সান্তাহারে গৃহবধূকে শ্বাসরোধে হত্যা, স্বামী গ্রেপ্তার-ননদ পলাতক


সান্তাহার  প্রতিনিধি : বগুড়ার সান্তাহারে বৃষ্টি আক্তার (১৯) নামের গৃহবধূকে শ্বাসরোধ ও পিটিয়ে হত্যার অভিযোগে স্বামী রমজান আলীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। শনিবার সকাল সাড়ে ৯টায় সান্তাহার পৌর এলাকার চা-বাগান মহল্লায় ঘটনাটি ঘটে। ওই দিন দুপুরে নিহতের মা শাহানাজ বেগম বাদী হয়ে থানায় বৃষ্টির স্বামী রমজান ও ননদ স্বপ্নাকে আসামী করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, গত ৩ বছর আগে উপজেলার সান্তাহার পৌর শহরের কলসা মহল্লার মৃত ফারুক হোসেনের মেয়ে বৃষ্টির সাথে চা-বাগান মহল্লার সাইফুল ইসলামের ছেলে রমজান আলীর (২৫) প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। প্রথম স্ত্রীকে তালাক দিয়ে রমজান বৃষ্টিকে দ্বীতিয় বিয়ে করে। তারা চাবাগান মহল্লায় বক্করের বাসা ভাড়া নিয়ে বসবাস শুরু করে। রমজান কখনো হোটেলে আবার কখনো রিক্সা চালাতো আর বৃষ্টি অন্যের বাসায় কাজ করতো। গত বৃহস্পতিবার গ্রামীন ব্যাংক থেকে ১৫হাজার টাকা ঋণ নেয় বৃষ্টি।

রমজান এ টাকা চেয়ে বৃষ্টির কাছে থেকে না পাওয়ায় তাকে নির্যাতন শুরু করেন। একপর্যায়ে শনিবার সকাল সাড়ে ৯টায় স্বামী রমজান ও ননদ স্বপ্না মিলে তাকে পিটিয়ে ও গলায় ওড়নার ফাঁস দিয়ে হত্যা করে। এরপর কৌশলে তারা এই হত্যার ঘটনাকে ধামাচাপা দিতে স্বামী-ননদ দুজন মিলে ভ্যানযোগে তাকে স্থানীয় একটি ক্লিনিকে নিলে দায়িত্বরত চিকিৎসক মৃত ঘোষনা করেন।

সেখান থেকে লাশটি বাড়িতে নিয়ে আসে এবং প্রতিবেশিদের বলে স্ট্রোক করে বৃষ্টি মারা গেছে। বিষয়টি স্থানীয়দের সন্দেহ হলে তারা পুলিশে খবর দেন। পুলিশের উপস্থিতে টের পেয়ে রমজান দৌঁড়ে পালাতে লাগছে তাকে পিছন থেকে ধাওয়া করে পুলিশ গ্রেপ্তার করেন। এদিকে ননদ লাশ রেখে কৌশলে পালিয়ে যায়। নিহতের মা শাহানাজ বেগমের দাবী, দীর্ঘদিন ধরে তার মেয়ের ওপর নির্যাতন চালাতো রমজান। তিনি তার মেয়ের হত্যার সুষ্ট বিচার চান।

সান্তাহার পুলিশ ফাঁড়ির পরিদর্শক আনিছুর রহমান জানান, শনিবার দুপুরে ওই গৃহবধূর লাশটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। নিহতের মা শাহানাজ বেগম দুইজনকে আসামী করে হত্যা মামলা দায়ের করেন।

স/আ.মি

 

শর্টলিংকঃ

প্রিয় পাঠক, স্বভাবতই আপনি নানান ঘটনার সাক্ষী। শেয়ার করুন আমাদের। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের ইমেলে পাঠিয়ে দিন, [email protected] ঠিকানায়। অথবা যুক্ত হতে পারেন @silkcitynews.com আমাদের ফেসবুক পেজে। কোন এলাকা, কোন দিন, কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই দেবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।