প্রেমের কারণে মেয়ের বাবা কেড়ে নেয় স্কুল ছাত্র হাবিবের প্রাণ!

কাজী কামাল হোসেন, নওগাঁ :

প্রেমের কারণে মেয়ের বাবা কেড়ে নেয় নওগাঁর দশম শ্রেনীর স্কুল ছাত্র আহসান হাবিব (১৬) নামে  এক শিক্ষার্থীর প্রাণ । তার খুনের এক দিন পর এর কারণ তদন্ত করে খুজে পেলো পুলিশ। এঘটনায় পুলিশ ৪ জনকে গ্রেফতার করেছে।

 

শনিবার (২৭ অক্টোবর) বিকেল ৩ টায় এসপি অফিসের মিলনায়তনে প্রেস কনফারেন্সের মাধ্যমে হাবিব হত্যার ৪ আসামীকে গ্রেফতারের বিষয় নিশ্চিত করা হয়েছে।

 

এ সময় পুলিশ জানায়, বদলগাছী উপজেলার চকাবির গ্রামের আলম হোসেনের মেয়ে ফাতেমা আখতারের দীর্ঘদিন ধরে সম্পর্ক ছিল। এরই এক পর্যায়ে গত ২৫ আগষ্ট বিকেলে ফাতেমার রুমে চলে আসে হাবিব। আলম জানতে পেরে ফাতেমাকে রুম থেকে বের করে রুমে তালা দিয়ে ফাতেমাকে মামার বাসায় নিয়ে যাওয়া হয়। এ সময় ফাতেমা যেতে না চাইলে জোড় করে তাকে মামার বাসায় রেখে আসা হয়।

 

পরে সন্ধ্যায় ফাতেমার বাবা আলমসহ একই গ্রামের তসলিম, বুলু ও আমজাদ হোসেন হাবিবকে ফাঁকা মাঠে নিয়ে যায়। এরপর চারজন মিলে ধারালো অস্ত্রদিয়ে জবাই করে হত্যা করে হাবিবকে।

 

ফাতেমার বাবা আলম হোসেন অকপটেই স্বীকার করেন, তসলিম হাত, বুলু ও আমজাদ হোসেন পা ধরে ছিলো আর আমি গলায় চাকু চালিয়ে হত্যা করে শ্বশুর বাড়িতে গিয়েছিলাম।

 

ফাতেমা জানান, হাবিবের সঙ্গে আমার কোন দৈহিক সম্পর্ক ছিলোনা এবং সেই দিনও হয়েছিলো না। আমারা ভালো বন্ধু ছিলাম। ঘটনার দিন দু-জনে গল্প করছিলাম। এমন সময় আমার বাবা জানতে পেড়ে আমাকে মামার বাসায় রেখে আসে। আমি অনেক কষ্টে সন্ধ্যাই বাসায় এসে হাবিবকে আর রুমে দেখতে পাইনি। পরদিন সকালে পটল ক্ষেতে তার গলা কাটা লাশ পাওয়া যায়।

 

পুলিশ সুপার মোজাম্মেল হক সিল্কসিটি নিউজকে জানান, হাবিব হত্যার আসামীদেরকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাদের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ শেষে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।

 

উলেখ্য,  গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় উপজেলার কলাগ্রামের আনোয়ার হোসেনের ছেলে আহসান হাবিব নিখোঁজ হবারপর সকালে তার গলাকাটা লাশ পাশের পটল ক্ষেত থেকে উদ্ধার করে পুলিশ।

স/অ