রংপুর ডিসি অফিসে হামলায় চেয়ারম্যান প্রার্থী নাসিমা আহত

February 28, 2019 at 8:34 pm

সিল্কসিটিনিউজ ডেস্ক:

রংপুর জেলা যুব মহিলা লীগের সাধারণ সম্পাদক বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান নাছিমা জামান ববির ওপর হামলা করেছে দলীয় প্রতিপক্ষের নেতাকর্মীরা।

অভিযোগ তিনি সদর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে দলের মনোনীত প্রার্থী হওয়ায় দলের বিদ্রোহী প্রার্থীর দলীয় নেতাকর্মীরা তার ওপর অতর্কিত এ হামলা চালায়।

ঘটনার সময় তিনি রিটার্নিং অফিসার জেলা প্রশাসকের দফতর থেকে ফিরছিলেন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাইয়ের শেষে জেলা প্রশাসকের সম্মেলনকক্ষ থেকে বের হয়ে ফেরার পথে এই হামলার ঘটনাটি ঘটে। আওয়ামী লীগের মনোনয়নবঞ্চিত বিদ্রোহী প্রার্থী ডা. দেলোয়ার হোসেনের সমর্থক একরামুল হক অতর্কিত এ হামলা চালান। এতে নাছিমা জামান ববির পরনে থাকা কাপড় ছিঁড়ে যায়। পরে নেতাকর্মীরা তাকে ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করেন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, জেলা প্রশাসকের কার্যালয় থেকে নিচে নামার সময় সিঁড়িতে হরিদেবপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের নেতা একরামুল হক রোহিঙ্গা বহিরাগত বলে ববি চেয়ারম্যানকে কটাক্ষ করতে থাকেন। একপর্যায়ে শেখ হাসিনাকে নিয়ে বিদ্রূপ মন্তব্য করে চন্দনপাট ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি মোশাররফ হোসেন ও উপজেলা চেয়ারম্যান নাছিমা জামান ববিকে ধাক্কা দেয়।

এ সময় জেলা প্রশাসক ভবনের নিচে এসে বাগ্বিতণ্ডার একপর্যায়ে তার ওপর হামলা চালায় বিদ্রোহী প্রার্থীর সমর্থকরা। এতে একজন বাদাম বিক্রেতাসহ চেয়ারম্যান ববি আহত হন। হামলায় সময় নাছিমা জামান ববির পরনে থাকা ওড়না হামলাকারীরা ছিঁড়ে ফেলে।

এ ব্যাপারে রংপুর সদর উপজেলার বর্তমান চেয়ারম্যান নাছিমা জামান ববি বলেন, ‘দলের মনোনয়নবঞ্চিতদের একটি অংশের ষড়যন্ত্রে এ ঘটনা ঘটেছে। হামলাকারী একরামুল হক ২নং হরিদেবপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি। সে কী কারণে এ ধরনের আচরণ করেছে, আমি জানি না। আমাকে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করে আমার ওড়না ছিড়ে দিয়েছে একরামুল’।

বিষয়টি তিনি জেলা আওয়ামী লীগের নেতাদের অবগত করেছেন বলে জানান।

অন্যদিকে একরামুল হক হামলার ঘটনাটি অস্বীকার করেন। তিনি বলেন, ‘আমি কারো ওপর হামলা করিনি। বরং আমাকেই লাঞ্ছিত করা হয়েছে। ববির সমর্থকরা অন্যায় করেছে’। সন্ধ্যা ৬টায় এ খবর লেখা পর্যন্ত থানায় কোনো মামলা করা হয়নি বলে জানা গেছে।

 

Print