ঢাকায় ডেঙ্গু এবার কেড়ে নিল গার্মেন্ট ব্যবসায়ীর প্রাণ

সিল্কসিটিনিউজ ডেস্ক:

ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে ডেঙ্গু জ্বরে আরও এক রোগীর মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে এই হাসপাতালে মৃত্যুর সংখ্যা দাঁড়ালো ১৮ জনে।

মারা যাওয়া যুবকের নাম আওলাদ হোসেন (৩২)। তিনি পেশায় একজন গার্মেন্ট ব্যবসায়ী। বাবার নাম তোফাজ্জল হোসেন। মুন্সীগঞ্জ সদর থানার পশ্চিম বাজি এলাকায় তার গ্রামের বাড়ি।

তার মামা আকতার হোসেন জানান, মঙ্গলবার দিবাগত রাত আড়াইটায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ৬০১ নং ওয়ার্ডে তাকে ভর্তি করা হয়। বুধবার ভোররাত ৪ টা ২০ মিনিটে তার মৃত্যু হয়।

এর আগে মঙ্গলবার ঢামেকে তিনজন ডেঙ্গু রোগী মারা যান। মঙ্গলবার দুপুর ২ টা ২০ মিনিটে মারা যান হাবিবুর রহমান (২১)। তিনি ফরিদপুরের ভাঙ্গা উপজেলার কালাম মাতব্বরের ছেলে।

হাবিবুরের মামা আনোয়ার হোসেন জানান, তার ভাগ্নে ২৮ জুলাই ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত হন। তাকে প্রথমে স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ৩১ জুলাই ভর্তি করা হয় ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। অবস্থার অবনতি হলে সেখান থেকে তাকে গত রোববার আনা হয় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। এখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আজ দুপুর সোয়া ২ টার হাবিবুরের মৃত্যু হয়।

এর আগে একই দিন সকালে ডেঙ্গুতে ঢামেকে মনোয়ারা বেগম (৭৫) নামে এক বৃদ্ধার মৃত্যু হয়। তার স্বামীর নাম আবদুল হাই। চাঁদপুরের হাজীগঞ্জের আহমেদপুরে তার বাড়ি। মিরপুর এলাকায় পরিবারের সঙ্গে ভাড়া বাসায় থাকতেন তিনি।

মারা যাওয়া মনোয়ারা বেগমের ছেলে মোশারফ হোসেন সেলিম জানান, তার মা এক সপ্তাহ আগে ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত হন। তাকে ৩ আগস্ট ঢামেকের ওয়ান স্টপ ইমার্জেন্সিতে ভর্তি করা হয়। নিবিড় পর্যবেক্ষণকেন্দ্রে (আইসিইউ) চিকিৎসাধীন থেকে মঙ্গলবার ভোর ৪টায় মারা যান তিনি।

এরও আগে সকালে একই হাসপাতারে মারা যান আমজাদ মণ্ডল (৫২)। তিনি পেশায় কৃষক। তিনি মানিকগঞ্জ জেলার শিবালয় থানার তেতুয়াধারা গ্রামের আবদুল হামিদের ছেলে।

এ নিয়ে এই হাসপাতালে ডেঙ্গুতে মৃত্যুর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ১৮ জনে।

Print