রাজশাহীতে সেনাবাহিনীর ভুয়া কর্নেল পরিচয়দানকারী এক প্রতারক গ্রেপ্তার

নিজস্ব প্রতিবেদক:

রাজশাহী মহানগরীতে সেনাবাহিনীর কর্নেল পরিচয় দেওয়া এক প্রতারককে গ্রেপ্তার করেছে রাজশাহী মেট্রোপলিটন পুলিশের (আরএমপি) গোয়েন্দা (ডিবি) শাখা। গত বৃহস্পতিবার (১৩ মার্চ) বিকাল সাড়ে ৭টার দিকে নগরীর বোয়ালিয়া মডেল থানাধীন আলুপট্টি মোড় টিএফসি রেস্টুরেন্ট থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। শুক্রবার (১৩ মে) সন্ধ্যায় আরএমপি মুখপাত্র মো. রফিকুল আলমের পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তি থেকে এই তথ্য জানা গেছে।

গ্রেপ্তার হওয়া ভুয়া সেনাবাহিনীর কর্নেলের নাম মো. রবিউল আওয়াল (২৭)। সে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার শিবগঞ্জ থানার পিয়ারীমারী গ্রামের মো. তোজ্জামেল হকের ছেলে।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, সোনিয়া (ছদ্মনাম) লেখাপড়া শেষ করে চাকরির খোঁজ করছিলেন। প্রায় ৩ মাস পূর্বে নগরীর আরডিএ মার্কেটে সোনিয়ার সাথে আসামি মো. রবিউল আওয়ালের পরিচয় হয়। পরিচয় পর্বে রবিউল নিজেকে সেনাবাহিনীর কর্নেল পরিচয় দেয় এবং সে বগুড়া ক্যান্টনমেন্টে কর্মরত আছে বলেও জানায়। সেখানে তাদের মধ্যে মোবাইল নম্বর আদান প্রদান হয়। পরবর্তীতে সোনিয়া সেনাবাহিনীতে মহিলাদের চাকরির কোনো সুযোগ আছে কি না তা রবিউলের নিকট জানতে চায়। রবিউল সোনিয়াকে তার শিক্ষাগত যোগ্যতার সনদসহ ৪ লাখ টাকা প্রস্তুত রাখতে বলে। প্রায় দেড় মাস পূর্বে সোনিয়া তার সকল শিক্ষাসনদ রবিউলের কথামত তার কাছে পাঠায়। এক সপ্তাহ পরে রবিউল সোনিয়াকে মোবাইল ফোনে জানায়, বগুড়া সেনানিবাসে স্টোর কিপার পদে তার চাকরি হয়েছে। সেই সাথে মোবাইলে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর মনোগ্রাম সম্বলিত একটি ভূয়া নিয়োগপত্র পাঠায় এবং আরো জানায় কিছু দিনের মধ্যে ডাকযোগে নিয়োগপত্র পৌঁছে যাবে। তার কথামত নিয়োগপত্র পাওয়ার তিন মাসের মধ্যে ৪ লাখ টাকা দিতে হবে। সোনিয়া কিছু দিন নিয়োগপত্রের জন্য অপেক্ষা করার পর নিয়োগপত্র না পেয়ে রবিউলকে ফোন করলে রবিউল জানায়, সে নিজেই নিয়োগপত্র নিয়ে আসবে।

তার কথামত সেনাবাহিনীর ভুয়া কর্নেল পরিচয়দানকারী আসামি মো. রবিউল আওয়াল গত বুধবার বোয়ালিয়া মডেল থানার বর্নালী মোড়ে সোনিয়াকে আসতে বলে। সোনিয়া বর্ণালীর মোড়ে আসলে রবিউল তাকে সেনাবাহিনীর মনোগ্রাম সম্বলিত একটি ভূয়া নিয়োগপত্র দিয়ে তার নিকট থেকে ৫০ হাজার টাকা হাতিয়ে নেয়। অবশিষ্ট টাকা পরের দিন বৃহস্পতিবার (১২ মে) দেওয়ার জন্য সোনিয়াকে বলে। সোনিয়া প্রবেশপত্রটি যাচাই-বাছাই করে সন্দেহ হলে বিষয়টি আরএমপি ডিবিকে লিখিতভাবে অভিযোগ করেন।

এই অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে রাজশাহী মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের উপ-পুলিশ কমিশনার আরেফিন জুয়েলের তত্ত্বাবধানে অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (ডিবি) মো. আব্দুল্লাহ আল মাসুদের নেতেৃত্বে গোয়েন্দা পুলিশের একটি বিশেষ টিম পুলিশ পরিদর্শক মো. আশিক ইকবাল, এসআই মো.মাহফুজুর রহমান সঙ্গীয় অফিসার ও ফোর্স সেনাবাহিনীর ভুয়া কর্নেল পরিচয়দানকারী আসামির নাম ঠিকানা সংগ্রহ করে অবস্থান সনাক্তপূর্বক করে গ্রেপ্তারে অভিযান নামে। পরে বৃহস্পতিবার বিকালে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেপ্তার করে। পরে জিজ্ঞাসাবাদে আসামি জানায়, বিভিন্ন ব্যক্তির কাছে সে দীর্ঘদিন যাবৎ নিজেকে সেনাবাহিনীর কর্নেল পরিচয় দিয়ে আসছে। সেনাবাহিনীর মনোগ্রাম সম্বলিত ভুয়া নিয়োগপত্র দিয়ে প্রতারণার মাধ্যমে মোটা অংকের অর্থ হাতিয়ে নিয়েছে। আসামিকে শুক্রবার আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে বলেও বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়।

এএইচ/এস