ঠাকুরগাঁওয়ে হানিফ এন্টারপ্রাইজ কোচের ড্রাইভারকে গণধোলাই

November 8, 2018 at 4:53 pm

সিল্কসিটিনিউজ ডেস্ক:

ঠাকুরগাঁও হানিফ এন্টারপ্রাইজ কোচের ড্রাইভারকে গণধোলাই দিয়ে টিকিট কাউন্টারে তালা মেরে দিয়েছে সাধারণ জনতা ও শ্রমিক নেতারা। বুধবার রাত সাড়ে ৯টায় ঠাকুরগাঁও জেলা শহরের নরেশ চৌহান সড়কের হানিফ টিকিট কাউন্টারে এ ঘটনা ঘটে।
প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, পঞ্চগড় জেলার এমপি এ্যাডভোকেট নুরুল ইসলাম সুজনের সহর্ধমিনী ও পরিবারের লোকজন মঙ্গলবার রাতে ঢাকা থেকে হানিফ এন্টাপ্রাইজের ১৪৫৭৬৭ নম্বরের এসি গাড়িতে ঠাকুরগাঁওয়ের উদ্দেশ্যে রওনা হয়। রাস্তায় চলন্ত গাড়িতে এ্যাডভোকেট নুরুল ইসলাম সুজনের স্ত্রীর ডায়বেটিস থাকায় প্রাকৃতিক চাপ আসে। পরে বিষয়টি গাড়ির সুপারভাইজারকে জানানো হলে সুপারভাইজার ড্রাইভার হুমায়ুনকে নির্দিষ্ট স্থানে গাড়িটি থামাতে বলেন। এ সময় ড্রাইভার মহিলাদের উদ্দেশ্য করে খারাপ ভাষায় কথা বলে ও গালিগালাজ করেন। পরে এমপির পরিচয় দিলে ড্রাইভার আরো ক্ষিপ্ত হয়ে উঠেন। তারপরও ড্রাইভার আর কোনো কথায় গুরুত্ব না দিয়ে গাড়ি না থামিয়ে তার মতো করে গাড়ি নিয়ে ঠাকুরগাঁওয়ে পৌঁছান।
পঞ্চগড় জেলার এমপি এ্যাডভোকেট নুরুল ইসলাম সুজনের স্ত্রী ওই ঘটনায় অসুস্থ হয়ে যান ও বিষয়টি মুঠোফোনে বাসায় জানান। ঠাকুরগাঁও স্বেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি ও এমপির ভাগিনা এ্যাপোলোকে বিষয়টি অবগত করলে এ্যাপোলো হানিফ কাউন্টারের ম্যানেজার নারায়ন চন্দ্রকে ওই ড্রাইভারের নামে বিচার দিতে টিকিট কাউন্টারে আসেন। এ সময় আওয়ামী লীগের কর্মীরা উত্তেজিত হয়ে হানিফ কাউন্টারে তালা ঝুলিয়ে দেয়। পরে উপায় না পেয়ে কয়েক ঘন্টা পর ড্রাইভারকে কাউন্টারে নিয়ে আসে কাউন্টার কর্তৃপক্ষ।
ড্রাইভারকে টিকিট কাউন্টারে নেওয়ার আগেই উত্তেজিত জনতা ড্রাইভারকে আটকিয়ে কাউন্টারের সামনেই গণধোলাই দেয়। আগে থেকেই কাউন্টারে বসে থাকা শ্রমিক ইউনিয়নের নেতারা জনতার হাত থেকে ড্রাইভারকে উদ্ধার করে কাউন্টারের ভিতরে নিয়ে যায়। পরে শ্রমিক নেতারা ড্রাইভারের অপরাধের শাস্তি হিসেবে ড্রাইভারকে চড় থাপ্পর দেয় ও ম্যানেজার নারায়ন চন্দ্রসহ দুজনকেই নুরুল ইসলাম সুজনের স্ত্রীর কাছে ক্ষমা চাওয়ায়।
এ সময় উত্তেজিত জনতা বিভিন্ন সময়ে কাউন্টার ম্যানেজার নারায়ণ চন্দ্রের খারাপ আচরণের কথা উল্লেখ্য করে তাকে গালিগালাজ করে। সকলের উপস্থিতিতে বিষয়টি তাৎক্ষনিকভাবে মীমাংসা করা হয়।
এ বিষয়ে হানিফ কাউন্টারের ম্যানেজার নারায়ন চন্দ্রের কাছে জানতে চাইলে তিনি অভিযোগ অস্বীকার করে জানান, আমরা বিষয়টি সমাধান করে দিয়েছি। এটা নিয়ে আর বাড়াবেন না। এটা একটা ভুল বুঝাবুঝি ছিল মাত্র।
উল্লেখ্য, এর আগেও ঠাকুরগাঁও হানিফ কাউন্টারে টিকিট বিক্রি নিয়ে কয়েকবার মারামারি হয়। এছাড়া বিভিন্ন সময় কাউন্টার ম্যানেজার ও অন্য কর্মচারীদের ব্যবহার খারাপ করার কারণে সাধারণ যাত্রীদের সঙ্গে কাউন্টারের লোকদের গন্ডগোল বাঁধে। যাত্রীরা টিকিট কাউন্টারের কর্মচারী ও ম্যানেজারকে দ্রুত অপসারণের জন্য হানিফ এন্টারপ্রাইজের পরিচালকের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।
Print