চীনের বিরুদ্ধে যেভাবে লড়েছিল ইন্দো-তিব্বত সীমান্ত বাহিনী

লাদাখের গালওয়ান উপত্যকায় সাহসিকতার সঙ্গে লড়াই করার জন্য ইন্দো-তিব্বত সীমান্ত বাহিনী (আইটিবিপি) তাদের সদস্যদের প্রশংসা করেছে। চলতি বছরের জুন মাসে প্রায় ২০ ঘণ্টা ধরে চীনা সেনাদের সঙ্গে লড়াই চালায় আইটবিপি সদস্যরা।

শুক্রবার প্রথম গালওয়ান সংঘর্ষ নিয়ে মুখ খোলে আটিবিপি। এক বিবৃতিতে বাহিনীটি জানিয়েছে, পূর্ব লাদাখে ভারতের জমিতে চীনা হানাদারদের প্রবেশ করতে দেয়নি তাদের সেনারা। গালওয়ান উপত্যকায় পরিস্থিতি এমন জায়গায় পৌঁছে গিয়েছিল যে, একনাগাড়ে প্রায় ২০ ঘণ্টা পর্যন্ত লড়াই করতে হয়েছে জওয়ানদের।

পাহাড়ি অঞ্চলে লড়াইয়ের প্রশিক্ষণ ও অভিজ্ঞতার জেরে ভারতীয় আধা-সামরিক বাহিনীটির কাছে রীতি মতো বেকায়দায় পড়েছিল চীনা সৈনিকরা। ভারতীয় বাহিনীর সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখায় সংঘর্ষস্থল থেকে আহত সেনাদেরও উদ্ধার করেন আইটিবিপির সদস্যরা। এমন সাহসিকতা ও চীনা ফৌজের হামলা রুখে দেওয়ার জন্য ২৯৪ জন সেনাকে সম্মানিত করা হচ্ছে।

প্রায় ৯০ হাজার জওয়ান নিয়ে গঠিত আইটিবিপি। মূলত চীনের সঙ্গে সাড়ে তিন হাজার লম্বা প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখার সুরক্ষায় মোতায়েন থাকে তারা। লাদাখের কারাকোরাম গিরিপথ থেকে শুরু করে অরুণাচল প্রদেশের জাচেপ লা পর্যন্ত সীমান্তের নজরদারি করে ভারতের এই আধা-সামরিক বাহিনীটি।

ফলে পাহাড়ি অঞ্চলে লড়াই ও পাল্টা হামলায় অভিজ্ঞ টিবিপি জওয়ানরা। তাই পাথর ও রড নিয়ে আচমকা হামলা চালালেও সুবিধা করে উঠতে পারেনি চীসনের সেনারা।

ভারত-চীন সংঘর্ষের ইতিহাসে অন্যতম রক্তাক্ত অধ্যায় গালওয়ান উপত্যকা । গত জুন মাসের ১৫ তারিখ চীনের সেনাদের সঙ্গে সংঘর্ষে সেখানেই নিহত হন ভারতীয় ২০ জওয়ান।

 

সূত্রঃ কালের কণ্ঠ

শর্টলিংকঃ

প্রিয় পাঠক, স্বভাবতই আপনি নানান ঘটনার সাক্ষী। শেয়ার করুন আমাদের। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের ইমেলে পাঠিয়ে দিন, silkcitynews@gmail.com ঠিকানায়। অথবা যুক্ত হতে পারেন @silkcitynews.com আমাদের ফেসবুক পেজে। কোন এলাকা, কোন দিন, কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই দেবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।