চাঁপাইনবাবগঞ্জে থানা হাজতে রিমান্ডে থাকা আসামির মৃত্যু, ময়নাতদন্ত শেষে লাশ হস্তান্তর

নিজস্ব প্রতিবেদক, চাঁপাইনবাবগঞ্জ :

চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর মডেল থানায় রিমান্ডে থাকা হেরোইন মামলার আসামী আফসার আলীর ময়নাতদন্ত আজ মঙ্গলবার আধুনিক সদর হাসপাতালে সম্পন্ন হয়েছে।

আফসার আলী হচ্ছেন চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌরসভার টিকরামপুর মধ্যপাড়ার মোহাসিন আলীর ছেলে। সোমবার সন্ধ্যায় চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর হাসপাতালে তার মৃত্যু হয়েছে। পুলিশের দাবি সে আত্মহত্যা করেছে।

এলাকাবাসী জানিয়েছে, আফসার আলী দীর্ঘদিন ধরে হেরোইনসহ বিভিন্ন মাদক ব্যবসা করে আসছিল। তবে সে এলাকায় খুব কম থাকতো। সে নিজেও মাদকাসক্ত ছিল বলে এলাকাবাসীর দাবি। তবে এই অভিযোগ অস্বীকার করেছেন তার স্ত্রী জুলেখা বেগম।

এদিকে সদর থানা পুলিশ ও হাসপাতাল সূত্র জানায়, রোববার (৫জুলাই) দুপুরে ১ কেজি ১৯৫ গ্রাম হেরোইনসহ সদর উপজেলার বাগডাঙ্গার শুকনাপাড়া এলাকার একটি আমবাগানের সামনে র‌্যাবের হতে ধরা পড়ে আফসার আলী। ওইদিনই মামলা দায়েরের পর সদর মডেল থানায় সোপর্দ করা হয় তাকে। পুলিশ গতকাল সোমবার তাকে আদালতে তুলে পাঁচদিনের রিমান্ড চাইলে আদালত একদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করে।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মাহবুব আলম খান জানান, সোমবার সন্ধ্যার দিকে আফসার আলীকে রিমান্ডে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় আনা হয়। এর কিছুক্ষণের মধ্যে সন্ধ্যা ৭ টা ২০ মিনিটের দিকে হাজতখানায় থাকা একটি স্ট্যান্ড ফ্যানের তার ছিঁড়ে তা দিয়ে ঝুলে আত্মহত্যার চেষ্টা করে সে। সিসিটিভিতে সেই দৃশ্য দেখে পুলিশ সদস্যরা তাকে উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানে চিকিৎসা দিতে দিতেই মারা যায় আফসার।

এদিকে সদর হাসপাতালের দায়িত্বরত চিকিৎসক রোহানী আক্তার জানান, শ্বাসকষ্ট ও বুকে ব্যাথাজনিত কারণে আফসার আলীকে পুলিশ সদর হাসপাতালে নিয়ে আসে সন্ধ্যা ৭ টার কিছু পরে। প্রায় এক ঘণ্টা তাকে চিকিৎসা দেয়া হয়। চিকিৎসার এক পর্যায়ে তার মৃত্যু হয়। ঘটনার পর অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট জাকিউল ইসলাম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

আজ মঙ্গলবার ময়নাতদন্ত শেষে তার পরিবারের কাছে লাশ হস্তান্তর করা হয়েছে।

স/অ

শর্টলিংকঃ

প্রিয় পাঠক, স্বভাবতই আপনি নানান ঘটনার সাক্ষী। শেয়ার করুন আমাদের। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের ইমেলে পাঠিয়ে দিন, silkcitynews@gmail.com ঠিকানায়। অথবা যুক্ত হতে পারেন @silkcitynews.com আমাদের ফেসবুক পেজে। কোন এলাকা, কোন দিন, কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই দেবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।