ভিনগ্রহের জীবরা ঘুরছে চারপাশে, দেখা যাচ্ছে না, চাঞ্চল্যকর দাবি নাসার

December 6, 2018 at 1:03 pm

সিল্কসিটিনিউজ ডেস্ক:

পৃথিবীই কি এই ব্রহ্মাণ্ডে একমাত্র যেখানে প্রাণের অস্তিত্ব রয়েছে? এই প্রশ্নের উত্তর বিজ্ঞানীরা খুঁজে চলেছেন নিরন্তর। এরই মধ্যে আশ্চর্য দাবি করলেন নাসারই বিজ্ঞানী। জানিয়ে দিলেন, ভিনগ্রহ থেকে প্রাণীরা এসে হয়তো এরই মধ্যে নেমে পড়েছে পৃথিবীতে!

আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম ‘মিরর’-এ প্রকাশিত এক প্রতিবেদন থেকে জানা যাচ্ছে, ‘নাসা এমেস রিসার্চ সেন্টার’-এর এক কম্পিউটার বিজ্ঞানী সিলভানো পি কলোম্বানো জানিয়েছেন, মানুষ হয়তো টেরই পাচ্ছে না ভিনগ্রহীরা পৃথিবীতে এসে বাসা বেঁধেছে। কেবল তাদের অদ্ভুত আকৃতি ও চেহারার কারণে তারা দৃশ্যমান হচ্ছে না।

কলোম্বানোর দাবি, হতেই পারে অন্য গ্রহের বাসিন্দারা কার্বন দিয়ে তৈরি নয়। তারা এমন কোনও উপাদানে তৈরি যে মানুষ তাদের দেখতেই পাচ্ছে না।

তাঁর গবেষণাপত্রে এ বিষয়ে তাঁর বক্তব্য জানাতে গিয়ে তিনি এমনটাই লিখেছেন। এ জন্য অন্যান্য পদ্ধতিতে অন্বেষণ চালিয়ে বিষয়টি খতিয়ে দেখা দরকার বলে তিনি জানান। মানুষের প্রযুক্তিগত বিদ্যা যে খুব পুরনো নয়, সে কথা মনে করিয়ে দিতে কলোম্বানো জানান, মানব ইতিহাসে প্রযুক্তির উন্নতির সময়সীমা ১০ হাজার বছর। আর বিজ্ঞানের অভূতপূর্ব উন্নতির ইতিহাস মাত্র ৫০০ বছরের।

কেবল কলোম্বানোই নন, বিজ্ঞানী ম্যাগি আদ্রেইন পোককও জানিয়েছেন, হয়তো অন্য গ্রহের প্রাণীরা এমন অন্য রকম দেখতে, যে মানুষ তাদের হদিশই পাচ্ছে না।

প্রসঙ্গত, প্রয়াত বিজ্ঞানী স্টিফেন হকিং জানিয়েছিলেন, অন্য গ্রহে প্রাণ থাকতেই পারে। কিন্তু তারা যে মানুষের মতো কিংবা পৃথিবীর কোনও জীবের মতো দেখতে হবে, এমনটা ধরে নেওয়া ঠিক নয়। তারা একেবারে অন্যরকম হতেই পারে জানিয়ে হকিং বলেছিলেন, এমনকী গ্যাসীয় বা তরল প্রাণীও হতে পারে। কলোম্বানোর কথাতেও সেই মতবাদই নতুন করে মান্যতা পেল। এখন দেখার, অদূর ভবিষ্যতে বিজ্ঞানীরা সত্যিই তেমন কোন অদেখা, অজানা ভিনগ্রহীর সন্ধান দিতে পারেন কি না। এবেলা

Print