দুধে অ্যান্টিবায়োটিক: কমছে লিভার কিডনির আয়ু

সিল্কসিটিনিউজ ডেস্ক:

কমবেশি সবাই দুধ খেতে পছন্দ করেন। তবে সম্প্রতি বাজারে বিভিন্ন কোম্পানির পাস্তুরিত তরল দুধে মিলেছে অ্যান্টিবায়োটিকেরসহ বেশকয়েকটি ক্ষতিকর উপাদান। যা মানব স্বাস্থ্যের জন্য ভয়াবহ বিপদ আনতে পারে। গবেষণায় দেখা গেছে, এসব দুধ খেলে লিভার কিডনির আয়ু কমবে ও আপনার মৃত্যু ঝুঁকি বাড়াবে। তাই এসব দুধ না খাওয়া পরামর্শ দিয়েছেন চিকিৎসকরা।

সম্প্রতি দ্বিতীয় দফার পরীক্ষাতেও বাজারে প্রাণমিল্কসহ ৫ কোম্পানির সাতটি পাস্তুরিত দুধে মানুষের চিকিৎসায় ব্যবহৃত অ্যান্টিবায়োটিকের উপস্থিতি পেয়েছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. আ ব ম ফারুক। অপাস্তুরিত তিন দুধেও প্রায় একই ধরনের উপাদান পাওয়া গেছে।

প্রাণমিল্ক, মিল্কভিটা, আড়ং, ফার্ম ফ্রেশ, ইগলু, ইগলু চকোলেট এবং ইগলু ম্যাংগো-এ পাঁচ কোম্পানির সাত পাস্তুরিত এবং রাজধানীর পলাশী, গাবতলী ও মোহাম্মদপুর-এ তিন বাজার থেকে অপাস্তুরিত দুধের তিনটি নমুনা সংগ্রহ করা হয়। গত সপ্তাহে দ্বিতীয় বারের মতো এ পরীক্ষা সম্পন্ন হয়।

এসব দুধ খেলে ভয়াবহ শরীরিক ক্ষতির কথা বলছেন চিকিৎসকেরা। এ বিষয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিশু বিশেষজ্ঞ ডা. মানিক কুমার তালুকদার যুগান্তরকে বলেন, সম্প্রতি দ্বিতীয় দফার পরীক্ষাতেও বাজারে প্রাণমিল্কসহ পাঁচ কোম্পানির সাতটি পাস্তুরিত দুধে মানুষের চিকিৎসায় ব্যবহৃত অ্যান্টিবায়োটিকের উপস্থিতি পাওয়া গেছে। যা মানবস্বাস্থ্যের জন্য বয়াবহ ক্ষতিকর।

তিনি বলেন, এসব দুধে যে অ্যান্টিবায়োটিকের উপস্থিতি তা মানুষের শরীরে প্রবেশ করছে। এর ফলে কোনো মানুষ যদি অসুস্থ হয় আর তার যদি অ্যান্টিবায়োটিকের প্রয়োজন হয় তখন তার শরীরে কোনো ওষুধ কাজ করবে না।

এছাড়া লিভার, কিডনিসহ অন্যান্য অঙ্গ নষ্ট হয়ে যায়। এ সময় তাদের কোনো ওষুধে কাজ হবে না। এক্ষেত্রে একজন মানুষের মৃত্যু ঝুঁকি বেড়ে যায়।তাই এসব দুধ না খাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন তিনি।

Print