বিদায় আর্জেন্টিনা

June 30, 2018 at 9:56 pm

সিল্কসিটিনিউজ ক্রীড়া ডেস্ক:

আক্রমণ-পাল্টা আক্রমণে জমে উঠেছিল আর্জেন্টিনা-ফ্রান্স লড়াই। কেউ কাউকে নাহি ছাড় দিতে চায়-এ নীতিতে এগিয়ে চলছিল খেলা। পরতে পরতে ছিল নাটক আর রোমাঞ্চের ছড়াছড়ি। কিন্তু শেষ পর্যন্ত রক্ষা হলো না আর্জেন্টিনার। ৪-৩ গোলে হেরে বিদায় নিল আর্জেন্টিনা।

১০ মিনিটে আবার আক্রমণে ওঠে ফ্রান্স। এবার আর বিমুখ হতে হয়নি তাদের। ক্ষীপ্রগতির কিলিয়ান এমবাপ্পেকে ডি বক্সে ফাউল করেন মর্কোস রোহো। ফলে পেনাল্টির বাশিঁ বাজান রেফারি। তা থেকে গোল করতে মোটেও ভুল করেননি গ্রিজম্যান। এতে ১-০ গোলে এগিয়ে যায় ’৯৮ চ্যাম্পিয়নরা।

পিছিয়ে পড়ে আক্রমণে গতি বাড়ায় আর্জেন্টিনা। এতে খেলা ওপেন হয়ে যায়। ফলে আরও আক্রমণে ওঠার সুযোগ পায় ফ্রান্স। ১৯ মিনিটে আবার ঝটিকা অ্যাটাক করে দলটি। ফের দৃশ্যপটে এমবাপ্পে। এবার তাকে ফাউল করেন নিকোলাস ত্যাগলিয়াফিকো। ফলে হলুদ কার্ড দেখেন এ আর্জেন্টাইন। তবে এবার কোনো দুর্ঘটনা ঘটেনি।

এরপর খেলার চিত্রপট পাল্টে যায়। মুহুর্মুহু আক্রমণে ফ্রান্স শিবিরে ত্রাস ছড়ায় আর্জেন্টিনা। তবে গোলমুখ খুলছিল না। অবশেষে কাঙ্ক্ষিত সাফল্য আসে ৪০ মিনিটে। দূরপাল্লার বিদ্যুতগতির শটে নিশানাভেদ করেন লেফ্ট উইংগার অ্যাঞ্জেল ডি মারিয়া। শেষ পর্যন্ত ১-১ গোলের সমতা নিয়ে বিরতিতে যায় দুদল।

দ্বিতীয়াধের্র শুরুতেই এগিয়ে যায় আর্জেন্টিনা। ৪৮ মিনিটে লিওনেল মেসির অ্যাসিস্ট থেকে গোল করে আলবিসেলেস্তেদের এগিয়ে দেন গ্যাব্রিয়েল মার্কাদো। এর পর অ্যাটাক-কাউন্টার অ্যাটাকে জমে ওঠে খেলা। ফলে ফ্রান্সের খেলায় ফিরতেও সময় লাগেনি। ৫৭ মিনিটে লুকাস হার্নান্দেজের ক্রস থেকে অসামান্য দক্ষতায় গোল করে দলকে সমতায় ফেরান বেঞ্জামিন পাভার্ড।

শেষ মিনিট কয়েক আর্জেন্টিনা মরণপণ চেষ্টা করেছে। কিন্তু পারেনি। এই না-পারার পেছনে আছেন মেসিও। ম্যাচের ৮৪ মিনিটে বক্সে একটা শট নিয়েছিলেন। সেখানেও স্কোরটা ৪-৩ হলে আর্জেন্টিনা আরেকটি অলৌকিক প্রত্যাবর্তনের আশা করতে পারত। পরের মিনিটে বক্সে আবারও তাঁর বাড়িয়ে দেওয়া বলে সার্জিও আগুয়েরো ফিনিশিংটা করতে পারেননি। আগুয়েরো যখন পারলেন, ততক্ষণ ম্যাপ প্রায় শেষ। যোগ করা সময়ে মেসির লম্বা বল থেকে মাথা ছুঁইয়ে হেড থেকে ৪-৩ গোল আগুয়েরো। শেষ বাঁশির আগে বক্সের জটলায় আর্জেন্টিনা আরেকটি সুযোগ পেয়েছিল। কিন্তু এবার আর কেউ মার্কোস রোহো হতে পারলেন না!

Print