সুশান্তের মৃত্যুর পর ভালো ব্যবহার করা সেই বন্ধুও ‘অভিযুক্ত’

নিউজ ডেস্ক

সুশান্ত সিং রাজপুতকে শ্বাসরোধ করে খুন করা হয়েছে, এবং তা করেছে তার বন্ধু সিদ্ধার্থ পিঠানি। এই দাবি করেছেন সুশান্তের বাবার আইনজীবী বিকাশ সিংহ। বুধবার একটি সংবাদ সংস্থাকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বিকাশ বলেন, ‘সিদ্ধার্থ খুবই ধূর্ত এবং বুদ্ধিমান এক অপরাধী।’

নিজের এই দাবির পক্ষে একাধিক ‘যুক্তি’ও দিয়েছেন বিকাশ। এ দিন বিভিন্ন টিভি চ্যানেলকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, ‘সুশান্তের মৃতদেহের ছবি আমি দেখেছি। তাকে যে গলায় বেল্টের ফাঁস দিয়ে খুন করা হয়েছিল, এ বিষয়ে আমাদের কোনও সন্দেহ নেই। কারণ, যে কাপড় সুশান্তের গলায় জড়ানো ছিল, তার থেকে গলায় ওই রকম গভীর ক্ষতচিহ্ন হতে পারে না।’

বিকাশের দাবি, ‘এই কাজ করেছে সিদ্ধার্থই। একমাত্র সে-ই ঘটনার সময়ে সুশান্তের ফ্ল্যাটে ছিল।’ অভিনেতার মৃত্যুর সময়ে তিনি যে ফ্ল্যাটের অন্য ঘরে ছিলেন, তা পুলিশের কাছে দেওয়া বয়ানে জানিয়েছিলেন সিদ্ধার্থও।

আইনজীবী বিকাশের আরও দাবি, ‘সুশান্তের মৃত্যুর পরে প্রয়াত অভিনেতার পরিবারের সঙ্গে ভালো ব্যবহার করছিলেন সিদ্ধার্থ। নিয়মিত তাদের খোঁজ-খবরও নিচ্ছিলেন। কিন্তু সুশান্তের বাবা কে কে সিং পটনায় এফআইআর দায়ের করার পরেই সিদ্ধার্থের হাবভাব পাল্টে যায়। তখন থেকেই তিনি রিয়াকে সাহায্য করা শুরু করেন।’ কে কে সিং অবশ্য তার এফআইআরে সিদ্ধার্থের নামে কোনও অভিযোগ আনেননি।

গতকাল শিবসেনা সাংসদ সঞ্জয় রাউত সুশান্তের বাবার ‘দ্বিতীয় বিবাহ’ নিয়ে কুরুচিকর মন্তব্য করার পরে এ দিন সুশান্তের পরিবারের পক্ষ থেকে ৯ পাতার একটি দীর্ঘ চিঠি প্রকাশ করা হয়। হিন্দিতে লেখা এই চিঠিটিতে বলা হয়েছে, কীভাবে সাধারণ পরিবার থেকে উঠে আসা সুশান্তের সঙ্গে কখনওই তার পরিবারের শিকড় ছিন্ন হয়নি। সুশান্তের এক আত্মীয় নীরজ কুমার বাবলু এ দিন সঞ্জয় রাউতকে এক আইনি নোটিশ পাঠিয়ে দাবি করেন, সঞ্জয়কে প্রকাশ্যে ক্ষমা চাইতে হবে। না হলে তার বিরুদ্ধে মানহানির মামলা করা হবে।

 

সূত্রঃ বাংলাদেশ প্রতিদিন

শর্টলিংকঃ

প্রিয় পাঠক, স্বভাবতই আপনি নানান ঘটনার সাক্ষী। শেয়ার করুন আমাদের। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের ইমেলে পাঠিয়ে দিন, [email protected] ঠিকানায়। অথবা যুক্ত হতে পারেন @silkcitynews.com আমাদের ফেসবুক পেজে। কোন এলাকা, কোন দিন, কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই দেবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।