ট্রেনে আগুনের ফুলকি! যাত্রীদের চিৎকারে থামালেন চালক

ট্রেনের চাকায় আগুনের ফুলকি দেখে চিৎকার দেয় যাত্রীরা। যাত্রীদের চিৎকারে ট্রেন থানান চালক। ত্রুটি ঠিক করতে ট্রেনটি আবারো ফেরত যায় স্টেশনে। এক ঘণ্টা পর স্টেশন থেকে আবারো ছেড়ে যায় গন্তব্যে।

ঢাকা থেকে নোয়াখালীগামী আন্তঃনগর উপকুল এক্সপ্রেসে কিশোরগঞ্জের ভৈরব রেল স্টেশনে এ ঘটনা ঘটে।স্টেশনের আউটার সিগন্যালের পৌঁছালে চাকায় আগুনের ফুলকি দেখে যাত্রীরা।

ভৈরব স্টেশন সুত্রে জানা যায়, বুধবার উপকুল এক্সপ্রেস ট্রেনটি ঢাকা থেকে ৩টা ২০ মিনিটে নেয়াখালীর উদ্দ্যেশ্যে ছেড়ে আসে। বিকেল ৫টা ১৫ মিনিটে ভৈরব স্টেশনে যাত্রা বিরতি করে। পাঁচ মিনিট বিরতির পর ট্রেনটি গন্তব্যের উদ্দ্যেশ্যে রওনা দেয়। ট্রেনটি স্টেশনের আউটার সিগন্যালের কাছে পৌঁছাতেই ট্রেনের চাকায় আগুনের ফুলকি দেখে যাত্রীরা। এ সময় যাত্রীদের চিৎকারে ট্রেন থামান চালক। পরে পুনরায় ট্রেনটিকে স্টেশনে নিয়ে আসেন তিনি।

ভৈরব রেলওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. ফেরদাউস আহমেদ বিশ্বাস বলেন, যাত্রীদের নিরাপত্তা দিতে রেলওয়ে পুলিশ ও রেলওয়ে নিরাপত্তাবাহিনীসহ স্টেশনের বিভিন্ন কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

ভৈরব স্টেশন মাস্টার এ কে এম কামরুজ্জামান জানান, ট্রেনটি ঢাকা থেকে ছেড়ে আসার পর স্বাভাবিকভাবেই ভৈরব স্টেশন পর্যন্ত পৌঁছে। স্টেশন থেকে ট্রেনটি ছেড়ে যাওয়ার পর চাকায় আগুনের ফুলকি দেখা দেয়। পরে চালক ট্রেনটিকে স্টেশনৈর প্লাটফরমে নিয়ে আসার পর ত্রুটি ঠিক করে ৬টা ২০ মিনিটে পুনরায় গন্তব্যে ছেড়ে যায়।

 

সুত্রঃ কালের কণ্ঠ

শর্টলিংকঃ

প্রিয় পাঠক, স্বভাবতই আপনি নানান ঘটনার সাক্ষী। শেয়ার করুন আমাদের। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের ইমেলে পাঠিয়ে দিন, silkcitynews@gmail.com ঠিকানায়। অথবা যুক্ত হতে পারেন @silkcitynews.com আমাদের ফেসবুক পেজে। কোন এলাকা, কোন দিন, কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই দেবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।