শিবগঞ্জের পদ্মায় নৌকা ডুবিতে অলৌকিকভাবে বেঁচে গেলো ৪ মাসের শিশু

নিজস্ব প্রতিবেদক, চাঁপাইনবাবগঞ্জ:

বুধবারের (২৯ সেপ্টেম্বর) পদ্মায় নৌকা ডুবির ঘটনায় অলৌকিকভাবে বেঁচে গেলো চার মাসের শিশু আসিফা খাতুন। ঘটনার প্রায় দুই ঘণ্টা পর ঘটনাস্থল হতে প্রায় ১০ কিলোমিটার ভাটিতে স্থানীয় লোকজন তাকে সহ তার মা ও নানাকে উদ্ধার করে। আসিফা খাতুন (৪ মাস) হলো জেলার ভোলাহাট থানার ছোট জামবাড়িয়া গ্রামের মাহবুব আলির মেয়ে।

আসিফার মা সাবিনা বেগম জানান, আমি আমার বাবা মনিরুল ইসলামের সাথে ভোলাহাট হতে বাবার বাড়ি আসছিলাম। ঘটনার দিন আমরা বোগলাউড়ি ঘাট হতে বেলা একটা ৩০ মিনিটে নৌকা ছেড়ে যাবার পর পদ্মা নদীর ট্যাকে অতিরিক্ত পণ্য ও যাত্রী থাকায় প্রবল স্রােতে নৌকাটি ডুবে যায়।

এ সময় আমি ও আমার বাবা একটি চিনাবাদামের বস্তার ওপর আমার মেয়ে আসিফাকে রেখে দুইজনে বস্তাটি হাত দিয়ে ওপরে তুলে ধরে থাকি এবং সাঁতার কাটতে থাকি। এভাবে প্রায় দুই ঘণ্টা পর ঘটনাস্থল হতে প্রায় ১০ কিলোমিটর ভাটিতে স্থানীয় লোকজন একটি ছোট নৌকায় আমাদের তুলে নেয়। ডাঙ্গায় এসে নদী পাড়ের লোকজন আমার মেয়ের পেট থেকে পানি বের করে। তখন সে অনেকটা সুস্থ হয়ে উঠে। নদীতে থাকা অবস্থায় পানি খেয়ে পেট ফুলে গেয়েছিল। বর্তমানে বাবার বাড়িতে আছি। মেয়ে কিছুটা সুস্থ আছে। তবে ভাল চিকিৎসার প্রযোজন। আমরা বাবা ও স্বামী গরিব মানুষ। তারা সবাই কামলা খেটে খাই। টাকার অভাবে মেয়ের চিকিৎসা করাতে পারছিনা। আমি আমার ছোট মেয়ের চিকিৎসার জন্য প্রশাসনের সহযোগিতা কামনা করছি।

সাবিনা বেগম আরো জানান, নৌকাটিতে সবজিসহ বিভিন্ন ধরনের অতিরিক্ত পণ্য ও অতিরিক্ত যাত্রী নেয়ায় নৌকা ডুবির মূল কারন। এ ব্যাপারে শিবগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাকিব আল রাব্বী জানান, ঘটনাটি জানলাম, তার চিকিৎসার ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

উল্লেখ্য যে সাবিনা বাবার বাড়ি শিবগঞ্জ উপজেলার পাঁকা ইউনিয়নের বিশ রশিয়া এলাকার সেতারা পাড়া গ্রামে।

স/রি