জিনজিয়াংয়ে সম্পূর্ণ সঠিক কাজটিই করা হচ্ছে : শি জিনপিং

দেশের একেবারে পশ্চিমাঞ্চলীয় প্রদেশ জিনজিয়াংয়ে তার সরকারের গৃহীত নীতি সম্পূর্ণ সঠিক বলে মনে করেন চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং। অথচ প্রদেশটির উইঘুর মুসলিমসহ সংখ্যালঘুদের মানবাধিকার লঙ্ঘনসহ গণহারে অন্তরীণ করে পুনঃশিক্ষা কার্যক্রম নিয়ে আন্তর্জাতিক পরিসরে সমালোচনা দিন দিন বাড়ছেই।

চীনের মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠদের প্রদেশ জিনজিয়াংয়ে বিশ লাখ উইঘুর ছাড়াও অন্যান্য সংখ্যালঘু জাতিসত্তার মানুষগুলোকে সাম্প্রতিক কয়েক বছর ধরে বন্দিশিবিরে আটকে রাখা হয়েছে। তাদের সেখানে ‘রাজনৈতিক দীক্ষা’ দেয়া হচ্ছে এবং মৌলবাদ দমনের নামের তাদের বিরুদ্ধে চালানো হচ্ছে অমানবিক নির্যাতন।

মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনএন এক অনলাইন প্রতিবেদনে জানিয়েছে, শনিবার শেষ হওয়া জিনজিয়াংয়ে দুই দিনের একটি সম্মেলনে যোগ দিয়ে চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং বলেন, ‘জিনজিয়াংয়ে চীনের কৌশল সম্পূর্ণ সঠিক এবং দীর্ঘমেয়াদে অবশ্যই এই কৌশল সেখানে জারি থাকা প্রয়োজন।’

দেশটির রাষ্ট্রায়ত্ত সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদন অনুযায়ী জিনপিং আরও বলেন, ‘দলের সবাইকে অবশ্যই জিনজিয়াং কৌশল কার্যকর করার বিষয়টিকে রাজনৈতিক দায়িত্ব হিসেবে মনে করতে হবে এবং সেখানে কার্যকরভাবে সঠিক রাজনৈতিক পরিস্থিতি তৈরির জন্য কঠোর দায়িত্ব নিয়ে কাজ করতে হবে সবাইকে।’

জিনপিং এ ব্যাপারে স্পষ্ট নির্দেশনা দিয়ে বলেন, ‘এই অঞ্চলের (জিনজিয়াং) টেকসই উন্নয়ন অর্জন করতে হলে আমাদেরকে অবশ্যই ইসলামকে চীনাকরণ করতে হবে। জিনজিয়াংয়ের গল্পটি বহু-স্তরের, সর্বাত্মক এবং ত্রি-মাত্রিক পদ্ধতিতে বলা এবং সেখানে দুর্দান্ত সামাজিক স্থিতিশীলতার আত্মবিশ্বাসের সঙ্গে প্রচার করা দরকার’

গণহারে আটকে রেখে নির্যাতন চালিয়ে ধর্মীয় ও রাজনৈতিক চেতনা পাল্টানোর আগে থেকেই নানামুখী চাপে রয়েছেন জিনজিয়াংয়ের মুসলিমরা। এসব মানুষকে তাদের ধর্ম পালনে নানা বিধিনিষেধ আরোপ করে রেখেছে সরকার। দাড়ি রাখতে কিংবা বোরকা পরতে পারেন না মুসলিমরা। এমন রোজা না রাখতেও চাপ দেয়া হয়।

 

সূত্রঃ জাগো নিউজ

শর্টলিংকঃ

প্রিয় পাঠক, স্বভাবতই আপনি নানান ঘটনার সাক্ষী। শেয়ার করুন আমাদের। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের ইমেলে পাঠিয়ে দিন, [email protected] ঠিকানায়। অথবা যুক্ত হতে পারেন @silkcitynews.com আমাদের ফেসবুক পেজে। কোন এলাকা, কোন দিন, কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই দেবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।