ম্যারাডোনার খোলা কফিনের সামনে সেলফি তুলে ক্ষমা চাইলেন একজন

আর্জেন্টিনার ফুটবল তারকা দিয়েগো ম্যারাডোনার খোলা কফিনের পাশে দাঁড়িয়ে ছবি তুলে নিন্দিত হওয়া এক ব্যক্তি ভক্তদের কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করেছেন।

ক্লদিও ফার্নান্দেজ নামের ওই ব্যক্তি তার ছেলেকে নিয়ে ম্যারাডোনার মৃতদেহের পাশে দাঁড়িয়ে ছবি তোলেন । তার ছেলেকে ছবিতে বুড়ো আঙুল তুলে ‘থাম্বস আপ’ ভঙ্গি করতে দেখা যায়।

আরেকটি ছবিতে তৃতীয় এক ব্যক্তিকেও দেখা যায়।

গত বুধবার রাজধানী বুয়েনোস আইরেসের কাছে টিগ্রেতে তার নিজের বাড়িতে মারা যান দিয়েগো ম্যারাডোনা।

ম্যারাডোনার দেহ যখন দেশটির প্রেসিডেন্ট প্রাসাদে অন্তিম শয়ানে, তখন অনলাইনে এসব ছবি বের হলে ব্যাপক ক্ষোভ সৃষ্টি হয়। ফুটবল তারকার আইনজীবী মাতিয়াস মোরলা যে ব্যক্তি এসব ছবি তুলেছে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার কথা বলেন।

মি ফার্নান্দেজ পরে রেডিও টেন-এ বলেন, অনেকটা তাৎক্ষণিক সিদ্ধান্তে তারা এসব ছবি তুলেছিলেন।

“আর দশটা বাচ্চা ছেলের মতই আমার ছেলে ছবি তোলার সময় তার বুড়ো আঙুল উঁচিয়ে ধরে। আমি জানি যে অনেক লোক এ ছবি দেখে ক্ষুব্ধ ও মর্মাহত হয়েছেন” – বলেন মি. ফার্নান্দেজ।

তিনি আরো জানান যে তাকে হত্যার হুমকিও দেয়া হয়েছে।

রেডিওর সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, “তারা বলেছে, তারা আমাদের মেরে ফেলবে, আমাদের মাথা গুঁড়ো করে দেবে।”

দি সেপেলিওস পিনিয়ার নামে একটি শেষকৃত্যের আয়োজনকারী প্রতিষ্ঠান বলেছে, ওই তিনজনকে কফিন বহন করার জন্য তাদের কাছে পাঠিয়েছিল আরেকটি প্রতিষ্ঠান। প্রতিষ্ঠানটির ম্যানেজার মাতিয়াস পিকোন একটি টিভি চ্যানেলকে বলেছেন, ওই ছবিগুলো দেখে তারা মানসিকভাবেতিনি বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছেন।

তিনি বলেন, ম্যারাডোনার পরিবারের অন্যান্য সদস্যের জন্যও তারা শেষকৃত্যকালীন সেবা দিয়েছেন এবং তাদের ওপর সেই পরিবারের পূর্ণ আস্থা আছে। সেজন্যই তারা এত মর্মাহত।

মি. পিকোন বলেন, “আমার বাবার বয়স ৭৫। তিনি কাঁদছেন। আমি আর আমার ভাইও কাঁদছি। আমরা শেষ হয়ে গেছি।”

সূত্র: বিবিসি

শর্টলিংকঃ

প্রিয় পাঠক, স্বভাবতই আপনি নানান ঘটনার সাক্ষী। শেয়ার করুন আমাদের। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের ইমেলে পাঠিয়ে দিন, silkcitynews@gmail.com ঠিকানায়। অথবা যুক্ত হতে পারেন @silkcitynews.com আমাদের ফেসবুক পেজে। কোন এলাকা, কোন দিন, কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই দেবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।