লকডাউনে আয় না থাকায় পুত্রবধূসহ ছেলেকে ঘরছাড়া করলেন বাবা!

নিউজ ডেস্ক

বৃদ্ধ বাবা-মার ঠিকমতো দেখাশোনা না করার অভিযোগ বহু ছেলে মেয়ের বিরুদ্ধেই ওঠে। এই অভিযোগ যেন এখন আর নতুন নয়। আর করোনায় বৃদ্ধ মা-বাবাকে নিয়ে সন্তানদের কিছু অমানবিক ঘটনাও দেখা গেছে। তবে ভিন্নচিত্র দেখা গেল ভারতের পূর্ব মেদিনীপুরে। লকডাউনে আয় নেই বলে পুত্রবধূসহ ছেলেকেই বাড়ি থেকে বের করে দেওয়ার অভিযোগ উঠল জন্মদাতা বাবার বিরুদ্ধে।

জানা গেছে, শুধু বাড়ি থেকে বের করেই দেননি। পুত্রবধূর সঙ্গে দুর্ব্যবহারের অভিযোগ উঠেছে তার বিরুদ্ধে। সুবিচারের আশায় রাস্তার ধারেই স্ত্রীকে সঙ্গে নিয়ে অনশনে বসলেন বৃদ্ধের ছেলে।

কারণ ছেলের বিয়েতে প্রথম থেকে মত ছিল না পরিবারের। তা সত্ত্বেও কাঁথির মেহেবুব দাস ঠিক করেছিলেন বিয়ে করলে সুমিতাকেই করবেন। আর সুমিতাকে বিয়ে করতে না পারলে আজীবন অবিবাহিতই থাকবেন তিনি। সেই অনুযায়ী বেশ কয়েকমাস আগেই সুমিতার সঙ্গে বিয়ে করে নেন মেহবুব। যদিও বিয়ের পর প্রথমে বউমাকে স্বীকার করতে চাননি মেহবুবের বৃদ্ধ বাবা। অভিযোগ, পণও দাবি করেছিলেন তিনি। যদিও তা নিতে রাজি হননি মেহবুব। তাই দাবি মতো গয়নাগাটি কিংবা টাকাপয়সা কিছুই নিতে পারেননি মেহবুবের বাবা।

সুমিতার দাবি, অনেক অশান্তির পর শ্বশুর তাদের বাড়িতে থাকতে দেন। তবে অত্যন্ত অত্যাচার করতেন বলে অভিযোগ। গৃহবধূর আরও অভিযোগ, তার কাছ থেকে শ্বশুর-শাশুড়ি গয়নাগাও কেড়ে নেন। যার বর্তমান বাজারমূল্য অন্তত ১০ লক্ষ রুপি হবে। প্রতিবাদ করলেই কপালে জুটত চূড়ান্ত অপমান। ইতিমধ্যেই করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে লকডাউন শুরু হয়। সেই সময় রোজগার বন্ধ হয়ে মেহবুবের। অভিযোগ, বাড়ি থেকে বের করে দেওয়া হয় মেহবুব এবং সুমিতাকে।

বাধ্য হয়ে আপাতত ভাড়া বাড়িতেই আশ্রয় নিয়েছেন তারা। তবে বর্তমানে আর্থিক টালমাটাল থাকায় গয়না ফেরত চান মেহবুব এবং সুমিতা। কিন্তু অভিযোগ, গয়না কিছুতেই ফেরত দিচ্ছেন না ওই বৃদ্ধ দম্পতি। গত ১ জুলাই মন্দারমণি কোস্টাল থানায় বাবা এবং মায়ের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেছেন মেহবুব ও সুমিতা। পুলিশ অভিযোগের ভিত্তিতে ওই বৃদ্ধ দম্পতির বাড়িতেও যান। তবে তাদের দেখা পাননি। পরিবর্তে তালাবন্দি ঘর দেখে ফিরতে হয়েছে পুলিশকে। তাই বাধ্য হয়ে রবিবার ‘বিয়ের গয়না ফেরত দাও’ পোস্টার হাতে রাস্তার পাশে ধরনায় বসেছেন কাঁথির দম্পতি। সূত্র : সংবাদ প্রতিদিন।

শর্টলিংকঃ

প্রিয় পাঠক, স্বভাবতই আপনি নানান ঘটনার সাক্ষী। শেয়ার করুন আমাদের। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের ইমেলে পাঠিয়ে দিন, [email protected] ঠিকানায়। অথবা যুক্ত হতে পারেন @silkcitynews.com আমাদের ফেসবুক পেজে। কোন এলাকা, কোন দিন, কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই দেবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।