লাশ সৎকারে যাওয়া ১৭ স্বজনও লাশ হলেন

পশ্চিমবঙ্গের নদীয়া জেলায় ভয়াবহ সড়ক দুর্ঘটনায় অন্তত ১৮ জন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন কয়েকজন। শনিবার মধ্যরাতে নদীয়া জেলর হাঁসখালি ব্লকের ফুলবাড়ি মাঠের কাছে রাজ্য সড়কে এই মর্মান্তিক দুর্ঘটনা ঘটে। লাশ সৎকার করতে যাওয়ার সময় লাশ ও মৃতের বাড়ির পরিবারের সদস্যদের বহনকারী একটি ট্রাক সজোরে ধাক্কা মারে রাস্তায় দাঁড়িয়ে থাকা অন্য একটি ট্রাককে। এ ঘটনায় রবিবার সকাল পর্যন্ত ওই গাড়ির চালকসহ ১৮ জন শ্মশানযাত্রীর মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে ১৭ জনই মৃতের স্বজন।নিহতদের মধ্যে ১০ জন পুরুষ বাকিরা নারী ও শিশু। আহত কয়েকজনের চিকিৎসা চলছে শক্তিনগর জেলা হাসপাতালে।

জানা গেছে, দীর্ঘ রোগভোগের পর শ্রাবণী মুহুরি নামে রাজ্যটির উত্তর চব্বিশ পরগনা জেলার বাগদা থানার পারমদন ফরেস্ট এলাকার বাসিন্দা এক বৃদ্ধার মৃত্যু হয়। তাকে দাহ করাতেই একটি ট্রাকে করে নদীয়া জেলার নবদ্বীপের শ্মশানে নিয়ে যাচ্ছিল তার পরিবারের সদস্য ও স্থানীয় বাসিন্দাসহ প্রায় ৪০ জন। শনিবার দিবাগত মধ্যরাত আনুমানিক পৌনে ২টা নাগাদ নদীয়ার ফুলবাড়ি খেলার মাঠের কাছে রাজ্য সড়কে দাঁড়িয়ে থাকা একটি পাথর বোঝাই ট্রাকের সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয় শ্মশানযাত্রীদের বহনকারী ট্রাকটির। ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয় বেশ কয়েকজনের, পরে হাসপাতালে নিয়ে গেলে আরও কয়েকজনের মৃত্যু হয়। যদিও সরকারিভাবে ১১ জনের মৃত্যুর খবর জানানো হয়েছে। এই ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে।

প্রাথমিকভাবে অনুমান, কুয়াশার কারণেই দৃশ্যমানতা কম ছিল, তার ওপরে শ্মশানযাত্রীদের বহনকারী ট্রাকটির অনিয়ন্ত্রিত গতিবেগ- যার ফলে এই মর্মান্তিক দুর্ঘটনা।

 

সুত্রঃ বাংলাদেশ প্রতিদিন