ভারতে ১০০ কোটির বিনিয়োগ নিয়ে সংশয়ে চিনের বাইটডান্স

নিউজ ডেস্ক
  • 15
    Shares

টিকটকের হাত ধরে নয়া ব্যবসা পেতে বসার সুযোগ খুঁজছিল চিনের বাইটডান্স কোম্পানি। তবে সে আশায় আপাতত জল ঢেলে টিকটক সমেত ৫৯টি চিনা অ্যাপ নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছে কেন্দ্র। উল্লেখ্য চিনের বাইটডান্স কোম্পানির শাখা প্রতিষ্ঠান টিকটক। বাইটডান্সের ১০০ কোটির প্রজেক্ট এখন বিশ বাঁও জলে। ফলে বেশ চিন্তায় এই কোম্পানি কর্তৃপক্ষ।

গত বছর থেকেই ভারতে নয়া শাখা খোলার পরিকল্পনা চালাচ্ছে বাইটডান্স। প্রচুর বিনিয়োগও হয়ে গিয়েছে এই প্রজেক্টের ওপর বলে জানাচ্ছেন আধিকারিকরা। ভারতে টিকটকের তুমুল চাহিদা দেখার পরেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল। জানা গিয়েছে ভারতের বাজার থেকেই টিকটক মোট আয়ের ৩০ শতাংশ পেত ।

গোটা বিশ্বে টিকটকের ব্যবহারকারীর সংখ্যা ২০০ কোটি। তবে সোমবার চিনের নাম না করে ও সীমান্তে সংঘর্ষের উল্লেখ না করেই চিনা অ্যাপ বাতিলের সিদ্ধান্ত নেয় কেন্দ্র। যাতে বাইটডান্সের মতো কোম্পানিগুলি সমস্যায় পড়েছে। তবে উল্লেখ্য যে সব ফোনে ইতিমধ্যেই টিকটক ডাউনলোড করা হয়েছে, তা এখন সক্রিয়। সোমবারই টিকটক সহ ৫৯টি চিনা অ্যাপকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছে কেন্দ্র সরকার।

তবে এই কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করে সংস্থাগুলি। এই বিষয়ে মুখও খুলেছে চিনা সংস্থাগুলি। অ্যাপগুলি নিষিদ্ধ হওয়ার বিষয়ে এবার সরকারের সঙ্গে কথা বলতে চলেছে এই সংস্থা। কেন অ্যাপ নিষিদ্ধ করা হল, তার ব্যাখ্যা চাওয়া হবে সরকারের কাছে বলে জানানো হয়েছে। এদিকে, সংস্থাগুলির কথা বলতে চাওয়ার দাবিকে মান্যতা দিয়ে বিশেষ প্যানেল তৈরি করেছে কেন্দ্র। সংস্থাগুলির নিজেদের বক্তব্য শুনবে এই প্যানেল।

জানানো হয়েছে ৪৮ ঘন্টার মধ্যে প্যানেলের কাছে নিজেদের বক্তব্য জমা দিতে হবে। এই প্যানেলে রয়েছেন আয়কর দফতর, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক, তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রক, আইন মন্ত্রক ও ইন্ডিয়ান কম্পিউটার এমার্জেন্সি রেসপন্স টিমের সদস্য ও আধিকারিকরা। এরই মধ্যে রাতারাতি অ্যান্ড্রয়েড ও আইওএস থেকে উধাও হয়ে গিয়েছে টিক টক। চিনা অ্যাপ নিষিদ্ধ কররা সিদ্ধান্ত নেওয়ার পরই এমন ঘটনা চোখে পড়েছে।

টিক টকের ভারতীয় শাখার প্রধান নিখিল গান্ধী একটি বিবৃতি প্রকাশ করেছেন। তিনি ট্যুইটারে লিখেছেন, ‘সরকারের তরফ থেকে টিক টক নিষিদ্ধ করা হয়েছে। আমাদের তরফ থেকে সরকারের সঙ্গে কথাবার্তা চলছে। ভারতীয় আইন মেনেই আমরা ডেটা সংরক্ষণ করি।

শর্টলিংকঃ

প্রিয় পাঠক, স্বভাবতই আপনি নানান ঘটনার সাক্ষী। শেয়ার করুন আমাদের। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের ইমেলে পাঠিয়ে দিন, [email protected] ঠিকানায়। অথবা যুক্ত হতে পারেন @silkcitynews.com আমাদের ফেসবুক পেজে। কোন এলাকা, কোন দিন, কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই দেবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।