বাগমারায় এমপি ক্যাডারদের হামলায় ‍যুবলীগ নেতা নিহতের ঘটনায় গ্রেফতার ১

December 6, 2018 at 9:29 pm

বাগমারা প্রতিনিধি:

রাজশাহীর বাগমারা উপজেলার তাহেরপুর পৌরসভায় এমপি ক্যাডারদের হামলায় যুবলীগ নেতা চঞ্চল (৪২) কুমার নিহতের ঘটনায় জাহিদ হোসেন নামে একজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। আজ বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে উপজেলার রামগুইয়া বিল হতে পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে বাগমারায় নেয়। পরে আদালতের মাধ্যমে তাকে জেল হাজতে প্রেরণ করেছে বলে জানা গেছে।

গ্রেফতারকৃত জাহিদ হোসেন (২৮) রামগুইয়ার বিল এলাকার মনির হোসেনের ছেলে। সে চঞ্চল কুমার হত্যা মামরার অন্যতম আসামী।

বাগমারা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নাছিম আহমেদ গ্রেফতার নিশ্চিত করে জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে থানার পুলিশ জানতে পারে তাহেরপুর হত্যা মামলার আসামী রামগুইয়ার মনির হোসেনের ছেলে জাহিদ হোসেন গ্রাম সংলগ্ন বিলে অবস্থান করছেন। এমন গোপন সংবাদের ভিত্তিতে থানার পুলিশ দ্রুত এলাকা ঘিরাও করে তাকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়।

তিনি আরে জানান, তাহেরপুর চঞ্চল হত্যা মামলার নিহতের ঘটনায় নিহতের ছোট ভাই অমল কুমার থানায় ৯ জনের নাম উল্লেখপূর্বক অজ্ঞাত ব্যক্তিদের আসামী করে একটি হত্যা মামলা করে। জাহিদ হোসেন ওই মামলার তালিকাভুক্ত পলাতক আসামী।

প্রসঙ্গত, শনিবার দুপুর ১২টার দিকে তিন বছর বয়সী একমাত্র শিশু সন্তান গুঞ্জন খাবার খাওয়ার বায়না ধরে বাবার কাছে। ছেলের দাবি পূরণ করতে তাকে নিয়ে তাহেরপুর বাজারে যান বাবা চঞ্চল। পথিমধ্যে বন্ধু প্রদীপ কুমারের সঙ্গে দেখা হয় তার। ছেলেকে কোলে নিয়ে চঞ্চল তার বন্ধু প্রদীপের সঙ্গে পায়ে হেঁটে বাড়ির দিকে যাচ্ছিলেন। এসময় তাহেরপুর কড়াইতলা মোড় এলাকায় হঠাৎ করে তাদের ওপর আক্রমণ করে স্থানীয় এমপি এনামুলের সমর্থক সর্বহারা ক্যাডার আর্ট বাবু, তার সহযোগী সুমন, বিপ্লব, সাবেক যুবলীগ ক্যাডার মাসুদ, আমজাদ হোসেন, ইয়াছিনসহ ৩০-৪০ জনের একটি ক্যাডার বাহিনী। এসময় প্রদীপ কোনোমতে দৌড়ে পালিয়ে যান। কোলে সন্তান থাকায় পালাতে পারেননি চঞ্চল কুমার। এ অবস্থায় শিশু সন্তান গুঞ্জন চিৎকার দিয়ে কান্নাকাটি করতে থাকে। তারপরও বাবা চঞ্চলকে ক্যাডাররা এলোপাথাড়ি লাঠি দিয়ে পেটায় ও ছুরিকাঘাত করে। আহত হলে তাকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি বিকাল চারটায় সে মৃত্যুবরণ করেন।

স/অ

Print