রাজশাহীর মিশন হাসপাতালে করোনা আক্রান্ত পুলিশ সদস্যের মৃত্যু

নিউজ ডেস্ক
  • 2.8K
    Shares

নিজস্ব প্রতিবেদক:

রাজশাহীর মিশন হাসপাতালে করোনাভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে এক পুলিশ সদস্য মারা গেছেন। চিকিৎসাধীন অবস্থায় মোশারফ হোসেন (৫৭) নামের নওগাঁর ওই পুলিশ সদস্য মারা যান। শুক্রবার রাত ১১ টার দিকে তিনি মারা যান।

রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের উপপরিচালক ডা. সাইফুল ফেরদৌস এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, মোশাররফ হোসেনের বাড়ি রাজশাহী মহানগরীর চণ্ডিপুর এলাকায়। তবে তিনি নওগাঁয় কর্মরত ছিলেন। তার গ্রামের বাড়ি পাবনা সুজানগর এলাকায়।

শুক্রবারই তিনি রামেক হাসপাতালে গিয়ে জানান, তার করোনা পজিটিভ। তিনি অসুস্থ। ভর্তি হতে চান।

এরপর তাকে করোনা আক্রান্ত এবং সন্দেহভাজন রোগিদের জন্য নির্ধারিত রাজশাহীর খিষ্ট্রিয়ান মিশন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। এখন পরীক্ষার জন্য তার আবারও নমুনা সংগ্রহ করা হবে বলেও জানান রামেক হাসপাতালের এই কর্মকর্তা।

নওগাঁর পুলিশ সুপার আবদুল মান্নান মিয়া জানান, মোশাররফ হোসেন নওগাঁর রেঞ্জ রিজার্ভ ফোর্সে (আরআরএফ) কর্মরত ছিলেন। গেল ১৮ মে থেকে ছুটিতে তিনি বাড়িতেই ছিলেন। বৃহস্পতিবার রামেক হাসপাতালের ল্যাবে তার নমুনা পরীক্ষায় করোনা পজিটিভ এসেছে বলে তিনি শুনেছেন। এরপর হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন সেটিও শুনেছিলেন। কিন্তু মৃত্যুর খবর এই প্রতিবেদকের কাছেই প্রথম শুনলেন।

এদিকে জানা যায়, মিশন হাসপাতালে মারা যাওয়া করোনা আক্রান্ত মোশারফ হোসেন রাজশাহী আরআরএফ ( রেঞ্জ রিজার্ভ ফোর্স) সুবেদার পদমর্যাদার ছিলেন। অফিশিয়াল পদবী এসআই সশস্ত্র। তিনি ডেপুটেশনে নওগাঁয় কর্মরত ছিলেন। সেখানে তার নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য ঢাকায় প্রেরণ করা হয়েছিল। বৃহস্পতিবার পরীক্ষায় তিনি পজেটিভ প্রমাণিত হন।

এরপর তিনি আরও অসুস্থ হয়ে পড়লে শুক্রবার প্রথমে তিনি পুলিশ লাইন হাসপাতালে যান। সেখান থেকে আইসোলেশন ইউনিট মিশনারী খ্রিষ্টান হাসপাতালে যান। বিকেল সাড়ে ৫টায় ভর্তি হন। রাত এগারটায় মারা যান।

১৭ মে তিনি নওগাঁ থেকে রাজশাহীর চন্ডিপুর ভাড়া বাসায় আসেন এবং সেখানে অবস্থান করছিলেন।

স/আর

শর্টলিংকঃ

প্রিয় পাঠক, স্বভাবতই আপনি নানান ঘটনার সাক্ষী। শেয়ার করুন আমাদের। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের ইমেলে পাঠিয়ে দিন, [email protected] ঠিকানায়। অথবা যুক্ত হতে পারেন @silkcitynews.com আমাদের ফেসবুক পেজে। কোন এলাকা, কোন দিন, কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই দেবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।