আ.লীগের কার্যালয়ে বিরোধী দল গঠন হয়: শমসের মবিন

সিল্কসিটি নিউজ ডেস্ক :
শুক্রবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) জাতীয় প্রেসক্লাবে আব্দুস সালাম হলে তৃণমূল বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান সাবেক মন্ত্রী ব্যারিস্টার নাজমুল হুদার প্রথম মৃত্যু বার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় এ অভিযোগ করেন তিনি।

বাংলাদেশের রাজনীতিকে অসুস্থ আখ্যায়িত করে শমসের মবিন চৌধুরী বলেন, সংসদের বিরোধী দল, দলের নেতা-উপনেতাকে হবে তার সিদ্ধান্ত আসে সরকারি দলের কার্যালয় থেকে। নির্বাচনের আগে প্রধান বিচারপতির বাসভবনে হামলাকারী জেল থেকে মুক্তি পেয়ে আওয়ামী লীগে চলে যায়।

দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে তৃণমূল বিএনপির চেয়ারপারসন শমসের এবং মহাসচিব তৈমুর আলম খন্দকারসহ দলটির ১৩৫ প্রার্থীর সবারই মনোনয়ন বাজেয়াপ্ত হয়েছে।

এ বিষয়ে শমসের মবিন জানান, তৃণমূল বিএনপি আন্দোলনের অংশ হিসেবে ভবিষ্যতেও নির্বাচন করবে।

তিনি বলেন, কোনো দল রাতারাতি নির্বাচনে জয়লাভ করে না। যেহেতু তৃণমূল বিএনপি নির্বাচনমুখী আমরা ভবিষ্যতে নির্বাচনে যাব, আমরা নিজেদের মার্কা নিয়ে নির্বাচন করব। আমরা আগামী যুগের দিকে, আগামী প্রজন্মের দিকে তাকিয়ে আছি। আমরা সুস্থ রাজনীতি প্রতিষ্ঠান করতে চাই।

ব্যারিস্টার নাজমুল হুদার স্মরণে শমসের মবিন চৌধুরী বলেন, ‘সুস্থ রাজনীতি, সুশাসনের ভিত্তি’ স্লোগান নিয়ে তৃণমূল বিএনপি গঠন করেছিলেন নাজমুল হুদা। নিবন্ধের জন্য প্রথমে না করে দেওয়া হয়েছিল। তখন থেকেই একটা অসুস্থ রাজনীতি শুরু হয়েছ। নাজমুল হুদা আদালতের মাধ্যমে নিবন্ধন এনেছিলেন।

তৃণমূল বিএনপি একটি জাতীয় ঐক্য প্রতিষ্ঠায় উদ্যোগ গ্রহণ করবে বলে জানান দলটির মহাসচিব তৈমুর আলম খন্দকার।

তিনি বলেন, দেশের ভালো চায় এমন অনেকে রাজনৈতিক দল আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ করেছে। নির্বাচনেও আমরা অনেক জনসমর্থন পেয়েছি। আমরা তৃণমূল বিএনপি সুস্থ রাজনীতির পক্ষে একটি জাতীয় ঐক্য গঠনের উদ্যোগ নেব।

তৃণমূল বিএনপির এ নেতা বলেন, বাংলাদেশে কিছু তারিখ আছে, যেমন- ২১ আগস্ট, ৩ নভেম্বর এসব ঐতিহাসিক তারিখের কারণে বিএনপি ও আওয়ামী লীগের মধ্যে কোনোদিন ঐক্য হবে না। ফলে তারা কোনোদিন দেশে সুস্থ রাজনীতি প্রতিষ্ঠাও করতে পারবে না। আমরা নতুন প্রজন্মকে নিয়ে সুস্থ রাজনীতি প্রতিষ্ঠা করব।

তৃণমূল বিএনপির নির্বাহী চেয়ারপারসন অ্যাডভোকেট অন্তরা সেলিমা হুদার সভাপতিত্বে সভায় আরও বক্তব্য রাখেন দলটির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব আক্কাস আলী খান, ভাইস চেয়ারম্যান সালাম মাহমুদ, যুগ্ম মহাসচিব রোকসানা আমিন সুরমা, কৃষক-শ্রমিক পার্টির সভাপতি মো. সিরাজুল হক প্রমুখ।