শনিবার , ২০ মে ২০২৩ | ১লা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অন্যান্য
  2. অপরাধ ও দুর্নীতি
  3. অর্থ ও বাণিজ্য
  4. আইন আদালত
  5. আন্তর্জাতিক
  6. কৃষি
  7. খেলা
  8. চাকরি
  9. ছবিঘর
  10. জাতীয়
  11. তথ্যপ্রযুক্তি
  12. দুর্ঘটনা
  13. ধর্ম
  14. নারী
  15. নির্বাচিত খবর

আত্মীয় খোয়ালেন ১৯ লাখ : কষ্টের কথা জানালেন প্রধান বিচারপতি

Paris
মে ২০, ২০২৩ ২:১০ অপরাহ্ণ

সিল্কসিটি নিউজচ ডেস্ক :

প্রধান বিচারপতি বিচার বিভাগের অভিভাবক। তার নির্দেশে সুপ্রিম কোর্টসহ সারাদেশের আদালত পরিচালিত হয়। সেই প্রধান বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকীর এক আত্মীয় হাইকোর্টে এসে প্রতারণার শিকার হয়েছেন। এক মামলার রায়ের নকল সংগ্রহ করতে দুই আইনজীবী সহকারীকে এক লাখ ২০ হাজার টাকা দিয়েও এখনও পাননি রায়ের অনুলিপি। মামলার খরচ বাবদ আইনজীবীকেও দিতে হয়েছে ১৮ লাখ টাকা।

গত বৃহস্পতিবার (১৮ মে) সন্ধ্যায় সুপ্রিম কোর্ট লিগ্যাল এইডের এক আলোচনা অনুষ্ঠানে প্রধান বিচারপতি নিজেই সেই ঘটনার কথা তুলে ধরেন।

প্রধান বিচারপতি বলেন, আমি একটি কেসের ঘটনার কথা আপনাদের বলি, ‘এখানে সুপ্রিম কোর্ট বারের প্রেসিডেন্ট-সেক্রেটারি আছেন। তারা হয়তো অখুশি হতে পারেন। এখন থেকে ৭/৮ বছর আগে আমার এক দূর সম্পর্কের আত্মীয় সার্ভিস ম্যাটারে রিট করার জন্য আমার সাথে কথাবার্তা বললেন। আমি তাকে অ্যাডভাইস করলাম। বললাম দেখো এই মামলা-মোকাদ্দমা করতে যেও না। এই মামলা করো না। এই মামলাতে তুমি হেরে যাবে। এটা সার্ভিস ম্যাটার। কারণ বিষয়টা হাইকোর্ট ডিভিশনের এখতিয়ারভুক্ত ছিল না। কিন্তু সে আমাকে না জানিয়ে হাইকোর্টে মোকাদ্দমাটা করে। হাইকোর্ট তার পক্ষে রায়ও দেয়। রুল অ্যাবসুলুট (যথাযথ ঘোষণা) হয়। অ্যাবসুলুট হওয়ার পর সে আর নকল পায় না। অনেক দিন ঘুরে ঘুরে নকল যখন পাননি এক পর্যায়ে আমার সাথে দেখা করে। আমি তখন দেশের প্রধান বিচারপতি। এর আগে সে যে মামলা করেছে, রুল অ্যাবসুলুট হয়েছে কিছুই আমাকে বলেনি। কারণ আমি তাকে মামলা করতে বারণ করেছিলাম।’

প্রধান বিচারপতি বলেন, ‘সম্প্রতি আমার ব্রাদারদের (সহকর্মী বিচারপতি) কাছে গল্পটা করেছিলাম।’

‘পরিস্থিতিটা আপনাদের বোঝানোর জন্য বলছি। আমি তখন প্রধান বিচারপতি। একদিন সেই আত্মীয় আমার বাসায় গেছেন। আমি কাজ করছিলাম। বাসায় এসে সেই আত্মীয় দেখি কান্নাকাটি শুরু করেছে। আমি বললাম কান্নাকাটি করো কেন। তখন সে বললো আপনি তো মোকাদ্দমা করতে নিষেধ করেছিলেন। আমি মোকাদ্দমা করেছিলাম। মোকাদ্দমাতে জিতেছিও। কিন্তু দুই বছর হলো। মামলার রায়ের কপি এখনও পাইনি। আমি যে অ্যাডভোকেট এনগেজড করেছিলাম সেই অ্যাডভোকেট সাহেবের ক্লার্ককে ৪০ হাজার টাকা দিয়েছি মামলার নকল ওঠানোর জন্য। কিন্তু সে রায়ের নকল দিতে পারেনি। পরে আরেকজন লইয়ারের ক্লার্ককে বললাম তুমি নকলটা তুলে দিতে পারো? সে বলল খুবই পারি। কিন্তু নকল তুলতে পারেনি। এর মধ্যে ওই ক্লার্ক ৮০ হাজার টাকা নিয়ে নিয়েছে।’

