ধামইরহাটে স্বেচ্ছাশ্রমের মাধ্যমে রাস্তা মেরামত

নিউজ ডেস্ক


ধামইরহাট  প্রতিনিধিঃ
নওগাঁর ধামইরহাটে স্বেচ্ছাশ্রমের মাধ্যমে জনগণের চলাচলের এক গুরুত্বপূর্ণ রাস্তা মেরামত করা হয়েছে। এ রাস্তা মেরামত কাজে স্থানীয় চিরি পাড়ের যুব সমাজ নামে স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাত্ররা অংশ গ্রহণ করেন। গুরুত্বপূর্ণ এ রাস্তা সংস্কার করায় এলাকাবাসী দূর্ভোগের হাত থেকে রক্ষা পেয়েছে।

জানা গেছে,উপজেলার জাহানপুর ইউনিয়নের একটি গুরুত্বপূর্ণ সড়ক মঙ্গলবাড়ী-সাহাপুর। এ সড়কের বিকন্দখাস এলাকায় একটি বাজার রয়েছে। এ বাজারে প্রতিদিন শত শত মানুষ তাদের নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যসামগ্রী ক্রয় বিক্রয় করেন।

সোনারপাড়া গ্রাম থেকে বিকন্দখাস বাজারের প্রবেশ মুখে প্রায় ৬০-৭০ ফুট রাস্তা কাদায় পরিপূর্ণ হওয়ার জনদূর্ভোগ চরম আকার ধারণ করে। দির্ঘদিন ধরে অতি বৃষ্টির কারণে পরিস্থিতি জটিল আকার ধারণ করে। জনগণের দুর্ভোগ লাঘবে স্থানীয় স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন চিরি পাড়ের যুব সমাজের উদ্যোগে ওই রাস্তায় ইটের খোয়া ও বালু ফেলে জনগণের চলাচল উপযোগি করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে চিরি পাড়ের যুব সমাজ এর সভাপতি মো.আবাবিল বলেন,প্রায় ৬০ ফুট দৈঘ্য ও ১৫ ফুট প্রশস্ত রাস্তাটি দির্ঘদিন ধরে কাদায় পরিপূর্ণ হওয়ার আমাদের সংগঠনের পক্ষ থেকে ইটের ও বালু দিয়ে ওই রাস্তা মেরামত করা হয়েছে।

এ কাজে সহায়তা করেছেন চিরি পাড়ের যুব সমাজের সাধারণ সম্পাদক মো.মাবুদ হোসেন,সংগঠনের সদস্য রাসেল,ফিরোজ, হাবিব,তাফছিসহ আরও ১০-১২ জন। এছাড়া চলতি বর্ষা মওসুমে আমাদের সংগঠনের পক্ষ থেকে ভাতকুন্ডু এবং ইসবপুর ইউনিয়নের কাজিমাখনা মসজিদের সামনের রাস্তা সংস্কার করা হয়েছে।

বিকন্দখাস বাজারের সার ও কীটনাশক বিক্রেতা মো.আনিছুর রহমান বলেন,বাজারের প্রবেশমুখ কাদায় পরিপূর্ণ থাকায় ক্রেতা-বিক্রেতাকে অনেক কষ্ট করতে হয়েছে।

এখন রাস্তাটি চলাচল উপযোগি হওয়ায় আমরা খুশি। ছোট শিবপাড়া গ্রামের কৃষক মো.এজাজুল হক বলেন,দির্ঘদিন ধরে রাস্তাটি আমাদেরকে ভুগিয়েছে। জমিতে উৎপাদিন পণ্য বাজারে আনতে গিয়ে আমরা কৃষকরা অনেক কষ্ট করেছি। ছেলেদের কারণে আমাদের সমস্যা সমাধান হয়েছে।

এব্যাপারে এলজিইডি ধামইরহাট উপজেলা প্রকৌশলী মো.আলী হোসেন বলেন,এক সাথে সকল সড়ক মেরামত বা সংস্কার করা সরকারের পক্ষে সম্ভব নয়। চিরি পাড়ের যুব সমাজ যে কাজটি করেছে নিঃসন্দেহে প্রশংসারযোগ্য এবং অনুকরণীয়। সকলে নিজেদের স্বার্থে দেশের কল্যাণে এগিয়ে আসলে প্রকৃত সোনার বাংলা গড়তে কোন সমস্যা হতো না।

স/আ.মি

 

শর্টলিংকঃ

প্রিয় পাঠক, স্বভাবতই আপনি নানান ঘটনার সাক্ষী। শেয়ার করুন আমাদের। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের ইমেলে পাঠিয়ে দিন, [email protected] ঠিকানায়। অথবা যুক্ত হতে পারেন @silkcitynews.com আমাদের ফেসবুক পেজে। কোন এলাকা, কোন দিন, কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই দেবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।