পুলিশের সার্বিক কর্মকান্ড পরিচালনায় রাজশাহী হবে দেশের শ্রেষ্ঠ শহর: আরএমপি কমিশনার

  • 24
    Shares

নিজস্ব প্রতিবেদক:

রাজশাহী মেট্রোপলিটন পুলিশের (আরএমপি) কমিশনার আবু কালাম সিদ্দিক বলেছেন, ‘সেবামূলক ও উন্নয়নমুখী পুলিশ গড়তে চাই। জনগণের সেবা করার মাধ্যমে পুলিশ প্রশাসনের সার্বিক কর্মকান্ড পরিচালনায় রাজশাহী হবে দেশের শ্রেষ্ঠ শহর। এ জন্যই নিজস্ব কর্মকাণ্ডে দেশের অন্যান্য পুলিশ ইউনিটের চেয়ে আরএমপিকে একেবারেই আলাদাভাবে গড়ে তোলা হচ্ছে।’

জাতীয় সাংবাদিক সংস্থার ২৩তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী, রাজশাহী জেলা শাখার নির্বাচিত কমিটির অভিষেক ও বার্ষিক বোনভোজন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

এর আগে সংগঠনটির প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর কেক কেটে দিনব্যাপী অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন আরএমপি কমিশনার। এর পর রাজশাহী জেলা শাখায় বিজয়ীদের হাতে তিনি সম্মাননা স্মারক তুলে দেন। শনিবার (২০ ফেব্রুয়ারি) মহানগরীর শহীদ কামারুজ্জামান কেন্দ্রীয় উদ্যানের ৫নং পিকনিক স্পটে দিনব্যাপী অনুষ্ঠানের আয়োজন করে সংগঠনটি।

অনুষ্ঠানে আরএমপি কমিশনার বলেন, ‘জনগণের দৌড়গোড়ায় পুলিশের সেবা পৌছে দিতে এখানে যোগদান করেই সাংবাদিক কমিউনিটি, সামাজিক ও ব্যবসায়ীসহ বিভিন্ন সংগঠন ছাড়াও রাজশাহী শহরে বসবাসরত বিশিষ্টজনদের সাথে আলাদাভাবে মতবিনিময় করেছি, সকলের পরামর্শ শুনেছি। এর পর উত্থাপিত পরামর্শগুলো যাচায় বাছায় করে পরিকল্পনা গ্রহণ করেছি। আর গৃহীত পরিকল্পনাগুলো বাস্তবায়নের লক্ষ্যে ইতিমধ্যে বিভিন্ন কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে। পরিকল্পনাগুলো বাস্তবায়িত হলে সারা দেশের মধ্যে আরএমপি একটি মডেল ইউনিট হিসেবে প্রতিষ্ঠা লাভ করবে বলে আমি বিশ্বাস করি।’

আরএমপি কমিশনার আবু কালাম সিদ্দিক বলেন, ‘অপরাধমুক্ত প্রযুক্তিনির্ভর সর্বাধুনিক পুলিশ ইউনিট হিসেবে আরএমপিকে গড়ে তুলতে চাই। নগরবাসীকে অপরাধীদের ভয়ে আর শঙ্কিত থাকতে হবেনা। মাদক, জঙ্গীবাদ ও সন্ত্রাসীমূলক কোন কর্মকান্ড আমি থাকা অবস্থায় এখানে কেউ পরিচালনা করতে পারবেনা। নিরাপত্তার দিক থেকে রাজশাহী হবে আধুনিক শহর। পরিকল্পনা বাস্তবায়নের পর এখানকার অপরাধীরা হয় অপরাধ কর্মকান্ড ছেড়ে দেবে, নয়তো তাদের এই শান্তির শহর ছাড়তে হবে। এ লক্ষ্যে মহানগরীর ৫০০ তরুণ ও কিশোরীদের প্রশিক্ষিত করার উদ্যোগ নিয়েছি। আরএমপির সাইবার ইউনিটসহ আধুনিক সব পুলিশি কার্যক্রম পরিচালনা করা হচ্ছে। গোটা শহরকে সিসি ক্যামেরার অন্তর্ভূক্ত করা হচ্ছে। আমি থাকা অবস্থায় এ শহরে ধর্ষণ ও নারী নির্যাতনের ঘটনা ঘটতে দেব না। মহানগরবাসীর সহযোগিতায় রাজশাহীকে আমরা শান্তির শহর হিসেবেই গড়ে তুলবো।’

পুলিশ কমিশনার আরো বলেন, ‘ধর্ষণ ও নারী নির্যাতন প্রতিরোধে বিভিন্ন পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে। পাশাপাশি সকলের মাঝে ধর্মীয় মূল্যবোধ জাগ্রত করার লক্ষ্যে কার্যকরি পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে। আর খেলাধুলার মধ্য দিয়ে তরুণদের খারাপ কাজ থেকে দূরে সরিয়ে আনতে হবে। সন্তানদের মাঝে ধর্মীয় মূল্যবোধ জাগ্রত করার লক্ষ্যে অভিভাবকদেরকে সবচেয়ে বড় ভূমিকা পালন করতে হবে। তাহলে সমাজ অপরাধমুক্ত হবে।’

জাতীয় সাংবাদিক সংস্থার প্রধান নির্বাচন কমিশনার দৈনিক সোনালী সংবাদের সম্পাদক আলহাজ্ব মো. লিয়াকত আলী সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন, আরএমপির অতিরিক্ত কমিশনার সুজায়েত ইসলাম, মহানগর পুলিশের বোয়ালিয়া জোনের উপ-কমিশনার (ডিসি) সাজিদ হোসেন, সাংবাদিক সংস্থার নির্বাচন কমিশনার রাজশাহী সিটি প্রেসক্লাবের সভাপতি মোহাম্মদ জুলফিকার, নির্বাচন কমিশনার উত্তরা প্রতিদিন পত্রিকার সম্পাদক আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ বাবলু ও অনলাইন পের্টাল পদ্মা টাইমস্্-এর প্রকাশক মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মো. আজিজুল আলম বেন্টু।

জাতীয় সাংবাদিক সংস্থা রাজশাহী জেলা শাখার সভাপতি রফিক আলমের সঞ্চালনা ও পরিচালনায় বোনভোজনে ১২টি খেলায় বিজয়ীদেরকে পুরুস্কৃত করা হয়। এতে রাজশাহী জেলা ও উপজেলা কমিটি তাদের পরিবার নিয়ে অংশগ্রহন করে।

শর্টলিংকঃ

প্রিয় পাঠক, স্বভাবতই আপনি নানান ঘটনার সাক্ষী। শেয়ার করুন আমাদের। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের ইমেলে পাঠিয়ে দিন, silkcitynews@gmail.com ঠিকানায়। অথবা যুক্ত হতে পারেন @silkcitynews.com আমাদের ফেসবুক পেজে। কোন এলাকা, কোন দিন, কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই দেবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।