পরকীয়ায় জড়িয়ে মেয়েকে হত্যা মায়ের; দুই বছর পর প্রেমিক গ্রেফতার

নিউজ ডেস্ক
  • 17
    Shares

গাজীপুরে পরকীয়ায় জড়িয়ে নিজের শিশু সন্তানকে গলাটিপে হত্যা করে ডোবায় কচুিরপানার মধ্যে ফেলে দেয় মা। পরে পুলিশ তাকে আটক করে। তবে দুই বছর পর এ মামলার অন্যতম আসামি ওই শিশুটির মায়ের প্রেমিককে বৃহস্পতিবার ঢাকার তেজগাঁও নাখালপাড়া এলাকা থেকে গ্রেফতার করে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)।

গ্রেফতারকৃতের নাম মো. ইব্রাহিম (৪০)। সে নোয়াখালী জেলার সুধারাম থানার দূর্গানগর এলাকার রশিদের ছেলে।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা গাজীপুর পিবিআইয়ের পরিদর্শক রুহুল আমিন জানান, ২০১৮ সালের ৩ সেপ্টেম্বর বেলা সাড়ে ১২টার দিকে তৎকালীন গাজীপুর জেলার জয়দেবপুর থানার কুনিয়া মধ্যপাড়া এলাকায় জনৈক মোজ্জাম্মেলের বাড়ির ভাড়াটিয়া আমেনা বেগমের (২২) শিশু কন্যা মার্জিয়া (৯ মাস) এর লাশ পার্শ্ববর্তী ডোবার পানিতে পাওয়া যায়। তাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে পানিতে ফেলা হয়েছিল।

এ ব্যাপারে জয়দেবপুর থানায় মামলা হয়। জয়দেবপুর থানা তদন্তকালে পরকীয়া প্রেমের কারণে উক্ত হত্যাকাণ্ডটি হয়েছে বলে বলা হয়। জয়দেবপুর থানা পুলিশ মামলাটি তদন্ত শেষে এজাহারানামীয় পলাতক ২নং আসামি ইব্রাহিমকে (৪০) শনাক্ত ও গ্রেফতার করতে না পেরে তাকে মামলা হতে অব্যাহতি দিয়ে এবং প্রধান আসামি শিশুটির মা আমেনা বেগমকে (২২) গ্রেফতার পূর্বক অভিযুক্ত করে আদালতে অভিযোগপত্র দেয়। আদালত অভিযোগপত্র গ্রহণ না করে অধিকতর তদন্তের জন্য পিবিআই গাজীপুর জেলাকে তদন্তের নির্দেশ দেন। পরে তিনি মামলাটি তদন্ত করেন।

গ্রেফতারকৃত আসামি ইব্রাহিম বৃহস্পতিবার আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী প্রদান করে।

আসামি ইব্রাহিম হত্যাকাণ্ডের বর্ণনা করে জানায়, ২০১৮ সালে আগস্ট মাসে শিশুটির মা আমেনার (২২) সাথে তার পরিচয় হয় এবং পরকীয়া প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। আমেনার একটি ৯ মাস বয়সী কন্যা সন্তান ছিল। তার নাম মার্জিয়া। পরকীয়ার জেরে আসামি ইব্রাহিম আমেনাকে তার শিশু কন্যাসহ ময়মনসিংহ জেলার তারাকান্দা থানার পোঙ্গাইল এলাকায় তার স্বামী মো. আল আমিনের বাড়ি হতে ভাগিয়ে এনে ঘটনাস্থল কুনিয়াতে স্বামী স্ত্রীর পরিচয় দিয়ে ঘর ভাড়া করে বসবাস করতে থাকে। ঘটনার দিন সকালে আসামি ইব্রাহিম আমেনাকে বলে, ‘তোমার মেয়ের একটা ব্যবস্থা কর, তা না হলে তাদের বিয়ে করতে অসুবিধা হবে’।

আমেনা তাকে বলে, সে ব্যবস্থা করতেছে। তারপর তারা দুই জনে শলাপরামর্শ করে। আমেনা তার মেয়ে মার্জিয়াকে গলা টিপে মেরে বাসার পাশেই কচুরি পানার ডোবায় ফেলার সময় আশপাশের লোকজন তা দেখে ফেলায় আমেনাকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করে এবং আসামি ইব্রাহিম (৪০) পালিয়ে যায়। এরপর থেকে আসামি ইব্রাহিম পলাতক থাকে। পরে তাকে বৃহস্পতিবার ঢাকা তেজগাঁও এলাকা থেকে ঘটনার প্রায় দুই বছর পর গ্রেফতার করা হয়। সূত্র: বাংলাদেশ প্রতিদিন

শর্টলিংকঃ

প্রিয় পাঠক, স্বভাবতই আপনি নানান ঘটনার সাক্ষী। শেয়ার করুন আমাদের। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের ইমেলে পাঠিয়ে দিন, [email protected] ঠিকানায়। অথবা যুক্ত হতে পারেন @silkcitynews.com আমাদের ফেসবুক পেজে। কোন এলাকা, কোন দিন, কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই দেবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।