প্রধান বিচারপতি বলেন, ‘আমি তাকে জিজ্ঞেস করলাম তুমি এ কেসের পারপাসে মোট কত টাকা খরচ করেছ? সে তখন বলছে আমি লইয়ারকে দিয়েছি ১৮ লাখ টাকা। আমি জিজ্ঞেস করলাম লইয়ার সাহেবের নাম কি? একজনের নাম বলল। কিন্তু সেই আইনজীবীর নাম আমি এর আগে শুনিনি, দেখিওনি। যারা প্র্যাকটিসিং লইয়ার তাদের সবাইকে তো আমার চেনার কথা। আর ১৮ লাখ টাকা যার ফি তাকে তো চিনবই। কিন্তু একে আমি চিনতে পারলাম না। ১৮ লাখ টাকা লইয়ার নিয়েছে। ৪০ হাজার টাকা তার ক্লার্ক নিয়েছে নকল তোলার জন্য। পরে নকল ওঠানোর জন্য আরেকজন ক্লার্ককে ধরেছে। সে আবার ৮০ হাজার টাকা নিয়েছে। কিন্তু মামলার নকল পাননি।’

প্রধান বিচারপতি প্রশ্ন রেখে বলেন, ‘আমি প্রধান বিচারপতি হিসেবে এই সমস্যাটা কীভাবে সমাধান করব? আপনারা বলেন তো দেখি। এটা সমস্যার একটা উদাহরণ দিলাম। এরকম সমস্যার মধ্যে আশার কথাও আছে।’

এরপর প্রধান বিচারপতি দুর্নীতির বিরুদ্ধে কঠোর হুঁশিয়ারি দেন।

তিনি বলেন, ‘কারো বিরুদ্ধে দুর্নীতির সুনির্দিষ্ট অভিযোগ যদি আমার কাছে আসে আমি অন্তত এক মিনিটও তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে অপেক্ষা করব না। সে যত উচ্চপদস্থ বিচার বিভাগীয় কর্মকর্তা হোক বা সুপ্রিম কোর্টের কর্মচারীই হোক। তার বিরুদ্ধে প্রসিডিং শুরু করতে এক মুহূর্ত অপেক্ষা করব না। কিন্তু যদি কারো বিরুদ্ধে সুনির্দিষ্ট অভিযোগ না আসে তাহলে কীসের ভিত্তিতে আমরা ব্যবস্থা নেব। যখন কারো দুর্নীতি হাতে নাতে ধরা হয় আমরা সঙ্গে সঙ্গে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিয়েছি।’

এ সময় আইনজীবীদের প্রতি আহ্বান জানিয়ে বলেন, ‘সুপ্রিম কোর্ট প্রশাসনে যদি দুর্নীতির সাথে কেউ জড়িত হন, কোনো প্রমাণ থেকে থাকলে আমাদেরকে সঙ্গে সঙ্গে জানাবেন। আমরা ব্যবস্থা নিতে পিছ পা হব না।’

সুপ্রিম কোর্ট লিগ্যাল এইড কমিটির চেয়ারম্যান বিচারপতি নাইমা হায়দারের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন আপিল বিভাগের বিচারপতি ওবায়দুল হাসান, বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম, বিচারপতি আবু জাফর সিদ্দিকী, বিচারপতি জাহাঙ্গীর হোসেন সেলিম, অ্যাটর্নি জেনারেল এ এম আমিন উদ্দিন, সুপ্রিম কোর্টের রেজিস্ট্রার জেনারেল মো. গোলাম রব্বানী, সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি মোমতাজ উদ্দিন ফকির, সম্পাদক আব্দুন নূর দুলাল, জ্যেষ্ঠ আইনজীবী খুরশিদ আলম খান।

সর্বশেষ - জাতীয়