করোনা : রাজশাহী বিভাগে শতাধিক মৃত্যুসহ শনাক্ত ৮ হাজার ছাড়িয়েছে

নিউজ ডেস্ক
  • 53
    Shares
ছবিতে রাজশাহী বিভাগের আটটি জেলার মানচিত্র

নিজস্ব প্রতিবেদক :
রাজশাহী বিভাগে ৮ হাজার ছাড়িয়েছে করোনা শনাক্ত রোগীর সংখ্যা। এদিকে গত ২৪ ঘন্টায় আরো ২ জনের প্রাণ কেড়ে নিয়েছে করোনাভাইরাস। আর এই সময়ের মধ্যে নতুন শনাক্ত হয়েছে আরো ২৩৯ জন। এনিয়ে বিভাগে মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা এখন ৮ হাজার ২৫ জন।

আজ শুক্রবার (১০ জুলাই) রাজশাহীর বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক ডা. গোপেন্দ্রনাথ আচার্য্য এই তথ্য নিশ্চিত করেন। তিনি জানান, বিভাগের বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছে ৭২৯ জন। ২৪ ঘন্টায় আরো ১৮৮ জনসহ মোট সুস্থদের সংখ্যা এখন ৩ হাজার ৬১ জন। আক্রান্তদের মধ্যে মারা গেছেন মোট ১০৭ জন।

গত ২৪ ঘন্টায় ৮টি জেলার মধ্যে বগুড়া জলোয় সর্বোচ্চ ৫৭ জন শনাক্ত হয়েছে। এছাড়া রাজশাহীতে ৫৪ জন, সিরাজগঞ্জে ৪২, চাঁপাইনবাবগঞ্জে ৩৫ জন, নওগাঁয় ৩৯ ও নাটোরে ৭ জন শনাক্ত হয়েছেন।


আরও পড়ুন : রাজশাহীর যে ৫৪ জনের করোনা শনাক্ত হলো আজ


রাজশাহী বিভাগের ৫টি ল্যাবে করোনা আক্রান্তদের শনাক্তে নমুনা পরীক্ষা করা হচ্ছে। এর মধ্যে রাজশাহী জেলায় দুইটি, বগুড়া জেলায় দুইটি ও সিরাজগঞ্জে একটি। এই ৫টি ল্যাবে বিভাগের ৮টি জেলার সন্দেহভাজন করোনা আক্রান্তদের শনাক্তে নমুনা পরীক্ষা করা হচ্ছে। পাবনার ল্যাবটি চালুর পর্যায়ে রয়েছে।

জানা গেছে, বিভাগের সর্বোচ্চ আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছে বগুড়া জেলায়। সেখানে আক্রান্তের সংখ্যা ৩ হাজার ৬০৮ জন। পরের অবস্থানে রয়েছে রাজশাহী জেলা। সেখানে শনাক্তের সংখ্যা ১ হাজার ৪৬৯ জন। তৃতীয় অবস্থানে সিরাজগঞ্জে শনাক্ত হয়েছে ৭৮৬ জন।

এছাড়া নওগাঁ জেলায় ৬২৬, চাঁপাইনবাবগঞ্জে ১৫৭ জন, নাটোরে ২৬৪ জন, পাবনা ৫৯৯ জন এবং জয়পুরহাটে ৫১৬ জন করোনা আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছে।

বিভাগে করোনা আক্রান্ত মোট ১০৭ জন মারা গেছেন। মৃতদের মধ্যে, রাজশাহী জেলায় ১৩জন, বগুড়ায় ৬৬, পাননায় ৯, নওগাঁয় ৯, সিরাজগঞ্জে ৯ জন এবং নাটোরে মোট ১জন করোনা আক্রান্ত রোগী মারা গেছেন। চাঁপাইনবাবগঞ্জ ও জয়পুরহাট জেলায় এখন পর্যন্ত করোনা আক্রানস্ত কোন রোগী মারা যায়নি বলছে স্বাস্থ্য বিভাগের তথ্য।

স/রা

শর্টলিংকঃ

প্রিয় পাঠক, স্বভাবতই আপনি নানান ঘটনার সাক্ষী। শেয়ার করুন আমাদের। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিও আমাদের ইমেলে পাঠিয়ে দিন, [email protected] ঠিকানায়। অথবা যুক্ত হতে পারেন @silkcitynews.com আমাদের ফেসবুক পেজে। কোন এলাকা, কোন দিন, কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই দেবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।