তানোরে স্কুলে ল্যাপটপ চুরি: টাকা নিয়ে আসামিদের সঙ্গে প্রধান শিক্ষকের আপোষ

August 15, 2018 at 9:57 pm

নিজস্ব প্রতিবেদক:

তানোরে উপজেলার নারায়নপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের স্কুলে ১৬টি ল্যাপট চুরির ঘটনায় গ্রেপ্তারকৃতদের কাছ থেকে ৯ লাখ টাকায় আপোষের ঘটনা ঘটেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এঘটনায় প্রধান শিক্ষকসহ ইউনিয়ন আ’লীগ সভাপতি’র বিরুদ্ধে এমপি’র কাছে গ্রামবাসীরা নালিশ করেছেন। গত সোমবার দুপুরে এমপি ওমর ফারুক চৌধুরী তালন্দ ইউনিয়ন পরিষদ চত্বরে ভিজিএফ চাল বিতরণ করতে গেলে এ অভিযোগ করেন এলাকাবাসী।

গ্রামবাসী ও সংশ্লিষ্টদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, তানোর উপজেলার নারায়নপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের ল্যাব থেকে ২০১৬ সালের ২৬ জুলাই সাময়িক পরীক্ষা শেষে ২৭ ও ২৮ জুলাই ২দিনের স্কুল ছুটি ঘোষণা করা হয় স্কুল। এরপর ৩০শে জুলাই সকালে স্কুল খোলার পর দেখা যায় ১৬টি ল্যাপটপ চুরি হয়ে গেছে।

এ ঘটনায় ওইদিনই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আলউদ্দিন বাদী হয়ে তানোর থানায় একটি মামলা করেন। মামলার পরিপ্রেক্ষিতে পরদিন সন্দেহ ভাজন হিসাবে স্কুলের নাইট গার্ড জাহাঙ্গীর আলম ও পিয়ন রফিকুলসহ বেশ কয়েকজনকে আটক করে জেল হাজতে পাঠায় পুলিশ। পরে গ্রেপ্তারকৃতদেরকে পুলিশ রিমান্ডে এনে ব্যাপক নির্যাতন করেও কোনো তথ্য উদ্ধার করতে পারেনি।

এ ঘটনায় ওই বছরের ৬ সেপ্টেম্বর পুলিশ তানোর উপজেলার বিলশহর গ্রামের দেলজানের পুত্র রায়হান আলীসহ একই গ্রামের ৩জনকে গ্রেপ্তার করে। গ্রেপ্তারকৃদের তথ্যের ভিত্তিতে ওইদিনই চাঁপাইনবাবগন্জ জেলার শিবগঞ্জ উপজেলা থেকে অভিযান চালিয়ে স্কুলের চুরি হওয়া ১৬টি ল্যাপটপসহ ১০জন ক্রেতা বিক্রেতাকে গ্রেপ্তার করে।

এঘটনায় গ্রেপ্তারকৃতদের বিরুদ্ধে তানোর থানা পুলিশ আদালতে চার্জসিট দাখিল করেন। বর্তমানে মামলাটি আদালতে বিচারাধিন রয়েছে।

মামলাটি আদালতে বিচারাধীন থাকা অবস্থায় স্কুলের প্রধান শিক্ষক আলাউদ্দিন ও তালন্দ ইউপি আ’লীগ সভাপতি নাজিমুদ্দিন বাবু গোপনে অভিযুক্ত ওই তিন আসামীদের কাছ থেকে ৯লাখ টাকা নিয়ে আপোষ করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

এ ব্যাপারে আবু সাইম ও আহসান হাবিব বলেন, বিনা অপরাধে আমাদেরকে প্রধান শিক্ষক পুলিশ দিয়ে ধরিয়ে অমানবিক নির্যাতন করায়। কিন্তু পরে চুরির ঘটনার সঙ্গে কারা জড়িত-তা প্রমাণ হয়। এখন সেই আসামিদের সঙ্গে প্রধান শিক্ষকেআপোষ করে গোপনে নয় লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন।

এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে তানোর উপজেলার নারায়নপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আলাউদ্দিন বলেন, কোনো কথা বলতে রাজি হননি। ৎ

এ ব্যাপারে তালন্দ ইউনিয়ন আ’লীগ সভাপতি নাজিমুদ্দিন বাবু ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, আসামিদের সঙ্গে মামলার বাদী স্কুলের প্রধান শিক্ষকের আপোষ করিয়ে দেয়া হয়েছে। এ ঘটনায় এলাকায় চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে।

স/আর

Print