্ষিত বনাঞ্চলে  কাঠুরেদের অনুপ্রবেশের ঘটনায় নজর রাখছেন। আগুন লাগিয়ে অ্যামাজনের অনেক এলাকা বন উজাড়করণের এক মাস পর নিয়মমাফিক পাহারা দিচ্ছেন তারা। অ্যামাজনের বিশাল এলাকার আগুনের ঘটনায় আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সমালোচনার পর তারা এই পদক্ষেপ নিয়েছেন।

কাদজির কায়াপো ক্রিমেজ গ্রামের প্রধান। তিনি মাথায় ঐতিহ্যবাহী পোশাক ও নেকলেস পরিধান করেন; কায়াপো ভাষায় তিনি ‘জিশুস খ্রিস্ট’ নামে পরিচিত। যেখানে গ্রামবাসীরা এমন এক নজরদারি অভিযান পরিচালনা করছে যার মাধ্যমে আদিবাসী ভূখণ্ডে বহিরাগতদের পর্যবেক্ষণের চেষ্টা করে তারা। তিনি বলেন, ‘আমাদের ভূখণ্ডে কাঠুরেদের প্রবেশ প্রতিহত করতে এই গ্রাম প্রতিষ্ঠা করেছিলাম।’

ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট জেইর বলসোনারো বলেন, অতীতে আদিবাসীদেরকে ভূমি বরাদ্দ দেওয়া হয়েছিল, যাদের অনেকেই অ্যামাজনের রেইনফরেস্ট এলাকায় বসবাস করেন। এগুলো মাত্রাতিরিক্ত ছিল। ব্রাজিলের ১৪ ভাগই আদিবাসী ভূমি; এই গোষ্ঠীগুলোর তুলনায় এই সামান্য সংখ্যক মানুষের জন্য এটা বিশাল এলাকা।

রেইনফরেস্ট সংরক্ষণের কারণেই ব্রাজিলের অর্থনৈতিক উন্নয়ন বাধাগ্রস্ত হচ্ছে দাবি করার পর তীব্র সমালোচনার মুখে পড়েছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট। তিনি বলেন, অ্যামাজনে আগুন লাগার ঘটনায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশকারী ইউরোপের দেশগুলো তাদের নিজেদের পরিবেশের অনেক ক্ষতি করেছেন। তাই তাদের নিজেদের বনায়ন করার ওপর তাদের জোর দেওয়া উচিত।

ব্রাজিলের জাতীয় ইনস্টিটিউট ফর স্পেস রিচার্স জানায়, আগস্টে ব্রাজিলের অ্যামাজনে ৩০ হাজার ৯০১টি অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। যা ২০১০ সাল থেকে এ পর্যন্ত এক মাসে সর্বোচ্চ।

Print