স্মিথ-পেইনদের সঙ্গে এক লিফটে উঠতে দেওয়া হয়নি ভারতীয় ক্রিকেটারদের!

চোটজর্জর দল ও কম অভিজ্ঞ একাদশ নিয়ে অস্ট্রেলিয়ায় অসাধারণ এক টেস্ট সিরিজ শেষ করল ভারত।

এই সিরিজে ঐতিহাসিক জয় ছাড়াও ঘটেছে বেশ কিছু অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনাও। বর্ণবাদী আচরণের শিকার হয়েছেন ভারতীয় ক্রিকেটাররা।  মাঠের বাইরেও চলেছে স্নায়ুযুদ্ধের লড়াই।

এ ছাড়া কুইন্সল্যান্ড রাজ্যের করোনাবিধি নিয়েও অস্ট্রেলিয়া বোর্ডের সঙ্গে তর্কে মেতেছিল ভারতীয় বোর্ড। একসময় ব্রিসবেন টেস্ট আর মাঠে গড়ানো নিয়ে শঙ্কা কাজ করছিল।

এর আগে সিডনি টেস্টে উইকেটের পেছনে দাঁড়িয়ে অসি অধিনায়ক টিম পেইনের অতিকথনও নিয়েও সোশ্যাল মিডিয়ায় ঝড় ওঠে। সমানে সমানে জবাব দিয়ে সেদিন পেইনের সঙ্গে বাগযু্দ্ধে মাতেন রবিচন্দ্রন অশ্বিন।

সিরিজজুড়ে ভারতীয় ক্রিকেটারদের অভিযোগ, করোনার অজুহাতে তাদের সঙ্গে দুর্ব্যবহার করেছেন অস্ট্রেলীয়রা। জৈব সুরক্ষা নিয়ে অস্ট্রেলীয় কর্তৃপক্ষে বাড়তি কড়াকড়ি ছিল মাত্রাতিরিক্ত।

বিষয়টি সামনে এনে অশ্বিন অভিযোগ করেছেন, গোটা সিরিজেই বৈষম্যের শিকার হয়েছে ভারত দল। কিছু ঘটনায় রীতিমতো ভারতীয় ক্রিকেটারদের ‘অপমান’ করা হয়েছে।

উদাহরণ দিয়ে অশ্বিন জানান, সিডনিতে অস্ট্রেলীয় ক্রিকেটারদের সঙ্গে একই লিফটে উঠতে দেওয়া হয়নি তাদের। যে লিফটে স্মিথ-ওয়ার্নাররা উঠতেন, সেটায় ঢুকতে পারতেন না অশ্বিন-রাহানেরা।

সফর শেষে ভারতে ফিরে ফিল্ডিং কোচ আর শ্রীধরের ইউটিউব চ্যানেলে এই অবিশ্বাস্য অভিযোগ করেন অশ্বিন।

ক্ষোভের স্বরে ভারতের এ স্পিনজাদুকর বলেন, আমরা যখন সিডনিতে পৌঁছলাম, তখন আমাদের সঙ্গে একটা বিচিত্র ঘটনা ঘটল। সত্যি বলতে কী, অবিশ্বাস্যই বলা চলে। ভারত, অস্ট্রেলিয়া—দুদলের খেলোয়াড়রাই একই জৈব সুরক্ষা বলয়ের মধ্যে ছিল। কিন্তু তা সত্ত্বেও অস্ট্রেলিয়ার খেলোয়াড়রা যখন লিফটের মধ্যে থাকত, ভারতের কাউকে সে লিফটে উঠতে দেওয়া হতো না। এমন বৈষম্যমূলক ব্যবহার হজম করা কষ্টকর। এটি কি মানা যায়?

 

সুত্রঃ যুগান্তর

শর্টলিংকঃ

প্রিয় পাঠক, স্বভাবতই আপনি নানান ঘটনার সাক্ষী। শেয়ার করুন আমাদের। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের ইমেলে পাঠিয়ে দিন, silkcitynews@gmail.com ঠিকানায়। অথবা যুক্ত হতে পারেন @silkcitynews.com আমাদের ফেসবুক পেজে। কোন এলাকা, কোন দিন, কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই দেবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।