গরম কমলে লোড শেডিংও কমে যাবে : বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী


সিল্কসিটি নিউজ ডেস্ক: 

বিদ্যুতের চাহিদা কমলে লোড শেডিং কমবে জানিয়ে বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেছেন, জ্বালানি পাওয়ার জন্য অতিরিক্ত অর্থ দরকার, সেই পরিমাণ অর্থ আমাদের বাজেটে নেই। আমাদের কাছে নেই। তবে তাপমাত্রা কমলে চাহিদা কমে যাবে। চাহিদা কমলে বিদ্যুৎ ব্যবস্থাপনা করতে পারব। জ্বালানি ঠিক মতো না পেলে লোড শেডিং কমানো সম্ভব নয়।

মঙ্গলবার (১১ অক্টোবর) সচিবালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে প্রতিমন্ত্রী এ কথা বলেন।

লোড শেডিংয়ের বর্তমান পরিস্থিতি প্রসঙ্গে জানতে চাইলে তিনি বলেন, পরিস্থিতি খারাপের দিকে যাচ্ছে, এটা সত্যি কথা। তবে বেশি খারাপের দিকে যাচ্ছে না। আমাদের ধারণা ছিল অক্টোবরের দিকে বিদ্যুতের চাহিদাটা কমে আসবে। কারণ তখন আবহাওয়াটা ঠান্ডা হয়ে যাবে। কমের মধ্যে আমরা এটা ম্যানেজ করতে পারব। আমরা জ্বালানি আনতে পারছি না, আমাদের বিদ্যুৎ কেন্দ্র বসে আছে।

নসরুল হামিদ বলেন, আমাদের ৭ হাজার মেগাওয়াটের বিদ্যুৎকেন্দ্র আছে, যেগুলো তেলে চলে। ১১ হাজার মেগাওয়াট রয়েছে গ্যাসভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র। বাকি সোলার বা বিদেশ থেকে আনছি। সবকিছু মিলিয়ে আমাদের (বিদ্যুৎ উৎপাদন সক্ষমতা) সাড়ে ৩ হাজার/৪ হাজার মেগাওয়াট। পুরো সিস্টেমের মধ্যে ৫ হাজার মেগাওয়াট গ্যাসে চালাতে পারছি।

তিনি বলেন, মনে করেছিলাম অক্টোবরে চাহিদা কমে আসবে। কিন্তু আবহাওয়ার যে অবস্থা, যে পরিমাণ গরম। চাহিদা আগের মতোই রয়ে গেছে। এটা একটা বড় বিষয়। আমি আশা করেছিলাম গ্যাসের দাম কমে আসবে বিশ্বব্যাপী, কিছুটা কমেছে স্পট মার্কেটে, তাও অনেক বেশি। যে গ্যাস ৫ ডলারে কিনতাম সেটা ২৮ ডলার হয়েছে। যেটা গত মাসের আগের মাসে ছিল ৪৭ ডলার। কমার পরও আমার জন্য তো এটা বেশি।

তিনি আরো বলেন, শিল্পকারখানায় গ্যাস সরবরাহ করতে গিয়ে বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলো সংকটে পড়েছে। এ খাতে বিদ্যুৎ সরবরাহ করার কারণে সক্ষমতা থাকলেও বিদ্যুৎ উৎপাদন করা যাচ্ছে না বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

সূত্র: কালের কণ্ঠ