রাজশাহীতে এবার উপজেলা নির্বাচনে চোখ আ.লীগের

January 12, 2019 at 8:13 am

নিজস্ব প্রতিবেদক:

রাজশাহীর ছয়টি আসনে সংসদ নির্বাচন শেষ হতে না হতেই এবার উপজেলা নির্বাচনের দিকে চোখ রাখছেন আওয়ামী লীগের নেতারা। কারা প্রার্থী হচ্ছেন এ নির্বাচনে-তা নিয়েও চলছে আলোচনা-সমালোচনা। বিশেষ করে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের মধ্যেই এ আলোচনা চলছে ব্যাপক।

এরই মধ্যে ফেসবুকসহ বিভিন্ন মাধ্যমে সম্ভাব্য প্রার্থীদের বিভিন্নভাবে প্রচারণা চালাতে দেখা যাচ্ছে।

আবার প্রার্থী হওয়ার দৌড়ে অংশ নিয়ে এরই মধ্যে স্থানীয় এমপিদের সঙ্গে লবিং-গ্রুপিংয়েও যোগ দিয়েছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতারা। এ নিয়ে অবস্থান লক্ষ করা যায়নি বিএনপি নেতাদের মধ্যে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, দুর্গাপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে মনোনয়ন পেতে তৎপরতা চালাচ্ছেন উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নজরুল ইসলাম, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আব্দুল মজিদ এবং পৌর মেয়র ও পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি তোফাজ্জল হোসেন। এ উপজেলা থেকে বিএনপির সম্ভাব্য প্রার্থীদের দেখা যাচ্ছে না।

বিএনপি প্রার্থীদের মধ্যে নাম শোনা যাচ্ছে দেলুয়াবাড়ী ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান গোলাম সাকলায়েন, নওপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আজাদ রেজাউল করিমসহ আরো কয়েকজনের। তবে কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্ত কী হবে, সেদিকে তাকিয়ে আছেন বলে জানান দুর্গাপুর উপজেলা বিএনপির সভাপতি গোলাম সাকলায়েন।

বাগমারা উপজেলা থেকে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হয়ে নির্বাচনে অংশ নিতে আগ্রহী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও চেয়ারম্যান জাকিরুল ইসলাম সান্টু। এ ছাড়া একই দলের সম্ভাব্য আরো পাঁচ প্রার্থীর নাম শোনা যাচ্ছে।

রয়েছেন জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি অনিল কুমার সরকার, উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি মতিউর রহমান টুকু, উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক গোলাম সারোয়ার আবুল, উপজেলার আউচপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সরদার জান মোহাম্মাদ ও বাসুপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান লুত্ফর রহমান।

তবে এ উপজেলা থেকে বিএনপির সম্ভাব্য প্রার্থীরা এখনো নিজেদের অবস্থান প্রকাশ করছেন না বলে নিশ্চিত হওয়া গেছে। এর পরও উপজেলা বিএনপির সভাপতি অধ্যাপক মখলেছুর রহমান, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান ডিএম জিয়াউর রহমানসহ আরো একাধিক প্রার্থীর নাম শোনা যাচ্ছে।

পুঠিয়ায় সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আহসানুল হক মাসুদ, জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য গোলাম ফারুক, পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহরিয়ার রহিম কনক, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি জি এম হীরা বাচ্চুর নাম শোনা যাচ্ছে।

পবা থেকে সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে নাম শোনা যাচ্ছে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুর রাজ্জাক, সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান মুনসুর রহমান, জেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক ফারুক হোসেন ডাবলু, উপজেলা যুবলীগের সভাপতি এমদাদুল হক প্রমুখ। ওয়ার্কার্স পার্টির নেতা ও উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান এস এম আশরাফুল।

মোহনপুরে নাম শোনা যাচ্ছে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুস সালাম, আওয়ামী লীগ নেতা এনামুল হক ও রুস্তম আলীর।

তানোরে সম্ভাব্য প্রার্থীরা হলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল্লাহ আল মামুন ও উপজেলা যুবলীগের সভাপতি লুত্ফর হায়দার রশিদ ময়না। এখানে বিএনপির প্রার্থী হিসেবে নাম শোনা যাচ্ছে তানোর পৌর মেয়র মিজানুর রহমানের। গোদাগাড়ীতে আওয়ামী লীগের সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে নাম শোনা যাচ্ছে রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এ কে এম আসাদুজ্জামান আসাদ, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বদিউজ্জামান, উপজেলা যুবলীগের সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম, পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রবিউল আলম, দেওপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আখতারুজ্জামান প্রমুখের।

চারঘাটে আওয়ামী লীগের সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে নাম শোনা যাচ্ছে উপজেলা সাধারণ সম্পাদক ফকরুল ইসলাম, যুবলীগের সভাপতি কাজী মাহমুদুল হাসান মামুন, পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি সাজ্জাদ হোসেন প্রমুখের।

বাঘায় সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে নাম শোনা যাচ্ছে জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি লায়েব উদ্দিন লাভলু, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আশরাফুল ইসলাম বাবুল, উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আজিজুল আলম, যুগ্ম সম্পাদক শাহিনুর রহমান পিন্টু ও বাঘা পৌরসভার সাবেক মেয়র আক্কাছ আলীর।

স/আর

Print