শীতে যে ৪ সবজি নিয়মিত খাওয়া উচিত

শীত প্রায় চলেই এসেছে। শীতের সময় কম্বলের নিচে বসে গরম গরম ধোয়া ওঠা এক প্লেট খাবার খেলে যেনো আর কিছুই লাগে না। আর  রঙ- বেরঙ এর সবজির জন্য শীতকাল অনেকের কাছে প্রিয়। সবজি যেমন পুষ্টিগুণে সম্পন্ন তেমনি ঠাণ্ডা আবহাওয়ার সাথে শরীরকে খাপ খাওয়াতে সাহায্য করে এসব সবজি।  শীতের এমন কিছু সবজি আছে যা শরীরের উপকারিতার কথা ভেবে প্রতিদিন খাওয়া উচিত।

মৌসুমি সবজি কেন খাবেন:

আমাদের দেশের আবহাওয়ার কারণে আমরা বছরের ভিন্ন ভিন্ন মৌসুমে নানা রকম সবজি ও ফল খেয়ে থাকি। তবে বিশেষ করে শীতকালে বাজার ছেয়ে যায় রঙ-বেরঙ এর সবজিতে।  শীতের সময় পিঠা ও মিষ্টি জাতীয় খাবার বেশি না খেয়ে সবজি খাওয়ার ওপর জোর দেওয়া উচিত। মিষ্টি জাতীয় খাবার খেতেই যদি হয় তাহলে চিনির পরিবর্তে গুড়ের তৈরি খাবার খাওয়া ভালো।

মুলা:

অনেকেই মুলা খেতে পছন্দ করেন না। তবে মুলার উপকারিতার কথা শুনলে আপনি অবাক হয়ে যাবেন। মুলায় ম্যাগনেসিয়াম, ক্যালসিয়াম ও কপার রয়েছে যা হজম প্রক্রিয়া ভালো রাখে।  মুলা রক্ত পরিশোধন করে এবং শরীর থেকে বিষাক্ত বর্জ্য বের করতে সহায়তা করে। এটি জন্ডিসের চিকিৎসায় ভীষণ কার্যকরী। কারণ এটি রক্তে বিলিরুবিন নিয়ন্ত্রণ করে এবং শরীরে অক্সিজেনের সরবরাহ বাড়িয়ে দেয়। মুলা এমনিতেও রান্না করে দেওয়া যায় আবার যেকোন তরকারির সাথে রান্না করে খাওয়া যায়। কিডনি ভালো রাখে মুলা। আবার ওজনও নিয়ন্ত্রণে রাখে মুলা।

শিম:

শীতকালের জনপ্রিয় একটি সবজি শিম। ভাজি করে বা রান্না করে শিম খাওয়া যায়। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা সম্পন্ন শিম। এ সকল উপাদান ছাড়াও শিমে জিঙ্ক, ভিটামিন সি ও নানা রকম খনিজ উপাদান রয়েছে। কোষ্ঠ্যকাঠিন্য দূর করে শিম। আর নিয়মিত শিম খেলে ত্বকের আর্দ্রতা বজায় থাকে এবং চুল পড়া কমে।

মিষ্টি আলু:

পুষ্টিগুণে সমৃদ্ধ মিষ্টি আলু। এই আলুতে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার ও ভিটামিন রয়েছে। মিষ্টি আলু হার্ট ও ত্বকের স্বাস্থ্য উন্নত করে, দৃষ্টিশক্তি সুরক্ষিত রাখে ,টাইপ-২ ডায়াবেটিসের ঝুঁকি কমায় ও অন্যান্য স্বাস্থ্য সমস্যা থেকে দূরে রাখে।

আমলকী:

আমলকীতে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি থাকে যা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে। বিশেষ করে ত্বক ও চুল ভালো রাখে আমলকী। আমলকি বিভিন্নভাবে খাওয়া যায়। লবণ দিয়ে, আচার বানিয়ে বা মোরব্বা বানিয়ে অনেকদিন সংরক্ষণ করেও আমলকী খেতে পারেন।

 

সুত্রঃ কালের কণ্ঠ